ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে TMCP-এর দাপাদাপি, 'দিদি'র আদেশ 'সংযত' হও, 'শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মান দাও'

ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে TMCP-এর দাপাদাপি, 'দিদি'র আদেশ 'সংযত' হও, 'শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মান দাও'

কলেজে কলেজে প্রতিনিয়ত বাড়ছে শিক্ষক নিগ্রহের ঘটনা। কখনও আধ্যাপক নিগ্রহ, কোথাও শিক্ষককে জগ ছুড়ে মেরেছেন তৃণমূলের 'তাজা' নেতা আরাবুল ইসলাম, আবার কখনও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক ঘেরাওকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ছাত্রনেতা 'শঙ্কু স্যার'। প্রসিডেন্সিতে শাসক দলের তাণ্ডবে ভাঙচুর হয় ঐতিহ্যের বেকার ল্যাব। সব ঘটনাতেই মুখ পুড়েছে শাসক দলের। বিগত ৪ বছরে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রদের সংযত হওয়ার বার্তা দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। ছাত্রদের শিক্ষকদের সম্মান করার উপদেশ দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, "সংযত আচরণই ছাত্রদের কাছ থেকে কাম্য। ছাত্ররা যৌবনের প্রতীক। সমাজের নেতা আপনারাই হবেন। শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মান জানাবেন। বাড়ি থেকে বেরনোর সময় আমরা যেমন মায়েদের প্রনাম করি, শিক্ষকরাও আমাদের কাছে তেমনই সম্মানের। শিক্ষক দিবসের দিন, যেভাবে পাড়বেন শিক্ষকদের সম্মান করেবেন। পয়সা না থাকলে, বই কেনার টাকা না থাকলে, অন্তত পায়ে হাত দিয়ে প্রমাণ করুন"।     

জয়পুরিয়া কলেজে এক ছাত্রের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ কলেজেরই এক ছাত্রীর জয়পুরিয়া কলেজে এক ছাত্রের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ কলেজেরই এক ছাত্রীর

জয়পুরিয়া কলেজে শ্লীলতাহানির অভিযোগ। কলেজের এক ছাত্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন কলেজেরই এক ছাত্রী। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে শ্যামপুকুর থানা। তবে এ ঘটনার পিছনে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছায়া দেখছে ছাত্রছাত্রীদের একাংশ। জয়পুরিয়া কলেজে প্রথম বর্ষের এক ছাত্রের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ। বৃহস্পতিবার ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন কয়েকজন ছাত্র বাধা দেয় বলে অভিযোগ। এর প্রতিবাদ করেন এক ছাত্রী। প্রতিবাদ করা মাত্রই সুরজ সোনকার নামে ওই ছাত্র তাঁর শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগ। এই অভিযোগ নিয়েই শ্যামপুকুর থানায় যান ওই ছাত্রী।

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুর, জামিন পেয়ে গেল অভিযুক্তরা, ফের কাঠগড়ায় প্রশাসন আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুর, জামিন পেয়ে গেল অভিযুক্তরা, ফের কাঠগড়ায় প্রশাসন

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুরের  ঘটনায় ফের কাঠগড়ায় রাজ্য প্রশাসন।  সরকারি আইনজীবীর গরহাজিরায় জামিন পেয়ে গেলেন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুরে ধৃত সাত টিএমসিপি সদস্য। অথচ অভিযোগ দায়ের হয়েছিল জামিন অযোগ্য ধারায়। জামিনের বিরোধিতায়  সরকারি আইনজীবী কেন হাজির হলেন না, তা নিয়েই প্রশ্ন উঠছে।পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে ফের কাঠগড়ায় শাসকদল। আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে তাণ্ডব চালিয়ে অনায়াসেই জামিন সাত অভিযুক্তের। আদালতে হাজিরই হলেন না সরকারি আইনজীবী।  সরকারি আইনজীবীর আদালতে গরহাজিরা নিয়ে সরব হয়েছেন বিশিষ্টজনেরা