তামিল ইস্যুতে কেন্দ্রকে সমর্থন তৃণমূলের

শ্রীলঙ্কায় নির্যাতিত তামিলদের জন্য গভীর উদ্বেগে রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। আজ দলের তরফে এক বিবৃতিতে একথা জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে বিবৃতিতে উল্লেখ করা  হয়েছে, বিদেশি রাষ্ট্র্রের সঙ্গে সম্পর্কের ইস্যু জড়িত রয়েছে এমন বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করাই দলের নীতি। সুতরাং তামিল ইস্যুতে কি করা হবে তা কেন্দ্রীয় সরকারের ওপরেই ছেড়ে দিতে চায় দল।  বিদেশি রাষ্ট্রের বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে হলে কেন্দ্রকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট রাজ্য এবং সেখানকার বাসিন্দাদের মনোভাবের বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তামিল ভাইবোনেদের ইস্যু সমর্থন করে দল। একটি বিদেশি রাষ্ট্রে তামিলদের একাংশের ওপর যে নির্যাতন চলছে দল সেনিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস গভীরভাবে উদ্বিগ্ন বলে জানানো হয়েছি বিবৃতিতে।

সরকার ছাড়ছে ডিএমকে

দ্বিতীয় ইউপিএ সরকার চরম সঙ্কটে ফেলে সরকার ছাড়ল ডিএমকে। বাইরে থেকেও সরকারকে সমর্থন জানাবে না তাঁর দল, আজ এই কথা জানিয়েছেন ডিএমকে কুলপতি করুণানিধি। মন্ত্রিসভার পাঁচ সদস্য সহ ডিএমকের ১৮ সাংসদ ইস্তফা দিলে ইউপিএর আসন সংখ্যা ২৪৮ থেকে নেমে আসবে ২৩০-এ। তৃণমূল জোট ছাড়ার পর এমনিতেই দুর্বল হয়ে পড়ে ইউপিএ। এসপি (২২ জন সাংসদ) এবং বিএসপির (২১ জন সাংসদ) বাইরে থেকে সমর্থনের ফলে ম্যাজিক ফিগার নাগালের মধ্যে থাকলেও ডিএমকে সরকার ছাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে দ্বিতীয় সরকার।

করুণানিধি-তিন মন্ত্রীর বৈঠক ব্যর্থ, শ্রীলঙ্কা সমস্যার সূত্র অধরাই

তিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পি চিদম্বরম, এ কে অ্যান্টনি এবং গুলাম নবি আজাদের চেষ্টাতেও সমাধান সূত্র মিলল না। একই সঙ্গে আরও জটিল হল তামিল ভাবাবেগ নিয়ে প্রাদেশিক রাজনীতি ও ইউপিএর জোট সমীকরণ। নয়াদিল্লি রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার পরিষদে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান না নিলে, ইউপিএ ছাড়ার হুমকি দিয়েছে ডিএমকে। জোট সঙ্কট সামাল দিতে আজ কংগ্রেসের তিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তামিলনাড়ু গিয়ে ডিএমকে প্রধানের সঙ্গে দেখা করেন। তবে তাঁদের বৈঠক ফলপ্রসু হয়নি বলে সূত্রে খবর।