দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম ম্যাচেই শোচনীয় ভাবে ভারতের তরী ডুবল, ধোনির লড়াইও প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে জয়ের সন্ধান দিতে পারল না

দক্ষিণআফ্রিকা সফরের শুরুটা সুখের হল না ভারতের। প্রোটিয়ারা যে ধোনি এন্ড কোম্পানিকে বেগ দেবেন সেই ভবিষ্যৎবাণী মোটামুটি সব ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরাই করেছিলেন। কিন্তু শুরুর লগ্নে যে এতটা দুঃস্বপ্ন লুকিয়ে থাকবে সেটাও বোধহয় কেউই আঁচ করতে পারেননি। জোহনেসবার্গের ওয়ানডেরারস-এ শুরুটা মন্দ করেননি মহম্মদ শামিরা। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই খেই হারিয়ে ফেলন তাঁরা। ফিল্ডাররাও তাঁদের যোগ্য সঙ্গত করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার পিচ নিয়ে ভারতীয়দের আগেই সাবধান করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকান অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স। বৃহস্পতিবার প্রমাণিত হল তিনি ঠিক কতটা ঠিক ছিলেন। নিজেদের ব্যাটিং বাহিনীর উপর ভরসা করে টসে জিতে কালিসদের ব্যাট করতে পাঠিয়ে ছিলেন ধোনি। ভেবেছিলেন ৩০০ রানের মধ্যে বিপক্ষকে বেঁধে রাখতে পারলে সহজেই জয় ছিনিয়ে আনতে পারবেন। কিন্তু ধোনির সব হিসাবনিকাশ ভুল প্রমাণ করে ভারতীয় বোলারদের বেধরক ঠেঙিয়ে ককরা ৩৫৮ তোলেন। অন্যদিকে, খেলতে নেমে মাত্র ২১৭ রানেই গুটিয়ে যায় ভারতের ইনিংস।

শিখরে উঠেও মাটিতেই পা ধাওয়ানের

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তাঁর অসাধারণ পারফরমেন্সের জন্য ফাইনালের আগেই ম্যান অফ দ্য সিরিজের ট্রফিটা নিশ্চিত করেছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের নতুন তারা শিখর ধাওয়ান।প্রত্যাশিত ট্রফিটা হাতে পেয়ে সেটাকে উৎসর্গ করলেন উত্তরাখণ্ডের বন্যা দুর্গত মানুষদের প্রতি। অন্য দিকে তাঁর অধিনায়ক পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন পরিস্থিতি অনুযায়ী যে ক্রিকেটার জ্বলে ওঠেন তাঁর কাছে তিনিই ভাল খেলোয়াড়। ''বহু লোকজন টেকনিক নিয়ে কথা বলেন। কিন্তু আমার কাছে সেই সেরা যে পরিস্থিতি অনুযায়ী উপোযোগী সাড়া দেয়।''  চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি বগলদাবা করে গর্বিত অধিনায়ক সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই জানালেন। সঙ্গে ভূয়ষী প্রশংসায় ভরিয়ে দিলেন শিখর ধাওয়ান, রোহিত শর্মা, রবীন্দ্র জাদেজা সহ গোটা টিমকেই।