এক সময় যাঁরা সিঙ্গুরে আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন, অনেকেই রাজনীতি থেকে অনেক দূরে

এক সময় যাঁরা সিঙ্গুরে আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন, অনেকেই রাজনীতি থেকে অনেক দূরে

স্বপ্নভঙ্গের আরেক নাম হয়ত সিঙ্গুর। কারখানা হয়নি, উন্নয়ন নেই, গ্রামের কয়েক হাজার ছেলে মেয়ে বেকার। ঠিক যেন বছর দশেক আগেই থমকে আছে সিঙ্গুর। ফের ভোট এসেছে। ভোট উত্সবে মেতেছে খাসেরবেড়ি, বেড়াবেড়ি। কিন্তু আদৌ কি পরিবর্তন আসবে? একটাই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সিঙ্গুর জুড়ে। সিঙ্গুরের গাড়ি কারখানাকে সামনে রেখেই পরিবর্তনের ঝড় উঠেছিল বাংলায়। ক্ষমতার বদল হয়েছে। কিন্তু কারখানা অনিশ্চিত। আইনি জটে আটকে জমি। কারখানার মুখ ঢেকেছে আগাছার জঙ্গলে। তবু শাসক বা বিরোধী, এবারের ভোটেও সকলেরই অস্ত্র টাটা কারখানা।

আজ শীর্ষ আদালতে সিঙ্গুর মামলার রায়, অপেক্ষায় গোটা রাজ্য

সুপ্রিমকোর্টে আজ সিঙ্গুর মামলার শুনানি। গত ১৫ নভেম্বর শুনানি শুরু হওয়ার কথা থাকলেও  টাটা মোটরস অতিরিক্ত নথি জমা না দেওয়ায় পিছিয়ে যায় শুনানি। টাটা মোটরসকে বাড়তি সময় না দেওয়ার আবেদন জানায় রাজ্য। তবে সব পক্ষের বক্তব্য শুনে, অতিরিক্ত নথি জমা দেওয়ার জন্য টাটা মোটরসকে আরও ৪ সপ্তাহ সময় দেয় কোর্ট অফ রেজিস্ট্রার। যদিও রেজিস্ট্রার স্পষ্ট করে দেন, নির্ধারিত সময়ে অতিরিক্ত নথি জমা না দিলে ২ ডিসেম্বরের পর সিঙ্গুর মামলা শুনানি শুরু হয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে পরবর্তী সময়ে আবেদন করার ব্যাপারে কোনও সুবিধা পাবে না টাটা মোটরস।