মালদায় রিজ কাণ্ডের ছায়া, পুলিসি হানায় ঘরছাড়া নবদম্পতি

ভালোবেসে বিয়ে করাটাই কাল হল। এখন পুলিসি হানায় ঘরছাড়া নবদম্পতি। মালদার মালতীপুরের এই ঘটনার নেপথ্যে এক আরএসপি বিধায়ক। মেয়ে বাড়ির অমতে বিয়ে করায় তিনি জামাইয়ের বাড়িতে রীতিমতো পুলিস লাগিয়ে হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ। পুলিস সুপারের দ্বারস্থ হয়েও লাভ হয়নি। উল্টে প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কাও করছেন ওই যুবক-যুবতী।এ যেন আর এক রিজওয়ানুর কাণ্ডের ছায়া। মালতীপুরে স্কুলে পড়তে পড়তেই দুজনের আলাপ। আলাপ থেকে প্রেম। তারপর বিয়ে। এখানেই আপত্তি মেয়ের বাবা তথা মালতীপুরের আরএসপি বিধায়ক আবদুল রহিম বক্সির। বেয়াদপ মেয়ে-জামাইকে শায়েস্তা করতে তিনি মানিকচক ও রতুয়া থানার পুলিসকে কাজে লাগাচ্ছেন বলে অভিযোগ। পুলিস ওই যুবকের বাড়িতে তল্লাশির নামে নিয়মিত হানা দিচ্ছে। এমনকী একশ্রেণির দুষ্কৃতীও টেলিফোনে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ ওই দম্পতির।

বীরভূমে সিপিআইএম কর্মী খুনে প্রশ্নের মুখে পুলিসের ভূমিকা

বীরভূমে সিপিআইএম কর্মী শেখ হীরা খুনের ঘটনায় প্রশ্নের মুখে পুলিসের ভূমিকা। টাঙি, লাঠি নিয়ে হামলার পরও অভিযুক্ত আট তৃণমূল কর্মীর বিরুদ্ধে শুধুমাত্র অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা রুজু করেছে পুলিস। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, তিনবছর আগে শেখ জিয়া খুনের মামলায় মূল সাক্ষী লোপাট করতেই পরিকল্পনামাফিক খুন করা হয়েছে শেখ হীরাকে। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত দুই তৃণমূলকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।ভিও-প্রথমে ময়না তদন্তে রাজি ছিল না সিউড়ি সদর হাসপাতাল। শেষ পর্যন্ত বাসিন্দাদের চাপে ময়না তদন্ত হয়। সেখান থেকে মরদেহ যায় হারাইপুরের বাড়িতে। সেখানেই শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় শেখ হীরার।