রত্নাচল এক্সপ্রেসে আগুন, অশান্তির ভ্রুকুটিকে মাথায় নিয়েই ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে অন্ধ্রপ্রদেশ

রত্নাচল এক্সপ্রেসে আগুন, অশান্তির ভ্রুকুটিকে মাথায় নিয়েই ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে অন্ধ্রপ্রদেশ

অশান্তির ভ্রুকুটিকে মাথায় নিয়েই ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে অন্ধ্রপ্রদেশ। সংরক্ষণের দাবিতে কাপু সম্প্রদায়ের বিক্ষোভে গতকাল রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় অন্ধ্রের তুনি শহর। কয়েকঘণ্টার মধ্যেই গোটা পূর্ব গোদাবরী জেলায় ছড়িয়ে পড়ে বিক্ষোভের আগুন। রত্নাচল এক্সপ্রেসে আগুন ধরিয়ে দেন বিক্ষোভকারীরা। বন্ধ করে দেওয়া হয় ১৬ নম্বর জাতীয় সড়ক। পুলিসের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। আক্রান্ত হয় পুলিস থানাও। বিক্ষোভ মোকাবিলায় আহত হয় পনেরোজন পুলিসকর্মী। স্তব্ধ হয়ে যায় যোগাযোগ ব্যবস্থা। রবিবারই অন্ধ্রের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নায়ডু জানান, কাপু সম্প্রদায়কে সংরক্ষণের আওতায় আনতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তাঁর সরকার। এরপর বিক্ষোভ উঠলেও, চরম হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছেন আন্দোলনকারীরা। কাপু নেতা পদ্মনাভন জানিয়েছেন আজকের মধ্যে সরকার এ নিয়ে কোনও ঘোষণা না করলে আমরণ অনশনে বসবেন তিনি।

CYCLONE LIVE: অন্ধ্র উপকূলের কাছাকাছি অবস্থান করছে হুদহুদ CYCLONE LIVE: অন্ধ্র উপকূলের কাছাকাছি অবস্থান করছে হুদহুদ

 আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, রবিবার দুপুরের মধ্যে অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনম এবং ওড়িশার গোপালপুরের মাঝামাঝি এলাকায় আছড়ে পড়বে হুদহুদ।

হুদহুদ হুঙ্কার আরও শক্তি বাড়াল হুদহুদ হুঙ্কার আরও শক্তি বাড়াল

ক্রমশ শক্রি বাড়াচ্ছে হুদহুদ। আজ সকাল দশটার মধ্যেই ঘূর্ণিঝড় প্রবল শক্তি সঞ্চয় করবে বলে আশঙ্কা আবহাওয়াবিদদের। মনে করা হচ্ছে, রবিবার সকালেই বিশাখাপত্তনমে আছড়ে পড়তে পারে হুদহুদ। ইতিমধ্যেই উপকূলবর্তী এলাকার মানুষজনকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। কারণ ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় একশো চল্লিশ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। সেক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কায় তত্পর প্রশাসন। এখনও পর্যন্ত ক্যাটাগরি ওয়ানে দাঁড়িয়ে রয়েছে হুদহুদ।

টিআরএসের ডাকে চলছে তেলেঙ্গানা বন্ধ

টিআরএসের ডাকে আজ সকাল থেকে বনধ চলছে তেলেঙ্গানায়। বেশিরভাগ জায়গায় দোকানবাজার বন্ধ রয়েছে। রাস্তায় যানবাহনের সংখ্যা চোখে পড়ার মতো কম। পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে পরীক্ষা। পোলাভারাম জলপ্রকল্পকে কেন্দ্র করে তেলেঙ্গানার কিছু অঞ্চল সীমান্ধ্রের সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়ার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এই বনধ ডেকেছেন টিআরএস সভাপতি এবং রাজ্যের ভাবী মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও।

অন্ধ্রপ্রদেশে রাষ্ট্রপতি শাসনের মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত

অন্ধ্রপ্রদেশে বিধানসভা ভেঙে রাষ্ট্রপতি শাসনের মেয়াদ ৩০ এপ্রিল থেকে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের উপস্থিতিতে ক্যাবিনেট বৈঠকে এই প্রস্তাবে সম্মতি দেওয়া হয়। ইতিমধ্যেই প্রস্তাবটি রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠিয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

তেলেঙ্গানার বিরোধিতায় আজ অন্ধ্র বনধ

লোকসভায় তেলেঙ্গানা বিল পেশের বিরোধিতা করে আজ অন্ধ্র প্রদেশ বনধের ডাক দিয়েছে ওয়াই এস আর কংগ্রেস। রাজ্যজুড়ে বিপর্যস্ত জনজীবন। যানবাহন চললেও তা সামান্যই। স্কুল কলেজ বন্ধ। দোকানপাট খোলেনি। রাজ্যের একাধিক জায়গায় বনধের সমর্থনে সকাল থেকে মিছিল বের করেন বিক্ষোভকারীরা। শুধু ওয়াই এস আর কংগ্রেসই নয়, রাজ্যভাগের বিরোধিতায় বনধের ডাক দিয়েছে একাধিক সংগঠন।

সীমান্ধ্রে ভয়াবহ চেহারা নিচ্ছে বিদ্যুৎ বিপর্যয়

ভয়াবহ চেহারা নিচ্ছে সীমান্ধ্রের বিদ্যুৎ বিপর্যয়। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ, যে ব্যাটারি দিয়ে হাসপাতাল চালু রাখতে হচ্ছে প্রশাসনকে। ট্রেন চালানোর মতো বিদ্যুতও অমিল। আজ বাতিল করা হয়েছে ২০টি ট্রেন। অন্ধ্র বিভাজনের প্রতিবাদে ধর্মঘট শুরু করেছেন উপকূলীয় অন্ধ্র এবং রায়ালসীমার বিদ্যুত দফতরের কর্মীরা। এর জেরে বন্ধ হতে বসেছে সাদার্ন গ্রিড।

আজই সম্ভবত তেলেঙ্গানার পৃথক রাজ্যের মর্যাদায় শীলমোহর পড়ছে

আজ বিকেলেই সম্ভবত নির্ধারিত হবে তেলেঙ্গানার ভাগ্য। পৃথক রাজ্যের মর্যাদা পেতে তেলেঙ্গানাকে অপেক্ষা করতে হবে আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা। আজ বিকেল ৫.৩০টায় এই নিয়ে বৈঠকে বসতে চলেছে কংগ্রেসের কার্যকরী কমিটি ও ইউপিএ সমন্বয় কমিটি। তবে অন্ধ্রপ্রদেশ ভেঙে তেলেঙ্গানার পৃথক রাজ্যের তকমা পাওয়ার পথ কিছুটা এবড়োখেবড়ো। অন্ধ্রের কংগ্রেস নেতারা রাজ্য বিভাজনের বিরুদ্ধে রীতিমত বিদ্রোহ ঘোষণা করছেন।

তেলেঙ্গানা ইস্যুতে চাপে কংগ্রেস, ইস্তফা দিতে পারেন সাত সাংসদ

তেলেঙ্গানা ইস্যুতে প্রবল চাপে কংগ্রেস। তেলেঙ্গানা অঞ্চলের সাত জনকংগ্রেস সাংসদ ইস্তফা দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন। শুধু তা-ই নয়, আজই তাঁরা সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর কাছে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দেবেনবলেও হুমকি দিয়ে রেখেছেন। এই সাত জন সাংসদ ইস্তফা দিলে সংসদে ইউপিএ-র সংখ্যাগরিষ্ঠতায় প্রভাব পড়বে। রাজ্যেও বেশ কয়েকজন বিধায়ক ও মন্ত্রী ইস্তফা দিতে পারেন। আশঙ্কা সত্যি হলে সে ক্ষেত্রে অন্ধ্রপ্রদেশে কংগ্রেস সরকার সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে।

পৃথক তেলেঙ্গানার দাবিতে সিদ্ধান্ত পিছোল

পৃথক তেলেঙ্গানা রাজ্যের দাবি নিয়ে সিদ্ধান্ত ফের পিছোল। বিষয়টি নিয়ে আরও সময় এবং আলোচনা করা প্রয়োজন বলে জানালেন সুশীলকুমার শিন্ডে। গত ২৮ ডিসেম্বরই একমাসের মধ্যে তেলেঙ্গানা প্রশ্নে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।