আজকের সাক্ষ্যগ্রহণ পর্বেও বিস্ফোরক ডেভিড কোলম্যান হেডলি

আজকের সাক্ষ্যগ্রহণ পর্বেও বিস্ফোরক ডেভিড কোলম্যান হেডলি

আজকের সাক্ষ্যগ্রহণ পর্বেও বিস্ফোরক ডেভিড কোলম্যান হেডলি। ছাব্বিশ এগারো হামলা বাস্তবায়িত করতে পাক গোয়েন্দা সংস্থা ISI তাকে মোটা টাকা দিয়েছিল বলে মুম্বইয়ের বিশেষ আদালতকে জানিয়েছে হেডলি। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেওয়া বয়ানে হেডলি বলেছে, ভারতে আসার আগে মেজর ইকবাল ও সাজিদ মীর তাকে চল্লিশ হাজার পাকিস্তানি রুপি এবং পচিশ হাজার মার্কিন ডলার দিয়েছিল। হেডলির বয়ান অনুযায়ী, লাগাতার অর্থ জুগিয়েছিল তাহাউর হুসেন রানাও। দুহাজার ছয়ের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে লস্কর জঙ্গি তাহাউর হুসেন রানা চার দফায় হেডলিকে মোটা টাকা পাঠায়। ইন্দাস ইন্ড ব্যাঙ্কের নরিম্যান শাখা থেকে হেডলি ওই টাকা তোলে। ছাব্বিশ এগারো মুম্বই হানার অন্যতম চক্রী জানিয়েছে, হামলার আগে মুম্বই এসেছিল রানা।

হত্যালীলা চালিয়ে  কি পাকিস্তানে ফিরে যাওয়ার প্ল্যান ছিল আজমল কসাভদের? হত্যালীলা চালিয়ে কি পাকিস্তানে ফিরে যাওয়ার প্ল্যান ছিল আজমল কসাভদের?

আত্মঘাতী হামলা, নাকি হত্যালীলা চালিয়ে পাকিস্তানে ফিরে যাওয়ার প্ল্যান ছিল আজমল কসাভদের? ডেভিড কোলম্যান হেডলির সাক্ষ্য শোনার পর এখন এমন সন্দেহ উঁকি দিচ্ছে প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের ভাবনায়। শুনানি চলাকালীন হেডলিকে ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনাসের ছবি দেখানো হয়। হেডলি জানায়, সে ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনাসের ভিডিওগ্রাফি করে টার্গেট হিসেবে নয়, জঙ্গিদের পালানোর পথ হিসেবে। যদিও, মার্কিন আদালতে হেডলি যে বয়ান দিয়েছিল তার সঙ্গে এই বয়ানের মিল নেই। সেখানে হেডলি বলে, জঙ্গিরা সমুদ্রপথে ভারতে ঢুকে আমৃত্যু লড়াই চালাবে, লস্করের তরফে তাকে নাকি এমনটাই জানানো হয়।

পাঠানকোট কাণ্ডে সম্মিলিত চাপের কাছে কোণঠাসা হচ্ছে পাকিস্তান পাঠানকোট কাণ্ডে সম্মিলিত চাপের কাছে কোণঠাসা হচ্ছে পাকিস্তান

পাঠানকোট কাণ্ডের পর থেকেই চাপ বাড়ছে পাকিস্তানের ওপর। ভারত তো আছেই, চাপ বাড়িয়েছে আমেরিকাও। মোদীর ভূমিকার প্রশংসা করে মুখ খুলেছেন বারাক ওবামাও। সম্মিলিত চাপের কাছে ক্রমশই কোণঠাসা হচ্ছে পাকিস্তান। চাপ যত বাড়ছে, পাঠানকোটকাণ্ডের  তদন্তে সহযোগিতার আশ্বাসও তত জোরালো হচ্ছে। ভারতের দেওয়া নতুন তথ্যের প্রাপ্তিস্বীকার করে নিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। সমস্ত তথ্য যাচাই করে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ারও আশ্বাস মিলেছে ভারতের প্রতিবেশী দেশের রাষ্ট্রনায়কের কাছ থেকে। একটি বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করেছে পাকিস্তান। আরও তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ করতে দলটি ভারতেও আসবে বলে জানিয়েছেন নওয়াজ শরিফ।

 সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়ালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়ালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা

  সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়ালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। বললেন, শরিফ সরকারকে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স দেখাতেই হবে। জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস করতে আরও কড়া পদক্ষেপ করতে হবে ইসলামাবাদকে। সংবাদসংস্থা পিটিআই-কে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ভারত দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসবাদের স্বীকার। পাঠানকোট হামলা তারই এক উদাহরণ। তবে, সন্ত্রাস দমনে ইদানিং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ যেভাবে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রেখে চলেছেন তার প্রশংসা করেছেন ওবামা। পাঠানকোট হামলার পরও এই উদ্যোগ চালু থাকার কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকেই দিয়েছেন তিনি। মোদী ক্ষমতায় আসার পর দিল্লি-ওয়াশিংটন সম্পর্ক আরও মজবুত হয়েছে বলেও জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

দিল্লি, নয়ডা সহ মোট পাঁচটি শপিং মলে হামলা চালাতে পারে আইএস জঙ্গিরা! দিল্লি, নয়ডা সহ মোট পাঁচটি শপিং মলে হামলা চালাতে পারে আইএস জঙ্গিরা!

প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে আইসিস জঙ্গি হানার আশঙ্কা আগেই প্রকাশ করেছিলেন দেশের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। এবার সামনে আসছে আশঙ্কা। দিল্লি, নয়ডা সহ মোট পাঁচটি  শপিং মলে হামলা চালাতে পারে আইএস জঙ্গিরা।  এমনটাই আঁচ করছেন ভারতীয় গোয়েন্দারা।  গতকালই চার  জঙ্গিকে  গ্রেফতারের কথা ঘোষণা করে দিল্লি পুলিসের স্পোশাল সেল। ধৃতরা সকলেই  ইরাক ও সিরিয়ায় আইসিস হ্যান্ডলারদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতো বলেই দাবি পুলিসের।  অন্যদিকে আইসিসের নিশানায়  হরিদ্বারের অর্ধকুম্ভও। বিভিন্ন সূত্র থেকে এমনই ইঙ্গিত পেয়েছেন গোয়েন্দারা। খবর সামনে আসার পরেই নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয় গোটা তীর্থস্থানি।  গঙ্গার ঘাটে মোতায়েন করা হয়েছে সশস্ত্র নিরাপত্তা বাহিনী। স্নিফার ডগ নিয়ে চলছে তল্লাসিও।

আর বাঁচবেন না বলে বিসিসিআইকে সাহায্যের অনুরোধ পাক স্পিনার দানিশ কানেরিয়ার! আর বাঁচবেন না বলে বিসিসিআইকে সাহায্যের অনুরোধ পাক স্পিনার দানিশ কানেরিয়ার!

দানিশ কানেরিয়া অসহায়ের মতো আবেদন করলেন বিসিসিআইয়ের কাছে! ইংল্যান্ডের কাউন্টি ক্লাব এসেক্সের হয়ে ক্রিকেট খেলাকালীন স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়েন পাকিস্তানের এই লেগ স্পিনার। অপরাধ প্রমাণ হওয়ার পর তাঁকে আজীবন ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত করা হয়। তারপর থেকে সেই রায়ের বিরুদ্ধে তিন-তিনবার আদালতে গিয়েছেন দানিশ। কিন্তু রায়ের কোনও হেরফের হয়নি। তিনি যে তিমিরে ছিলেন, সেখানেই আছেন। আর তাই দানিশ কানেরিয়া বলেছেন, 'জীবনে যা কিছু টাকাপয়সা সঞ্চয় করেছিলাম, তার শেষটুকুও শেষ হয়ে এলো। জানি না এবার কী হবে। আমি কি তরুণ ভারতীয় ক্রিকেটারদের স্পিন বোলিং শেখাতে পারি না! পিসিবি আমার কোনও অনুরোধেই কর্নপাত করল না। আমায় বোধহয় এবার মরতে হবে।'

রেস্তোরায় খাওয়ার পর টাকাই নেই আফ্রিদির কাছে! রেস্তোরায় খাওয়ার পর টাকাই নেই আফ্রিদির কাছে!

আজ থেকে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সে দেশে ক্রিকেট সিরিজ খেলা শুরু করছে পাকিস্তান। তারই আগে পাকিস্তানের টি ২০ অধিনায়ক শাহিদ আফ্রিদি এবং আহমেদ শেহেজাদ, দুজনে বেরিয়েছিলেন একটু রাস্তায়। পথে খিদে পায় দুজনের। তাই ক্যাপ্টেন এবং সতীর্থ দুজনে ঢোকেন একটি ম্যাকডোনাল্ডের রেস্তোরায়। কিন্তু খাবার খেয়ে তাঁরা আবিষ্কার করেন, যে তাঁদের পকেটে রয়েছে ডলার। কিন্তু সেই রেস্তোরায় ডলার নেওয়া হয় না। সেখানকার টাকাও ছিল না আফ্রিদিদের কাছে। অবশ্য রেস্তোরা কর্মীরা টাকা চানওনি খুব একটা। কারণ, ক্রেতা যে স্বয়ং শাহিদ আফ্রিদি। সেই সময়, রেস্তোরায় ঢোকেন শাহিদ আফ্রিদর এক ভক্ত ওয়াকাস নাভিদ। তিনিই বিল মিটিয়ে দেন খাবারের।

ভারত-পাক বিদেশ সচিব পর্যায়ের বৈঠক নিয়ে আচমকাই সংশয় ভারত-পাক বিদেশ সচিব পর্যায়ের বৈঠক নিয়ে আচমকাই সংশয়

ভারত-পাক বিদেশ সচিব পর্যায়ের বৈঠক নিয়ে আচমকাই সংশয় তৈরি হল। সংশয়ের কারণ দৈনিক ভাস্কর সংবাদপত্রকে দেওয়া অজিত ডোভালের একটি সাক্ষাত্‍কার। হিন্দি দৈনিকটির দাবি, ভারত পনেরোই জানুয়ারির বিদেশ সচিব পর্যায়ের বৈঠক বাতিল করেছে। সাক্ষাত্কারে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল তাদের একথা জানিয়েছেন। সঙ্গে এও বলেছেন, যতদিন পর্যন্ত না পাঠানকোটে ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে  পাকিস্তান যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে এবং ভারত তাতে সন্তুষ্ট হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত শান্তি আলোচনা চালানোর কোনও মানেই হয়না। অজিত ডোভাল নিজে অবশ্য দাবি করছেন এধরনের কোনও সাক্ষাত্‍কার দেওয়ার কথা তাঁর মনে নেই। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাকে উদ্ধৃত করে অন্য একটি সংবাদমাধ্যম আবার জানিয়েছে, ইসলামাবাদ পাঠানকোট নিয়ে দৃঢ় কোনও পদক্ষেপ নিলে তবেই পাকিস্তানের সঙ্গে কথা বলবে ভারত।

 পাঠানকোটে জঙ্গি হামলায় পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়াল আমেরিকা পাঠানকোটে জঙ্গি হামলায় পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়াল আমেরিকা

পাঠানকোটে জঙ্গি হামলার ঘটনায় পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়াল আমেরিকা। নয়াদিল্লির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে দ্রুত ব্যবস্থা নিক ইসলামাবাদ। কোনও অজুহাতেই যেন চক্রীদের  আড়াল করার চেষ্টা না হয়। বার্তা ওয়াশিংটনের। ওবামা প্রশাসনের চাপে পাঠানকোট কাণ্ডের তদন্ত গতি পাবে বলে আশাবাদী নয়াদিল্লি। পাঠানকোট কাণ্ডের পর পেরিয়ে গেছে সাতদিন। ভারতের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তদন্ত শুরুর জন্য পাক গোয়েন্দা সংস্থাকে শুক্রবারই  নির্দেশ দিয়েছেন নওয়াজ শরিফ। এরই মধ্যে ভারতের দেওয়া তথ্য যথেষ্ট নয় বলে মন্তব্য করেছে পাক গোয়েন্দা সংস্থার একাংশ। এই পরিস্থিতিতে শনিবার ইসলামাবাদকে কড়া বার্তা পাঠাল মার্কিন বিদেশ দফতর।  কোনও গড়িমসি না করে, নয়াদিল্লির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অবিলম্বে চক্রীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিক ইসলামাবাদ। বার্তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের। মার্কিন বিদেশ দফতর বলেছে, " ঘরে-বাইরে পাকিস্তান বলছে পাঠানকোট কাণ্ডের ষড়যন্ত্রীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। প্রকাশ্যে তারা একথাও বলছে যে, জঙ্গি গোষ্ঠীগুলির মধ্যে কোনও ভেদাভেদ না করেই পদক্ষেপ নেওয়া হবে। কিন্তু কথা রাখতে ইসলামাবাদ কী পদক্ষেপ নিচ্ছে, কাজে কথার ফারাক থেকে যাচ্ছে কি না, সেদিকেও নজর রাখবে ওয়াশিংটন।'