খুনই করা হয়েছে ভবানীপুরের বৃদ্ধা সুনন্দা গাঙ্গুলিকে: ফরেনসিক রিপোর্টে প্রমাণ

খুনই করা হয়েছে ভবানীপুরের বৃদ্ধা সুনন্দা গাঙ্গুলিকে: ফরেনসিক রিপোর্টে প্রমাণ

খুনই করা হয়েছে ভবানীপুরের বৃদ্ধা সুনন্দা গাঙ্গুলিকে। দুর্ঘটনাজনিত কারণে পড়ে গিয়ে তাঁর মৃত্যু হয়নি। ঘটনাস্থল থেকে সংগ্রহ করা নমুনা পরীক্ষা করে জানিয়ে দিলেন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। এই ঘটনায় খুনের মামলা রুজু করেছে পুলিস।

অধীরের ইচ্ছায় মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী হিসাবে উঠে এল দীপা দাশমুন্সির নাম

অধীরের ইচ্ছায় মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী হিসাবে উঠে এল দীপা দাশমুন্সির নাম

অধীর চৌধুরীর ইচ্ছায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে প্রার্থী হিসাবে উঠে এল দীপা দাশমুন্সির নাম। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে হাইকমান্ড। তবে, দীপা নিজে কি শেষপর্যন্ত এই কঠিন চ্যালেঞ্জ নিতে রাজি হবেন? প্রদেশ কংগ্রেসে কৌতুহল তুঙ্গে।

স্পেনের মিউজিয়ামে স্থান পাচ্ছে ভবানীপুর অবসর ক্লাবের দুর্গাপ্রতিমা

স্পেনের মিউজিয়ামে স্থান পাচ্ছে ভবানীপুর অবসর ক্লাবের দুর্গাপ্রতিমা

স্পেনের বিখ্যাত মিউজিয়ামে স্থান পেতে চলেছে ভবানীপুর অবসর ক্লাবের দুর্গাপ্রতিমা। তমলুকের বাসিন্দা শিল্পী গৌরাঙ্গ কুইল্যার এই বিরল সৃষ্টি রাখা হবে বিশিষ্ট চিত্রকর পাবলো পিকাসোর আঁকা ছবির পাশেই। শিল্পীর অনন্য সৃষ্টিকে সংরক্ষণ করার প্রয়াস শুরু হয়েছে বেশ কয়েকবছর ধরেই। তবে তা একেবারে বিদেশের মিউজিয়ামে জায়গা পাবে তা বোধহয় ভাবেননি কেউই। ভবানীপুর অবসর ক্লাবের দুর্গাপ্রতিমা এই বিরল কৃতিত্ব অর্জন করেছে। বিশ্বের প্রথম সারির মিউজিয়াম স্পেনের রেনে সোফিয়ায় রাখা হবে এই দুর্গাপ্রতিমাকে।  

ভবানীপুরে বৃদ্ধা হত্যার জট খুলল

খুলল ভবানীপুর বৃদ্ধা হত্যার জট। পরিচারিকার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে দেড় লক্ষ টাকা টিপ সই নকল করে তুলেছিল দেবযানী মাঝি। জানাজানি হতেই প্রতারণার টাকা ফেরত দিতেই মাসি শাশুড়ি দীপালি সরকারকে খুন করে সে। বৃহস্পতিবার দেবযানীকে আদালতে তোলা হলে ২ মে পর্যন্ত পুলিস হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়।

বিড়াল হত্যার দায় হাজতবাস

বিড়াল হত্যার দায়ে শ্রীঘরে যেতে হল এক ব্যক্তিকে। ধৃতের নাম সন্তোষ গুরুং। গত তেরোই অগাস্ট সন্তোষ গুরুংয়ের বিরুদ্ধে ভবানীপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন এক মহিলা। হরিশ মুখার্জি রোডে বিড়ালটিকে হত্যা করেন সন্তোষ গুরুং।

শ্লীলতাহানির দায়ে গ্রেফতার মদন মিত্রর শ্যালক

শ্লীলতাহানি ও পুলিসকে মারধরের অভিযোগে গ্রেফতার করা হল পরিবহণ মন্ত্রী মদন মিত্রের শ্যালকের ছেলে সৌম্য ব্যানার্জিকে। অভিযোগ, মদ্যপ অবস্থায় গতকাল রাতে যদুবাবুর বাজারের কাছে এক মহিলার শ্লীলতাহানি করে সৌম্য ও তার সঙ্গীরা। স্থানীয় এক ক্লাব ঘরে ভাঙচুরও চালায় তারা। মূল অভিযুক্ত সৌম্য ব্যানার্জিকে তিরিশ তারিখ পর্যন্ত পুলিসি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। পিসেমশাই পরিবহন মন্ত্রী মদন মিত্র। তাই ভবানীপুরের কাঁসারিপাড়া এলাকায় আলাদা দাপট  সৌম্য ব্যানার্জির। অন্তত তেমনটাই অভিযোগ এলাকাবাসীর। 

ভবানীপুরে দিনে দুপুরে দুস্কৃতী হামলার শিকার দোকানী

ভবানীপুর থানার প্রায় লাগোয়া সোনার দোকান। দিনেদুপুরে সেখানেই হামলা চালাল সশস্ত্র দুষ্কৃতী। ক্যাটলগ দেখার সুযোগ নিয়ে ওই দুষ্কৃতী অতর্কিতে হামলা চালায় দোকানমালিকের ওপর। বার বার ধারাল অস্ত্রের আঘাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন দোকানমালিক। পরে অবশ্য পালিয়ে যেতে সমর্থ হয় সে। ভবানীপুর থানার এত কাছে, দিনেদুপুরে দুষ্কৃতী-হামলার এই ঘটনায় আতঙ্কিত দোকানমালিকেরা।

ব্যাঙ্কে গুলি চালনার ঘটনায় ধোঁয়াশা

ভবানীপুরে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের গুলিকাণ্ডে ধোঁয়াশা কিছুতেই কাটছে না। শুধুমাত্র উত্যক্ত করার জন্য আক্রোশের বশে সুনীল সরকার ব্যাঙ্কের ক্যাশিয়ার এবং অন্য নিরাপত্তারক্ষীকে যে খুন করতে পারে, তা মানতে নারাজ তদন্তকারী অফিসারেরা। ঘটনার পিছনে অন্য কোনও কারণ থাকতে পারে, এমনই অনুমান তাঁদের।   ভবানীপুরের ব্যাঙ্কে গুলিকাণ্ডে ধৃত নিরাপত্তারক্ষী সুনীল সরকার পুলিসকে জানায়, দীর্ঘদিন ধরেই তাঁকে উত্যক্ত করতেন ব্যাঙ্কের ক্যাশিয়ার মানব বসু  এবং তাঁর সহকর্মী অন্য নিরাপত্তাকর্মী রাধাকৃষ্ণ মণ্ডল।

ভবানীপুরে ব্যাঙ্কে গুলি, নিহত ২

ব্যাঙ্কের নিরাপত্তাকর্মীর গুলিতে নিহত হলেন ব্যাঙ্কেরই একজন কর্মী ও আরেক নিরাপত্তাকর্মী। দিনে দুপুরে ঘটনাটি

ঘটেছে ভবানীপুরের একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে। দুপুর ১২টা নাগাদ ব্যাঙ্কের নিরাপত্তারক্ষী সুনীল সরকার ব্যাঙ্কের চারতলায়

গুলি করেন তাঁর সহকর্মী রাধাকৃষ্ণ মণ্ডলকে। তারপর নীচে নেমে গুলি করেন ক্যাশিয়ার মানব বসুকে। গুলিবিদ্ধ

অবস্থায় দুজনকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিত্‍সকরা তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করেন।

মোহনবাগান ছাড়ছেন ব্যারেটো

মোহনবাগানের সবুজ-মেরুন জার্সি ছেড়ে এবার ভবানীপুরের জার্সি গায়ে চাপাতে চলছেন হোসে রামিরেজ ব্যারেটো। বুধবার ভবানীপুর ক্লাব কর্তাদের সঙ্গে আলোচনা সারেন মোহনবাগানের ব্রাজিলীয় স্ট্রাইকার। শোনা যাচ্ছে ভবানীপুরে খেলার ব্যাপারে নাকি সম্মতিও জানিয়েছেন তিনি।

১ মাসেও গ্রেফতার হলনা কেউ

ভবানীপুর থানা আক্রমণের ঘটনার পর একমাস পেরিয়ে গেছে। অথচ এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিস। দোষীদের চিহ্নিত করার পরও কেন গ্রেফতার করা হল না, তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।