যুবভারতীতে প্রধানমন্ত্রী ভাষণের সময় বিদুত্‍ বিভ্রাট

সায়েন্স কংগ্রেসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান চলছিল সুষ্ঠুভাবেই। কিন্তু হঠাত্‍ই বাধ সাধল বিদ্যুত্‍। দোতলার গ্যালারির স্পিকার বন্ধ। তাও আবার প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের সময়। বিদ্যুত্‍ বিভ্রাটে এবারও কাঠগড়ায় যুবভারতী।  সল্টলেকের যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে ইন্ডিয়ান সায়েন্স কংগ্রেসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পূর্ব নির্ধারিত সূচি মেনে  বৃহষ্পতিবার শুরু হয় ঠিক দুপুর বারোটায়।

মুখ্যমন্ত্রীকে পাশে বসিয়েই পরমাণু কেন্দ্রের পক্ষে সওয়াল প্রধানমন্ত্রীর

পাশে বসে মুখ্যমন্ত্রী। বিতর্কিত পরমাণু বিদ্যুত্কেন্দ্রের পক্ষে সওয়াল করতে ঠিক সেই মঞ্চটাকেই বেছে নিলেন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। বিজ্ঞান কংগ্রেসের শততম অধিবেশনের মঞ্চে পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীরসওয়ালের পাশে দাঁড়িয়েছেন বিজ্ঞানীরাও। এফডিআই সহ বিভিন্ন ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী বুঝিয়ে দিয়েছেন রাজনৈতিক বিরোধিতাকে উপেক্ষা করেই এগোবেন তাঁরা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাশে বসিয়ে পরমাণু বিদ্যুত্কেন্দ্রের পক্ষে সওয়াল করে সেই মনোভাবটাই ফের স্পষ্ট করলেন প্রধানমন্ত্রী। অর্থাত্‍ রাজনৈতিক বিচ্ছেদের পরে বিজ্ঞান কংগ্রেসের মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী প্রথমবার পাশাপাশি এলেও তাঁদের রাজনৈতিক দূরত্ব যে কমল না, তা স্পষ্ট।

প্রথা ভেঙেই প্রধানমন্ত্রীর অভ্যর্থনা এড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী

দিল্লিতে দরবার করেও কেন্দ্রের `বিশেষ আর্থিক সাহায্য` পাওয়ায় যথেষ্টই ক্ষুব্ধ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাতে ঘৃতাহুতি দিয়েছে পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধির ইস্যু। শনিবার প্রধানমন্ত্রীর তিন ঘণ্টার কলকাতা সফরে সেই ক্ষোভেরই বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। ৭ রেসকোর্স রোডের বাসিন্দাকে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরে হাজির হলেন না তিনি।