সচিনকে দেখে ব্যাক লিফট বদলে ফেলেছিলেন সেওয়াগ! সচিনকে দেখে ব্যাক লিফট বদলে ফেলেছিলেন সেওয়াগ!

নিজের ব্যাটিংয়ের উন্নতির জন্য কেরিয়ারের শুরুর দিকে সচিন তেন্ডুলকরকে দেখে ব্যাটিং স্টাইলে পরিবর্তন এনেছিলেন বীরেন্দ্র সেওয়াগ। সদ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন। এখন বয়স ৩৭। কিন্তু ক্রিকেট নিয়ে কথা তো তাঁকে বলতেই হয়। সেই ব্যাপারেই কথা বলতে গিয়ে বীরু বলেছেন, 'আমি যখন বেড়ে উঠছিলাম, সেই সময় অনেক ১০-১২ ওভারের ম্যাচ খেলতাম। মিডল অর্ডারে ব্যাট করতে হতো আমাকে। খেলার জন্য বড়জোর ১০টা বলই পেতাম। তাতেই যত বেশি রানের চেষ্টা করতে হতো। সুতরাং, মারকুটে ব্যাটিং করাটা আমি রপ্ত করে ফেলেছিলাম ছোট থেকেই। কিন্তু আমি যখন ভারতীয় দলে সূযোগ পেলাম, তখন আমার আদর্শ সচিন তেন্ডুলকরকে দেখে ব্যাটিংয়ে সামান্য পরিবর্তন এনেছিলাম। ব্যাকলিফটটা একটু বদলে ফেলেছিলাম। তারপর থেকে নিজের কায়দাতেই ব্যাট করেছি।'

গ্রেগ ভারতীয় ক্রিকেটকে ৫ বছর পিছিয়ে দিয়েছে, ইয়েন চ্যাপেলকে সচিন গ্রেগ ভারতীয় ক্রিকেটকে ৫ বছর পিছিয়ে দিয়েছে, ইয়েন চ্যাপেলকে সচিন

স্লেজিংয়ে কখনও জড়াননি। মাঠে দাঁড়িয়ে কখনও  কটূ কথা বলা বা কাউকে অপমান করা তার ধাতে ছিল না। তবে বাঁকা কথার জবাব সোজাভাবে দিতে ছাড়েননি সচিন তেন্ডুলকর।  অন্তত সচিনের জীবনী প্লেয়িং ইট মাই ওয়ে ঘাঁটলে  এমন কিছু তথ্য পাওয়া যায় । হয়ত মনে হবে এটা মাস্টারের চরিত্র বিরোধী। কিন্তু আত্মসম্মানটা যে তার কাছে অত্যন্ত মূল্যবান। তাই তো নিজের অনুরাগী বলে পরিচিত ইয়ান চ্যাপেলকেও ছাড়েননি। তেন্ডুলকরের ক্রিকেট কেরিয়ারের খারাপ সময়ে খোঁচা দিয়ে প্রাক্তন এই অসি অধিনায়ক সচিনকে পরামর্শ দিয়েছিলেন আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে একবার দেখার জন্য। স্বভাববিরোধী হলেও তার উত্তর কিন্তু দিয়েছিলেন সচিন। তিনি ইয়ানকে সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন তাদের মত পাল্টি খাওয়া মানুষের জুড়ি নেই। এখানেই শেষ নয় সচিন বলেছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটকে পাঁচ বছর পিছিয়ে দিয়েছেন তার ভাই গ্রেগ। তাই বেশি কথা না বলে মুখটা একটু বন্ধ রাখার অনুরোধ করেন সচিন।