নতুন রাজনৈতিক দল গড়ার পথে যোগেন্দ্র যাদব-প্রশান্ত ভূষণ? চলছে জল্পনা নতুন রাজনৈতিক দল গড়ার পথে যোগেন্দ্র যাদব-প্রশান্ত ভূষণ? চলছে জল্পনা

দলের জাতীয় কার্যকরী কমিটি থেকে ইতিমধ্যেই বহিষ্কৃত তাঁরা দু'জন। আপ সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সঙ্গে তাঁদের কোন্দল এখন সবার জানা। কেজরিপন্থীদের সঙ্গে আপ-এর অন্যতম এই দুই প্রতিষ্ঠাতা সদস্যের বিরোধীতা এখন দেশীয় রাজনীতিতে চর্চার অন্যতম বিষয়। তবে, এখনও খাতায়, কলমে আম আদমি পার্টির সাধারণ সদস্য রয়েই গেছেন দু'জনেই। এই অবস্থায় আগামী ১৪ এপ্রিল আপ-এর 'বিদ্রোহী' দুই নেতা দলেই নিজেদের সমর্থকদের নিয়ে বৈঠক ডেকেছেন। জল্পনা সেই বৈঠকেই হয়ত অদূর ভবিষ্যতে আপ ত্যাগ করে নয়া রাজনৈতিক দল গঠনের সিদ্ধান্ত নেবেন প্রশান্ত ভূষণ, যোগেন্দ্র যাদব।

আপে ভাঙন, বহিষ্কৃত হলেন যোগেন্দ্র যাদব, প্রশান্ত ভূষণ সহ আরও দুই আপে ভাঙন, বহিষ্কৃত হলেন যোগেন্দ্র যাদব, প্রশান্ত ভূষণ সহ আরও দুই

আপের জাতীয় কর্মসমিতি থেকে শেষপর্যন্ত বহিষ্কারই করা হল যোগেন্দ্র যাদব, প্রশান্ত ভূষণকে। তুমুল চেঁচামেচি, হই-হট্টোগোলের মধ্যে আজ দুই নেতার বিরুদ্ধে শাস্তির প্রস্তাব পেশ হয় জাতীয় পরিষদের বৈঠকে। ৩০০  জন ন্যাশনাল কাউন্সিল সদস্যের মধ্যে ২৩০  জনের সম্মতিতে পাস হয়ে যায় প্রস্তাব।   একইসঙ্গে বহিষ্কৃত হয়েছেন যোগেন্দ্র যাদব গোষ্ঠীর আরও দুই নেতা আনন্দ কুমার ও অজিত ঝা। অরবিন্দ কেজরিওয়ালের ভাষণ দিয়ে এদিন শুরু হয় বৈঠক। এরপরই অবশ্য বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান কেজরিওয়াল। তাঁর অনুপস্থিতিতে শাস্তি-প্রস্তাব পেশ করেন মণীশ সিসোদিয়া। ভিতরের ক্ষোভের আঁচ ছিল বৈঠকস্থলের বাইরেও। সমানতালে চলেছে ক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীদের বিক্ষোভ-স্লোগান।

কাশ্মীরে সেনার নিয়োজন নিয়ে প্রশান্ত ভূষণের `রেফারান্ডাম`-এর প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করলেন কেজরিওয়াল, স্পষ্ট করলেন এ বিষয়ে দলের অবস্থানও

জম্মু-কাশ্মীরে অভন্ত্যরীণ সুরক্ষার জন্য সত্যিই সেনাবাহিনীর প্রয়োজন রয়েছে কী না সে বিষয়ে মত নেওয়া হোক সেখানকার জন সাধারণেরই। এমনটাই মত ছিল আম আদমি পার্টির নেতা প্রশান্ত ভূষণের। সে বিষয়ে রেফেরেন্ডামের (গণভোট) বিতর্কিত প্রস্তাবও দিয়েছিলেন তিনি। আজ প্রশান্ত ভূষণের সেই মন্তব্যের সরাসরি তীব্র বিরোধিতা করলেন আপ সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়াল। এই বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করে দিল্লির নব নিযুক্ত মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য `` কাশ্মীর নিয়ে প্রশান্ত ভূষণের বক্তব্যের সঙ্গে আমরা একমত নই। এটি একান্ত ভাবেই ওনার ব্যক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গি।``