দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ

দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ। চক্রান্তের অভিযোগ নির্যাতিতার বান্ধবীর মায়ের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, সাতশ টাকা বিনিময়ে মদ্যপ চার যুবকের হাতে নির্যাতিতাকে তুলে দেয় বান্ধবীর মা। গ্রেফতার করা হয়েছে  ওই মহিলা ও চার যুবককে। মেয়ের বান্ধবী। খুবই পরিচিত। অভিযোগ, মাত্র সাতশ টাকার জন্য তাকেই চার মদ্যপ যুবকের ফুর্তির জন্য তুলে দেয় বান্ধবীর মা। বালুরঘাট থানায় এমনই অভিযোগ জানিয়েছে নির্যাতিতার পরিবার।  অভিযুক্ত  চার যুবক ও নির্যাতিতার বন্ধবীর মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। ঘটনা সাতই জানুযারির। বাড়িতে মেয়ে ফিরছে না। পাড়ায় খোঁজাখুঁজিতে না মেলায় থানায় খবর দেয় নির্যাতিতার পরিবার। আটই জানুয়ারি সকালে বালুরঘাটের শান্তিময় ঘোষ কলোনি থেকে বেহুঁশ অবস্থায় নবম শ্রেণির কিশোরীকে  উদ্ধার করে  পুলিস।

যাত্রা শুনতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার বালুরঘাটের তিন কিশোরী! যাত্রা শুনতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার বালুরঘাটের তিন কিশোরী!

যাত্রা শুনতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার বালুরঘাটের তিন কিশোরী। অভিযোগ, সালিশি সভা ডেকে ঘটনা মিটিয়ে নিতে চাপ দেন স্থানীয় এক তৃণমূল নেতা। অপমানে, লজ্জায় আত্মঘাতী এক কিশোরী। বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা আরেক কিশোরীর। তৃণমূল অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এগারোই ডিসেম্বর রাতে চৌমহনী খেলার মাঠে যাত্রার আসর বসে। তিন বান্ধবী যাত্রা শুনতে যায়। যাত্রা শুরু হওয়ার আগেই গ্রামেরই তিন যুবক তাদের জোর করে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ। ফাঁকা মাঠে নিয়ে গিয়ে তাদের ধর্ষণ করে ওই তিন যুবক আলমগির সরকার, শামিম সরকার ও আক্রম সরকার। চোখে পড়ে যায় স্থানীয় সিভিক ভলান্টিয়ার্সদের। ছজনকে নিয়ে আসা হয় স্থানীয় পুলিস ক্যাম্পে। সেখানেই হাজির হন স্থানীয় পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য ও তৃণমূল নেতা । অভিযোগ, বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। পরের দিনই অপমানে আত্মঘাতী হয় এক কিশোরী। আত্মহত্যার চেষ্টা করে আরেক নির্যাতিতা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বালুরঘাট হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ওই কিশোরীকে।

টিএমসিপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে রণক্ষেত্র বালুরঘাট ল কলেজ টিএমসিপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে রণক্ষেত্র বালুরঘাট ল কলেজ

টিএমসিপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে রণক্ষেত্র বালুরঘাট ল কলেজ। বৃহস্পতিবার দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে আহত হয়েছে দশজন ছাত্রছাত্রী।  তাঁদের বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রডের আঘাতে গুরুতর আহত ছাত্র অভিজিত্‍ সাহার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাঁকে মালদা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে।  ছাত্রীদেরও একটি ঘরে আটকে রেখে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। সংঘর্ষের সময় লাঠি, রড নিয়ে পরস্পরকে আক্রমণ করে দুপক্ষ। খবর পেয়ে কলেজে পৌছয় বিশাল পুলিস বাহিনী। বাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন DSP সৌম্যজিত বড়ুয়া। গত ছ মাসে টিএমসিপির দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে বার বার অশান্তি ছড়িয়েছে কলেজে। দায়ের করা হয়েছে দশটিরও বেশি FIR। তবে কার্যকর কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি পুলিস।

টেবিলে টেবিলে ঘুরেও মিলছে না পেনশনের টাকা টেবিলে টেবিলে ঘুরেও মিলছে না পেনশনের টাকা

ব্যয়বহুল চিকিত্সার খরচ পেতে বার বার কড়া নাড়ছেন সরকারি দফতরে। ঘুরছেন এক টেবিল থেকে আরেক টেবিল। জমা দিয়েছেন প্রয়োজনীয় নথি। কিন্তু কোনও হেলদোল নেই সরকারি দফতরের। ৬ বছর কেটে গেলেও এক পয়সাও পাননি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মী অবিনাশচন্দ্র দত্ত। বালুরঘাটের অগ্নিশিখা পাড়ার বাসিন্দা। অবসর নেন ১৯৯১ সালে। ২০০৯ সালে ধরা পড়ে হৃদযন্ত্রে গোলযোগ। কলকাতায় সরকারি হাসপাতালে হয় ওপেন হার্ট সার্জারি। খরচ হয় ১ লক্ষ ২৮ হাজার টাকা। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী তাঁর চিকিত্সা বাবদ খরচের টাকা সরকারের কাছ থেকেই পাওয়ার কথা। কিন্তু সরকারি দফতরে ঘুরে ঘুরেও মেলেনি টাকা।