দায়িত্বে ফিরছেন পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে অপসারিত ২ জেলাশাসক ও ৬ পুলিস সুপার

দায়িত্বে ফিরছেন পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে অপসারিত ২ জেলাশাসক ও ৬ পুলিস সুপার

ভোটের ফলপ্রকাশের দুদিনের মধ্যে নগরপালের দায়িত্ব ফিরে পান  রাজীব কুমার। এবার পালা অপসারিত বাকি জেলাশাসক ও পুলিস সুপারদের। পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে ভোটের আগে মোট ৬৮জন পুলিস অফিসার ও আমলাকে সরিয়ে দেয় কমিশন। ভোট মিটলেই প্রত্যেককে সসম্মানে স্বপদে ফিরিয়ে আনার কথা বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেইমতো, ফিরছেন দুই জেলাশাসক ও ছয় পুলিস সুপার। 

শুভেন্দু অধিকারিকে ক্লিনচিট দিল জেলা পুলিস শুভেন্দু অধিকারিকে ক্লিনচিট দিল জেলা পুলিস

শুভেন্দু অধিকারিকে ক্লিনচিট দিয়ে রিপোর্ট পাঠাল জেলা পুলিস সুপার। গতকাল সিপিএমের তরফে অভিযোগ তোলা হয়, নির্বাচনে কারচুপি করতে জেলার ৫ ওসির সঙ্গে বৈঠক করেছেন শুভেন্দু। অভিযোগের ভিত্তিতে পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিস সুপারকে তদন্তের নির্দেশ দেয় কমিশন। কমিশন আজ রিপোর্ট দিল কোনও মিটিং করেননি শুভেন্দু। জেলা পুলিস সুপারের ক্লিনচিটের পর সূর্যকান্ত মিশ্রর নামে আইনি নোটিস পাঠালেন তিনি।

পঞ্চম দফা ভোটের আগে কমিশনের কোপ, ১৩জন IC, OC-কে সরালো কমিশন পঞ্চম দফা ভোটের আগে কমিশনের কোপ, ১৩জন IC, OC-কে সরালো কমিশন

পঞ্চম দফা ভোটের আগে কমিশনের কোপে IC, OC, অপসারিত ১৩জন প্রশাসনিক কর্তা। অপসারিত OC বারাকপুর, অশোকনগর, ভদ্রেশ্বর, দিনহাটা, রায়দিঘি, তুফানগঞ্জ, জগাছার। অপসারিত IC টালিগঞ্জ, বনগাঁ, নৈহাটি, হাড়োয়া, দমদম, নিউটাউনের।

পশ্চিম মেদিনীপুর: পুলিস সুপার ও অঞ্চল সভাপতির দাপটে ঘাসফুল ছেড়ে পদ্মের আশ্রয়ে গ্রামবাসীরা পশ্চিম মেদিনীপুর: পুলিস সুপার ও অঞ্চল সভাপতির দাপটে ঘাসফুল ছেড়ে পদ্মের আশ্রয়ে গ্রামবাসীরা

তৃণমূল ছেড়ে বাধ্য হয়েই বিজেপিতে যোগ দিচ্ছে পশ্চিম মেদিনীপুরের বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ। তাঁর কারণ পশ্চিম মেদিনীপুরের গোপীবল্লভপুরে বেলিয়াবেড়া এলাকায় পশ্চিম মেদিনীপুর পুলিস সুপার ভারতী ঘোষ এবং তৃণমূল কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি স্বপন পাত্রের  বিরুদ্ধে আর্থিক তছরূপের অভিযোগ আনল গ্রামবাসীরা।  উভয়ের অত্যাচারের ফলে তৃণমূল ছেড়ে বাধ্য হয়ে বিজেপিতে আশ্রয় নিয়েছে গোটা গ্রামটাই। ঘটনার সূত্রপাত্র পঞ্চায়েত ভোটের পর থেকেই।

নজিরবিহীন নির্দেশিকা, পুলিস সুপারদের মূল্যায়ন করবেন মুখ্যমন্ত্রী

নজিরবিহীন নির্দেশ রাজ্যসরকারের। এবার থেকে মুখ্যমন্ত্রী জেলার পুলিস সুপারদের মূল্যায়ন করবেন বলে বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছে। এতদিন পর্যন্ত এই মূল্যায়ন করতেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব। একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের হাতে মূল্যায়নের ভার না থাকায় তাঁদের পদোন্নতি থেকে শুরু করে চাকরির ভবিষ্যত সবকিছু  নিয়ে আশঙ্কিত রাজ্যের আইপিএস  মহল।    এ এক নজিরবিহীন নির্দেশ। যাতে রাজ্যের আইপিএস দের চাকরির ভবিষ্যত কার্যত নির্ধারিত করে দেবেন মুখ্যমন্ত্রী। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে এহেন নির্দেশিকা আদতে পুলিসকে রাজনৈতিক প্রভাবে কাজ করতে বাধ্য করার এক ফল বলে মনে করা হচ্ছে।

পুলিস সুপারকে একহাত নিলেন অধীর চৌধুরী

রাজ্য সরকারের নির্দেশে মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস কর্মীদের মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। জেলার পুলিস সুপার হুমায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে রবিবার এই অভিযোগ করেছেন বহরমপুরের কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী। অন্যদিকে এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন হুমায়ুন কবীর। তাঁর দাবি জেলার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্যই কাজ করছে পুলিস।