বেফাঁস মন্তব্যের জেরে ফের তৃণমূলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির আতসকাঁচে দীনেশ ত্রিবেদী!

বেফাঁস মন্তব্যের জেরে ফের তৃণমূলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির আতসকাঁচে দীনেশ ত্রিবেদী!

নারদ বিস্ফোরণের পর এবার দীনেশ-বিস্ফোরণ।স্টিং কাণ্ডে জড়িত নেতা-মন্ত্রীদের কড়া সমালোচনা দলের সাংসদের। সুযোগ কাজে লাগিয়ে নারদ ইস্যুতে  সুর চড়া বিরোধীদের। মন্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়ে  সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদীর কৈফিয়ত তলব করেছে তৃণমূল হাইকমান্ড। স্টিং কাণ্ডে  দলের সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদীর মন্তব্যে অস্বস্তিতে শাসকদল। দিল্লির এক বণিকসভায় তৃণমূল সাসংদ দীনেশত্রিবেদী মন্তব্য, যেসব তৃণমূলনেতা ও সাংসদদের নারদকাণ্ডে স্টিং অপারেশনে দেখা গেছে তাঁদের মুখ বন্ধ করে ঘরে বসেথাকা উচিত।   তাঁরা যদি নিজেদের  নির্দোষ মনে করেন তাহলে তাঁদের তদন্ত দাবি করা উচিত। জানিয়েছে সংবাদসংস্থা পিটিআই।সংবাদসংস্থাটি আরোও জানিয়েছে যে দীনেশ ত্রিবেদী মনে করেন যে  দলের নীচুতলার কর্মীদের ও শীর্ষ নেতৃত্বকে নিয়ে কোথাও কোনও সমস্যা নেই।

তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠল সিপিএমের বিরুদ্ধে তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠল সিপিএমের বিরুদ্ধে

  তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠল সিপিএমের বিরুদ্ধে। পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতার তিন নম্বর ব্লক সুকনাতোরের ঘটনা। জখম চার তৃণমূল কর্মীকে ভর্তি করা হয়েছে দ্বারিঘেরিয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। সিপিএম অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাদের পাল্টা অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধেই। তৃণমূল কর্মীরাই অস্ত্র নিয়ে সিপিএম কর্মীদের ওপর চড়াও হয় বলে অভিযোগ। এমনকী আহত সিপিএম কর্মী-সমর্থকদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে বাধা দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। দুজন আহত সহ বেশ কয়েকজন সিপিএম কর্মী নিখোঁজ বলে অভিযোগ সিপিএমের।

তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতে অনাস্থা তৃণমূলেরই! তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতে অনাস্থা তৃণমূলেরই!

তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতে অনাস্থা তৃণমূলেরই।গোঘাটের বালি গ্রাম পঞ্চায়েতে, এমনই পর্যায়ে পৌছেছে তৃণমূলের অন্তর্দ্বন্দ্ব। মোট উনিশ জন সদস্যের মধ্যে অনাস্থায় সায় রয়েছে এগারো জনের। আড়াই বছর কাটতে না কাটতেই, হুগলির গোঘাটের বালি গ্রাম পঞ্চায়েতে আজব কাণ্ড। তৃণমূল প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনলেন, এই পঞ্চায়েতেরই এগারো জন সদস্য। অভিযোগ, এলাকার দাপুটে তৃণমূল নেতা প্রভাত অধিকারীর সঙ্গে বর্তমান প্রধান অশোক রায়ের প্রবল দ্বন্দ্বের জেরেই এই ঘটনা। প্রধানের বিরুদ্ধে একনায়ক তন্ত্র চালানোর অভিযোগ তুলেছে তাঁর দলেরই বিরুদ্ধ গোষ্ঠী। জেলা সভাপতির সবুজ সঙ্কেত পেয়েই এই সিদ্ধান্ত। জানান বিক্ষুব্ধরা।

তৃণমূল কাউন্সিলরের প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগে কাঠগড়ায় আরেক তৃণমূল কাউন্সিলর! তৃণমূল কাউন্সিলরের প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগে কাঠগড়ায় আরেক তৃণমূল কাউন্সিলর!

তৃণমূল কাউন্সিলরের প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ। কাঠগড়ায় আরেক তৃণমূল কাউন্সিলর।  উত্তর চব্বিশ পরগনার পানিহাটি পুরসভার ঘটনা। একতিরিশ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর অরিজিত্‍ ঘোষের অভিযোগ, গতকাল রাতে কিছু লোক তাঁর বাড়িতে চড়াও হয়ে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। আতঙ্কে ঘোলা থানায় ফোন করেন তিনি। পুলিস ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। প্রাণনাশের হুমকির জন্য তেরো নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর জয়ন্ত দাসকে দায়ী করেছেন অরিজিত্‍ ঘোষ। ঘোলা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। যদিও পানিহাটির বিধায়ক এবং উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক নির্মল ঘোষের দাবি, এই ঘটনায় দলের কোনও যোগ নেই। বিষয়টি দুজনের ব্যক্তিগত ঝামেলা।

প্রায় ১ বছর বাদে তৃণমূলের মিছিলে হাঁটলেন মুকুল রায় প্রায় ১ বছর বাদে তৃণমূলের মিছিলে হাঁটলেন মুকুল রায়

আজ ফের তৃণমূলের মিছিলে দেখা গেল মুকুল রায়কে। সকাল নটা নাগাদ কাঁচড়াপাড়ায় শুভ্রাংশু রায়ের সমর্থনে মিছিল বের করবে তৃণমূল। সেই মিছিলে হাঁটবেন মুকুল রায়ও। প্রায় এক বছর পর ফের তৃণমূলের মিছিল দেখা যাবে মুকুল রায়কে। এবং ছেলের হয়ে প্রচারে নামার মধ্যে দিয়েই শুরু হচ্ছে এই নতুন পর্বের।  ইতিমধ্যে নানা ঘটনাবালীর মধ্যে দিয়ে তৃণমূলের সঙ্গে দূরত্ব কমেছে তাঁর। কলকাতায় গুলাম আলির অনুষ্ঠানে মমতা ব্যানার্জির গাড়িতেই আসেন মুকুল।  দূরত্ব কমার পর্বে  দলের কাজে প্রথম তাঁকে দেখা গেছে নাজমা হেপতুল্লার কাছে দলের সাংসদদের ডেপুটেশনেক সময়। সাংসদ হিসাবেই এই ডেপুটেশনে হাজির ছিলেন মুকুল। কাল  সম্পূর্ণ হল বৃত্ত। তৃণমূল ভবনে দলনেত্রীর সঙ্গে বৈঠকও করেন তিনি। এবার ছেলের হয়েই প্রচারে নেমে দলের মিছিলে যোগ দেবেন তিনি।

এবার তৃণমূলের মিছিলে দেখা যাবে মুকুল রায়কে এবার তৃণমূলের মিছিলে দেখা যাবে মুকুল রায়কে

এবার তৃণমূলের মিছিলে দেখা যাবে মুকুল রায়কে। এমাসের তিরিশ তারিখ কাঁচড়াপাড়ায় শুভ্রাংশু রায়ের সমর্থনে মিছিল করবে তৃণমূল। সেই মিছিলে হাঁটবেন মুকুল রায়। প্রায় এক বছর পর ফের তৃণমূলের মিছিল দেখা যাবে মুকুল রায়কে। এবং ছেলের হয়ে প্রচারে নামার মধ্যে দিয়েই শুরু হচ্ছে নতুন পর্ব।  ইতিমধ্যে নানা ঘটনাবালীর মধ্যে দিয়ে তৃণমূলের সঙ্গে দূরত্ব কমেছে তাঁর। কলকাতায় গুলাম আলির অনুষ্ঠানে মমতা ব্যানার্জির গাড়িতেই আসেন মুকুল।  দূরত্ব কমার পর্বে  দলের কাজে প্রথম তাঁকে দেখা গেছে নাজমা হেপতুল্লার কাছে দলের সাংসদদের ডেপুটেশনেক সময়। সাংসদ হিসাবেই এই ডেপুটেশনে হাজির ছিলেন মুকুল। এবার ছেলের হয়েই প্রচারে নেমে দলের মিছিলে যোগ দেবেন তিনি।

তৃণমূলের গোষ্ঠীসংঘর্ষে উত্তপ্ত কেশিয়াড়ি তৃণমূলের গোষ্ঠীসংঘর্ষে উত্তপ্ত কেশিয়াড়ি

তৃণমূলের গোষ্ঠীসংঘর্ষে উত্তপ্ত কেশিয়াড়ি। দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে  ভাঙচুর হয়েছে দলীয় কার্যালয়। আহত দুই তৃণমূল কর্মী। উত্তেজনা থাকায় এলাকায় পুলিস মোতায়েন রয়েছে। কার ক্ষমতা বেশি। পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়িতে তৃণমূলের  দুই গোষ্ঠী নেতার ক্ষমতা জাহিরের লড়াই-এ উত্তপ্ত হয়ে উঠল কেশিয়াড়ি। কেশিয়াড়ির তৃণমূল ব্লক সভাপতি জগদীশ দাস  আর তৃণমূলের খেত মজদুর ইউনিয়নের নেতা ফটিকরঞ্জন পাহাড়ি। দুজনের  লড়াইয়ে ভাঙচুর হল তৃণমূল পার্টি অফিস। আহত দুই তৃণমূল সমর্থক।  তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে জগদীশ দাশ গোষ্ঠীর অনুগামীদের বিরুদ্ধে।

এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বর্ধমানের গলসি এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বর্ধমানের গলসি

এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বর্ধমানের গলসি। সকাল থেকেই গলসির পুরন্দরগড়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে  শুরু হয় সংঘর্ষ। দফায় দফায়  দুপক্ষের মধ্যে ব্যাপক বোমাবাজি হয়। বাড়ি ভাঙচুরে পাশাপাশি  আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় দুটি ধানের গোলায়, খড়ের গাদায়। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় একটি বাড়ি।  বোমার আঘাতে জখম হয়েছেন তৃণমূল কর্মী হারুল মোল্লা। গুরুতর জখম অবস্থায় হারুল মোল্লাকে বর্ধমান মেডিক্যাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযোগ, স্থানীয় দুই তৃণমূল নেতা জনার্দন চট্টোপাধ্যায় ও পরেশ পালের গোষ্ঠীর মধ্যে এলাকা দখলকে কেন্দ্র করেই এই সংঘর্ষ ।

রেড রোড দুর্ঘটনায় গাড়ির চালান থেকে সামনে এসেছে প্রভাবশালী যোগ রেড রোড দুর্ঘটনায় গাড়ির চালান থেকে সামনে এসেছে প্রভাবশালী যোগ

রেড রোডের দুর্ঘটনার নয়া মোড়। গাড়ি কেনার চালান থেকেই এবার সামনে এসেছে প্রভাবশালী যোগ। তবে তদন্ত শুরু করে একাধিক প্রশ্নের জবাব হাতড়াচ্ছে পুলিস। কীভাবে ব্যারিকেড কাটিয়ে সেনার মহড়ায় ঢুকে পড়ল বাইরের গাড়ি? বেপরোয়া ড্রাইভিংয়ের জেরে প্রশ্ন উঠেছে তবে কি চালক সুস্থ ছিলেন না? ফোর্ট উইলিয়ামের সামনে উদ্ধার হওয়া গাড়িটি পাওয়া গেছে কড়া পারফিউমের গন্ধ। মদের গন্ধ ঢাকতেই সুগন্ধী ছড়ানো হয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখছে পুলিস। দুর্ঘটনার পরে সুকৌশলে যেভাবে গাড়িটি বার করে নিয়ে গেছেন চালক, সেক্ষেত্রে মনে করা হচ্ছে যথেষ্ট  হুঁশেই ছিলেন চালক। কে চালাচ্ছিলেন গাড়িটি? তানিয়েও তৈরি হয়েছে  বিতর্ক। গাড়ির মধ্যে থাকা একটি চালান অবশ্য ইঙ্গিত দিচ্ছে মালিকের দিকেই। কারণ গাড়ি কেনার চালান সাধারণত মালিকের কাছেই থাকে।

 কাঁথির অযোধ্যাপুরের পরিত্যক্ত টালি ভাটা থেকে উদ্ধার তাজা বোমা কাঁথির অযোধ্যাপুরের পরিত্যক্ত টালি ভাটা থেকে উদ্ধার তাজা বোমা

কাঁথির অযোধ্যাপুর হরিজনপল্লিতে একটি পরিত্যক্ত টালি ভাটা থেকে উদ্ধার বেশ কয়েকটি তাজা বোমা। মিলেছে বোমা তৈরির মসলাও। আর পুলিসকে এই বোমার খবর দিয়ে আক্রান্ত গ্রামেরই এক বাসিন্দা। গতকাল রাতে  পুলিস এসে বোমা উদ্ধারের পরই ওই ব্যাক্তির উপর হামলা হয় বলে অভিযোগ। তলোয়ার দিয়ে তাঁকে আঘাত করা হয়। জেলার তৃণমূল নেতা-জেলা পরিষদের শিক্ষা কর্মাধক্ষ্য মামুদ হোসেনের অভিযোগ, এলাকায় সন্ত্রাস ছড়াতে দুষ্কৃতীরা এই বোমা তৈরি করছিল। যদিও এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তবে, শীঘ্রই অপরাধীকে গ্রেফতার করা হবে, এই ভরসা দেন তাঁরা।

চার বিজেপি সমর্থককে বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে চার বিজেপি সমর্থককে বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

রাস্তা আটকে চার বিজেপি সমর্থককে বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার বাসন্তীর বোরিয়া গ্রামের ঘটনা। আহত বিজেপি সমর্থকদের রক্তাক্ত অবস্থায় প্রথমে বাসন্তী ব্লক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে রেফার করা হয় তাঁদের। ঘটনার সূত্রপাত মঙ্গলবার। অভিযোগ, স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা বিজেপি করার জন্য কয়েকজন ক্ষেতমজুরকে বেধড়ক মারধর করে। বুধবার আক্রান্তরা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে, স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব আরও ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। গতকাল ক্ষেতমজুর পরিবারের লোকজন রাস্তা দিয়ে ফেরার সময়, তাঁদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। হামলার মূল পাণ্ডা হিসেবে ফুলমালঞ্চ গ্রামপঞ্চায়েতের তৃণমূলের প্রধান আফতাব মোল্লার নাম উঠে এসেছে। আজ ক্যানিংয়ের SDPO-র কাছে যাবে বিজেপির প্রতিনিধি দল। স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। গোসাবার তৃণমূল বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের দাবি, পুরোটাই প্রতিবেশী ও পরিবারের ঝামেলা। এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই।