আজ থেকে শুরু জাঠা, গ্রামের ভোট ব্যাঙ্ক পুনরুদ্ধারে উদ্যোগী সিপিআইএম

আজ থেকে শুরু জাঠা, গ্রামের ভোট ব্যাঙ্ক পুনরুদ্ধারে উদ্যোগী সিপিআইএম

গ্রামের ভোট ব্যাঙ্ক পুনরুদ্ধারে উদ্যোগী সিপিআইএম। আর সেই লক্ষ্যে কৃষকদের নিয়ে আজ থেকে টানা পাঁচ দিন জাঠা করবেন তাঁরা। সিপিআইএমের গণসংগঠন কৃষক সভার উদ্যোগে তিরিশ হাজার গ্রামে এই জাঠা হবে। উল্লেখযোগ্য পাঁচ দিন ধরে জাঠা চলাকালীন নেতারা বিভিন্ন গ্রামে কৃষকদের বাড়িতেই থাকবেন। সেই তালিকায় রয়েছেন বিরোধী দলনেতা সূর্যকান্ত মিশ্রও। আজ বীরভূমের এক কৃষকের বাড়িতে থাকবেন তিনি। সেখান থেকে যাবেন পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরে। পাঁচ দিনের এই জাঠায় কৃষক সভা সরব হবে একশো দিনের কাজের খারাপ অবস্থা, কৃষক আত্মহত্যা ও ধানের দাম না পাওয়ার ইস্যুতে। প্রায় সাড়ে তিন দশক পরে কৃষক সভা রাজ্য জুড়ে এত বড় কর্মসূচী নিল।

কাল ত্রিপুরায় অভিষেক হচ্ছে সিপিআইএম পলিটব্যুরো এবং কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকের

এই প্রথম ত্রিপুরায় বসছে সিপিআইএম পলিটব্যুরো এবং কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক। আগামী ১৩ থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত আগরতলার ভগত্‍ সিং যুব আবাসে ওই বৈঠক হবে। এরপর ১৫ ডিসেম্বর স্বামী বিবেকানন্দ ময়দানে সমাবেশ কর্মসূচি রয়েছে। এই বৈঠকে যোগ দেবেন সীতারাম ইয়েচুরি, অচ্যুতানন্দন, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য-সহ সিপিআইএমের শীর্ষ নেতারা। এই বৈঠক এবং সমাবেশকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই গোটা আগরতলা সেজে উঠেছে লাল পতাকা, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড, তোরণদ্বারে। পাঁচ রাজ্যের ভোটের ফলাফল পর্যালোচনা, লোকসভা ভোটের রণনীতি নির্ধারণ এবং দলের প

নিশানায় কেন্দ্রীয় সরকার, বিজেপিকে নিয়ে নরম মুখ্যমন্ত্রী

হাওড়ার ভোট প্রচারের দ্বিতীয় দিনেও বিজেপি প্রসঙ্গে নরমই থাকলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাওড়ায় দুটি জনসভাতেই একের পর এক  তোপ দেগেছেন কংগ্রেস ও বামেদের বিরুদ্ধে। নিশানায় ছিল কেন্দ্রীয় সরকারও। কিন্তু বিজেপি সম্পর্কে এই নরম সুর ভবিষ্যতের কোনও জোট সমীকরণের ইঙ্গিত কিনা তা নিয়েই এখন আলোচনা রাজনৈতিক মহলে। দুহাজার নয় সাল থেকেই কংগ্রেসের সঙ্গে জোট। সেই জোটের কাঁধে ভর করেই একের পর এক নির্বাচনী বৈতরনী পার। এবার কংগ্রেসের সঙ্গে ভেস্তে গেছে জোট। আর সে কারণেই কী হাওড়া লোকসভা ভোটের আগে একটু চিন্তিত মুখ্যমন্ত্রী? নাহলে হঠাত্‍‍ করে কেন টেনে আনলেন জঙ্গিপুরের প্রসঙ্গ?