বছর ঘুরেও ক্ষতিপূরণ সেই তিমিরেই

কেটে গেছে গোটা একটা বছর। একবছর আগের এই দিনটাতেই বিষাক্ত মদ কেড়ে নিয়েছিল ১৭৩ জনের প্রাণ। দক্ষিণ ২৪ পরগনার সংগ্রামপুর, মগরাহাট, মন্দিরবাজার এলাকাগুলি গ্রাস করেছিল স্বজনহারানোর বেদনা। গ্রেফতার হয়েছে বিষ মদ তৈরির পাণ্ডা খোঁড়া বাদশা সহ বেশ কয়েকজন।

বিষমদে মৃত্যু মিছিল বেড়ে ১৭০

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সংগ্রামপুরে বিষমদ কাণ্ডের মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৭০। সরকারি সূত্রে মৃতের সংখ্যা অবশ্য ১৬৬। গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি শতাধিক মানুষ। ফলে মৃত্যু মিছিলের এই স্রোত বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে পুরোমাত্রায়। 

মগরাহাট নিয়ে মহাকরণে মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকে নেই স্বরাষ্ট্র সচিব

মগরাহাট নিয়ে মহাকরণে উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে বসলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু সেই বৈঠকে ডাক পেলেন না স্বরাষ্ট্র সচিব।

মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে অবরোধ পদ্মেরহাটে

পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে পথ অবরোধ করেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার জয়নগর থানার পদ্মেরহাট এলাকার বাসিন্দারা। গত বারো মাসে এগারোবার বাড়ানো হয়েছে পেট্রোলের দাম। আর তার সঙ্গেই পাল্লা দিয়ে বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামও।

জনরোষের শিকার মহিষ

মহিষের আক্রমণে আহত হয়েছেন গ্রামের তিরিশজন বাসিন্দা। সেই ক্ষোভে মহিষটিকে পিটিয়ে মারল উত্তেজিত জনতা। এই ঘটনা দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার জয়নগরের। শুরু হয় গণপিটুনি। এরপর জনরোষ গিয়ে পড়ে মহিষের মালিক আবু সালেম ঢালির ওপর।