বৃহত্তর সমঝোতার রাস্তা খুলে বাজেট অধিবেশনে মোদী বিরোধিতায় একজোটের হাওয়া সংসদে বৃহত্তর সমঝোতার রাস্তা খুলে বাজেট অধিবেশনে মোদী বিরোধিতায় একজোটের হাওয়া সংসদে

আপাতত মোদী বিরোধিতায় একজোট হওয়া। আর এ পথেই ভবিষ্যতে বৃহত্তর সমঝোতার রাস্তা খুলে রাখা। সংসদের বাজেট অধিবেশনে এই কৌশল নিয়েই এগোতে চাইছে বিরোধীরা। তাঁদের যৌথ রণনীতি চিন্তায় রাখছে সরকারকেও।   বিরোধীদের বাধায় সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে অচল হয়ে গিয়েছিল রাজ্যসভা। বিল পাশ করাতে না পরে জমি অধিগ্রহণ এবং বিমায় বিদেশি বিনিয়োগে অর্ডিন্যান্স আনে সরকার। কয়লা বিলে দ্বিতীয়বার জারি করতে হয় অর্ডিন্যান্স। জমি, বিমা, কয়লা সহ আটটি অর্ডিন্যান্স বাজেট অধিবেশনে সরকারকে পাশ করাতে হবে। কিন্তু, বিরোধীরা মোদীকে সেই সুযোগ দিতে নারাজ। বাজেট অধিবেশনের গোড়া থেকেই এককাট্টা তারা।

অসম হিংসা: পাঁচটি শিশুর সহ উদ্ধার হল আরও ৭ মৃতদেহ, বোড়ো জঙ্গি হামলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩২

অসমের বাকসা জেলা থেকে পাঁচটি শিশু সহ আরও ৭টি দেহ মৃতদেহ উদ্ধার হল। এই নিয়ে বোড়ো জঙ্গিদের আক্রমণে শেষ ৩৬ ঘণ্টায় অসমে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩২। তবে অসমর্থিত সূত্রের খবর মৃতের সংখ্যা এর মধ্যে ৫০ ছুঁয়েছে।

কোকরাঝোর, চিরাগ এবং বাকসা জেলায় কারফিউ জারি করা হয়েছে। হিংসা নিয়ন্ত্রণে শুট অ্যাট সিটের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বোড়োল্যাণ্ড এলাকা এমনিতেই হিংসা প্রবণ। ফলে নতুন করে হিংসা রুখতে কড়া পদক্ষেপই নিতে হচ্ছে প্রশাসনকে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক ১০ কোম্পানি প্যারা মিলিটারি সেনা পাঠিয়েছে অসমে।

বাকসা থেকে ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কোকরাঝোরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮জন কে আটক করেছে পুলিস।

বিজেপির তরফ থেকে এই ঘটনার দায় স্বীকার করে মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গোগোইয়ের পদত্যাগ দাবি করা হয়েছে। তবে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন তিনি কোনও মতেই এই পরিস্থিতিতে পদত্যাগ করবেন না।

এনআইএ তদন্তের দাবি করেছে অসম সরকার।

গত ৩৬ ঘণ্টায় পৃথক তিনটি জঙ্গি হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন অ-বোড়ো সাধারণ মানুষ।

২০১২ সালে বোড়োদের সঙ্গে মুসলিমদের দাঙ্গায় শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। ঘর ছাড়া হয়েছিলেন লক্ষাধিক মানুষ।