ফেসবুক গ্রেফতারের জেরে সাসপেন্ড দুই অফিসার, প্রতিবাদে বনধ শিবসেনার

মহারাষ্ট্রের ফেসবুক কান্ডে নয়া মোড়। বাল থাকরের মৃত্যুর পরের দিন ফেসবুকে করা মন্তব্যের জেরে গ্রেফতার হতে

হয়েছিল মুম্বইয়ের দুই তরুণিকে। আজ এই গ্রেফতার কান্ডে নিযুক্ত দুই পুলিস অফিসারকে সাময়িক নির্বাসনে পাঠাল

মহারাষ্ট্র সরকার। এই নির্বাসনের মাধ্যমে পক্ষান্তরে সরকার শিবসেনা আর মুম্বই পুলিসকে কড়া বার্তা দিল বলেই ম্নে

করছে বিশেষজ্ঞ মহল। অন্যদিকে এই দুই অফিসারকে নির্বাসনের প্রতিবাদে শিবসেনা কাল মহারাষ্ট্রের পালঘর জেলায়

বনধের ডাক দিয়েছে।

ফেসবুকে ঠাকরে পোস্ট, ভাঙচুর চালানোর অপরাধে গ্রেফতার ৯

বাল ঠাকরেকে নিয়ে ফেসবুকে মন্তব্য করায় শাহিন দাধার আত্নীয়ের ক্লিনিকে ভাঙচুর চালানোর অপরাধে পালগর থেকে ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে মহারাষ্ট্র পুলিস। তবে এঁরা সকলেই শিব সৈনিক তা এখনও স্পষ্ট নয়। অন্যদিকে, থানে জেলার শিব সেনা প্রধান প্রভাকর রাউল শাহীনকে গ্রেফতারের ঘটনাকে সমর্থন করে বলেন, "বালাসাহেব ঠাকরে আমাদের ঈশ্বর। আমরা কোনও মতেই তাঁর অপমান সহ্য করব না। কোনও শিব সৈনিক এবং কোনও মারাঠি চুপ করে বসে থাকবে না। ফেসবুকে কমেন্টের পিছনে কে ছিল তা পুলিস জানত। তাকে গ্রেফতার করে সঠিক কাজ করেছে পুলিস।" গতকালই শাহীন ধাধার `ফেসবুকে` মন্তব্য করার অপরাধে গ্রেফতার করাকে ঘিরে বিতর্কের ঝড় উঠেছিল বিভিন্ন মহলে। প্রভাকর রাউলের মন্তব্য সেই বিতর্কেই আরও উস্কে দিল বলে মনে করা হচ্ছে।

ঠাকরের মৃত্যুতে বন্‌ধ নিয়ে ফেসবুকে প্রশ্ন তুলে গ্রেফতার দুই তরুণী

বাল ঠাকরের মৃত্যুতে মুম্বই স্তব্ধ হয়ে যাওয়ার যৌক্তিকতা নিয়ে ফেসবুকে প্রশ্ন করায় ২১ বছরের এক তরুণীকে গ্রেফতার করল মুম্বই পুলিস। এখানেই শেষ নয়। ঐ তরুণীর `পোস্ট`কে `লাইক` করার জন্য গ্রেফতার করা হয় তাঁর বান্ধবী রেনুকেও। থানের বাসিন্দা ২১ বছরের শাহিন ধাধা ফেসবুকে তাঁর স্ট্যাটাসে লেখেন, "ঠাকরের মতো ব্যক্তিরা প্রতিদিন পৃথিবীতে জন্ম নেন এবং মারা যান এবং এ নিয়ে বন্‌ধ পালন করা অর্থহীন।" তাঁর এই `স্টেটাস` `লাইক করেন তাঁর বান্ধবী। এই `অপরাধে` ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯৫-র এ ধারায় ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার অপরাধে এবং ২০০ সালের তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৬৪-র এ ধারায় তাঁদের গ্রেফতার করা হয়। যদিও গ্রেফতার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ১৫ হাজার টাকা জামিনের বিনিময় মুক্তি পান দুজনেই।

প্রয়াত বালাসাহেব ঠাকরে (১৯২৬-২০১২)

উত্থান পতন চলছিল বেশ কিছুদিন ধরেই। তাঁর শারীরিক অবনতিতে মূহ্যমান হয়ে পড়ে গোটা মুম্বই। গত বুধবার রাত থেকে শারীরিক অবস্থা চরম সঙ্কটজনক হয়ে পরে। শনিবার দুপুর সাড়ে তিনটেয় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন 'মারাঠি অস্মিতা'র প্রতিভূ, শিবসেনা প্রধান বালাসাহেব কেশব ঠাকরে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় মুম্বইয়ের লীলাবতী হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন শিবসেনা সুপ্রিমো। সর্বক্ষণ তাঁর ওপর নজর রাখছিলেন মেডিক্যাল বোর্ডের চিকিত্সকরা। কিন্তু চিকিত্সায় তেমন সাড়া না মেলায় তাঁকে বাসভবন মাতুশ্রীতে নিয়ে যান আত্মীয়-পরিজনেরা।

বালাসাহেবের মৃত্যুতে বলিউডের শোকাবার্তা

দীর্ঘ অসুস্থতার পর আজ বিকেল সাড়ে তিনটেয় মাতুশ্রীতে মারা গেলেন মারাঠি `গড ফাদার` বাল ঠাকরে। তাঁর মৃত্যুতে মূহ্যমান মুম্বইয়ের চলচ্চিত্র মহল। সংবাদ মাধ্যমে শোক জ্ঞাপনের পাশাপাশি টুইটার জুড়ে ছড়িয়ে পরেছে সেলিব্রিটিদের শোক বার্তা।

ঠাকরের মৃত্যুতে বাণিজ্যনগরী আজ বিষাদনগরী

একটা মৃত্যুর আবেগ আর শোকে থমকে গেল মুম্বই। আজ দুপুরে শিবসেনা প্রধান বালা সাহেবের মৃত্যুর পর মারাঠি আবেগের কাছে হার মানল সব ব্যস্ততা, বেঁচে থাকার দশটা-পাঁচটার লড়াই। দুপুর সাড়ে তিনটেয় বাল ঠাকরের মৃত্যুর পর মুম্বইয়ের ঘড়ি যেন থেমে গেল। সব রাস্তা গিয়ে মিশল মাতুশ্রীর সামনে। আম মুম্বইকরদের চোখের জলে ভিজে গেল রাস্তা। আর পাঁচটা দিনের কাছে আজকের এই শোকের দিনটা সব কিছুতেই যেন আলাদা হয়ে থাকল। স্বার্থপর বদনাম ঘুচিয়ে মুম্বই আজ বিষাদ নগরীতে পরিণত হল।

সেনা-প্রধান সঙ্কটজনক, মূহ্যমান মুম্বই

মারাঠা সমাজের `বেতাজ বাদশা` সঙ্কটজনক, এই খবর ছড়িয়ে পড়তে বুধবার রাতেই তাঁকে দেখতে গিয়েছিলেন আমিতাভ বচ্চন। বৃহস্পতিবার দুপুরেই বাবা সেলিম খান ও ভাই আরবাজের সঙ্গে মাতশ্রীতে উপস্থিত সলমন খান। অভিনেতা তথা পরিচালক মহেশ মঞ্জরেকর, মধুর ভান্ডরকর, নানা পাটেকর, বাপি লাহিড়ি, শিল্পপতি রাহুল বাজাজ, বেনুগোপাল ধুত, বিজেপি সভাপতি নিতিন গড়করি, মহারাষ্ট্র বিধান পরিষদের বিরোধী দলনেতা বিনোদ তাওড়ে সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টবর্গ তাঁকে দেখতে উপস্থিত হন।

শিবসেনা প্রধানের শারীরিক অবস্থার অবনতি

শিবসেনা প্রধান বালাসাহেব ঠাকরের শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক। মুম্বইয়ের বান্দ্রায় তাঁর বাসভবন মাতশ্রীতেই চলছে চিকিত্সা। একটি মেডিক্যাল বোর্ড শিবসেনা

প্রধানের চিকিত্সা করছে। আপাতত লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে বাল ঠাকরেকে। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে মুম্বইয়ের লীলাবতী হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন বালাসাহেব

ঠাকরে। বুধবারই তাঁকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। তারপর থেকেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে।

গুরুতর অসুস্থ বাল ঠাকরে, রাজের প্রত্যাবর্তন জল্পনা

কথায় বলে যথার্থ বন্ধু সে, যে বিপদকালে বৈরিতা ভুলে পাশে এসে দাঁড়ায়। এমনই ইঙ্গিতপূর্ণ নৈকট্য জল্পনা বাড়াচ্ছে মহারাষ্ট্রের রাজ্য রাজনীতিতে। বাল ঠাকরের শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতির ঘটনাটা যুযুধান দুই শিবিরকে এক করে দেওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। তাঁকে দেখতে ছুটে গিয়েছেন মহারাষ্ট্র নবনির্মান সেনা প্রধান রাজ ঠাকরেও। সেই থেকেই শুরু হয়েছে জল্পনা।

ঠাকরে উবাচ!

প্রত্যাশিতভাবেই ওয়াংখেড়ে কাণ্ড নিয়ে সরব হলেন শিবসেনা সুপ্রিমো বাল ঠাকরে। ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আজীবনের জন্য শাহরুখ খানের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা উচিত ছিল বলে মন্তব্য করেছেন বাল ঠাকরে।