আজ শিল্পের দাবিতে বারাকপুরের সভায় বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য

আজ শিল্পের দাবিতে বারাকপুরের সভায় বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য

সিঙ্গুরের পর এবার বারাকপুর। শিল্পের দাবিতে বারাকপুরের সভায় বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। বরানগর থেকে বারাকপুর এবং কাঁচরাপাড়া থেকে বারাকপুর পর্যন্ত পদযাত্রা। পদযাত্রার শেষে বারাকপুর স্টেশনের সামনে জনসভা। বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য ছাড়াও থাকছেন গৌতম দেব, তড়িত্‍ তোপদাররা। গত দশ বছর আগেও এই বারাকপুর শিল্পাঞ্চল ছিল বামেদের সবচেয়ে শক্তিশালী ঘাঁটি। কিন্তু পালাবদলের সঙ্গে সঙ্গেই বারাকপুর শিল্পাঞ্চলে বদলে গিয়েছে পতাকার রং। গোটা অঞ্চল জুড়ে এখন তৃণমূলের একচেটিয়া দাপট। এই অঞ্চলে বারবারই উঠেছে রাজনৈতিক সন্ত্রাসের অভিযোগ। বহু বছর পর বামেদের এতবড় পদযাত্রা এবং সমাবেশের ডাক বারাকপুরের বুকে। এবারের ভোটে বামেরা শিল্পকেই যে সবচেয়ে বড় ইস্যু হিসেবে তুলে ধরতে চায়, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের সমাবেশের জন্য সিঙ্গুর অথবা বারাকপুর বেছে নেওয়া থেকেই তা স্পষ্ট। এদিন পাল্টা মিছিলের ডাক দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসও। নিউ বারাকপুর থেকে মিছিলের ডাক জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের। স্বাভাবিকভাবে একই দিনে দুই মিছিলকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ চড়ছে বারাকপুরে।

জোট ইস্যুতে সরাসরি বাম- কংগ্রেসকে বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী, পাল্টা অধীরের জোট ইস্যুতে সরাসরি বাম- কংগ্রেসকে বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী, পাল্টা অধীরের

সূর্যকান্ত-বুদ্ধদেবের জোটের আহ্বানকে তীব্র কটাক্ষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। গত কয়েকদিন ধরেই বামেদের পক্ষ থেকে কংগ্রেসকে জোটের বার্তা দেওয়া নিয়ে সরগরম বাংলার রাজনীতি। আঁচ দিল্লিতেও। এই পরিস্থিতিতেই এবার জোট ইস্যুতে সরাসরি বাম কংগ্রেসকে বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর যুক্তি জোট হয় মতাদর্শের ভিত্তিতে। তবে মতাদর্শগত ভাবে কোনও মিল নেই  সিপিএম-কংগ্রেসের। সেক্ষেত্রে ভোটের আগে বাম কংগ্রেস এক মঞ্চে এলে তা জোট নয় বরং ঘোঁট হবে। অন্যদিকে, উন্নয়নকে সামনে রেখে নির্বাচন লড়বে তৃণমূল। আমাদের প্রতিনিধিকে একান্তে বলেন মমতা।  

 প্লেনাম থেকে দলীয় সংগঠনের খোল নলচে বদলের ইঙ্গিত প্রকাশ কারাটের প্লেনাম থেকে দলীয় সংগঠনের খোল নলচে বদলের ইঙ্গিত প্রকাশ কারাটের

কলকাতা প্লেনাম থেকে দলীয় সংগঠনের খোল নলচে বদলের ইঙ্গিত দিলেন প্রকাশ কারাট।  মহিলা সদস্যসংখ্যা বৃদ্ধি, SC-ST    ও যুব সম্প্রদায়কে নেতৃত্বে তুলে আনার জন্য বেঁধে দেওয়া হচ্ছে নির্দিষ্ট সময়সীমা। হোলটাইমারদের ভাতা বৃদ্ধিরও ইঙ্গিত দিয়েছেন কারাট। আলোচনা চলছে তাঁদের অবসরনীতি নিয়েও।গণতান্ত্রিক কেন্দ্রিকতার ইস্যুতে, এবারের প্লেনামে, নেতৃত্বের সমালোচনা করেছেন প্রতিনিধিদের একাংশ। সে সমালোচনা কার্যত মেনে নিলেন প্রকাশ কারাট। অতীতে  দলে  মহিলাদের প্রতিনিধিত্বের সমস্যা  নিয়ে জ্যোতি বসু- সুরজিতদের তোপ দেগেছেন বৃন্দা কারাট। এখনও দলের শীর্ষস্তরে মহিলা নেত্রী সেভাবে নেই। তাই দলে মহিলা সদস্য বাড়াতে এবার সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হচ্ছে।  কর্মসূচি নেওয়া হচ্ছে তফসিলি জাতি উপজাতি ভূক্তদের নেতৃত্বে আনার ক্ষেত্রেও। দলের হোলটাইমার দের ভাতা বৃদ্ধি থেকে অবসরকালীন সুযোগ নিয়েও নতুন নীতি তৈরি হচ্ছে প্লেনামে।

ব্রিগেডে আসার পথে ভাঙরে আক্রান্ত সিপিএম সমর্থকেরা ব্রিগেডে আসার পথে ভাঙরে আক্রান্ত সিপিএম সমর্থকেরা

ব্রিগেডে আসার পথে ভাঙরে আক্রান্ত সিপিএম সমর্থকেরা। হামলার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে, বর্ধমানের মন্তেশ্বরে তৃণমূল কর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠল সিপিএমের বিরুদ্ধে। ব্রিগেডে আসার পথে ভাঙরে আক্রান্ত হলেন সিপিএম সমর্থকেরা। ভাঙরের বাকরি এলাকায় সিপিএমের জনা পঁচিশেক সমর্থক ব্রিগেডের জমায়েতে যোগ দেওয়ার জন্য  দুটি গাড়ির ব্যবস্থা করেন। কিন্তু গাড়ি পৌছতেই  সেখানে পৌছে যায়  বাহিক বাহিনী।  প্রায় পঞ্চাশ জন  দুষ্কৃতীদের দেখে গাড়ি নিয়ে চম্পট দেন চালকেরা।এই সময়ই আক্রান্ত হন সিপিএম সমর্থকেরা। মারধরে আহত হন আট জন। যদিও তাঁদের দমানো যায়নি।

সিপিএমের বঙ্গ ব্রিগেডকে স্বস্তি দিল ব্রিগেডের ভিড় সিপিএমের বঙ্গ ব্রিগেডকে স্বস্তি দিল ব্রিগেডের ভিড়

সিপিএমের বঙ্গ ব্রিগেডকে স্বস্তি দিল ব্রিগেডের ভিড়। প্লেনাম শুরুর আগে কর্মীদের স্পিরিটে মুগ্ধ দলের সর্বভারতীয় নেতৃত্বও। মাঠের উদ্দীপনা এনার্জি জোগাল মঞ্চেও। নেতাদের ভাষণে শোনা গেল পরিবর্তনের হুঙ্কার। দশ লক্ষের জমায়েত হবে। দাবি ছিল। সূর্যকান্ত মিশ্রের মান রাখলেন কর্মীরা। সকাল থেকেই ব্রিগেডমুখী কাতারে কাতারে মানুষ। সভা শুরু পরেও মিছিল ফুরলো না। তবে ব্রিগেডে সকলের জায়গা হল না। অতিকায় ময়দানে হঠাত্‍ই স্থান অকুলান। সঙ্গে আছি। মঞ্চকে আশ্বাস দিল ময়দান। মঞ্চ দিল লড়াইয়ের ডাক। ব্রিগেড অবশ্য কোনওবারই হতাশ করে না। কিন্তু, ভোটে তার প্রতিফলন কোথায়? এবার কিন্তু, আশাবাদী সিপিএম।

তৃণমূলকে হঠাতে প্রয়োজনে কংগ্রেসের সঙ্গে সমঝোতার ইঙ্গিত সিপিএমের প্লেনামে তৃণমূলকে হঠাতে প্রয়োজনে কংগ্রেসের সঙ্গে সমঝোতার ইঙ্গিত সিপিএমের প্লেনামে

তৃণমূলকে হঠাতে প্রয়োজনে কংগ্রেসের সঙ্গে সমঝোতার ইঙ্গিত দিয়েই শুরু হল সিপিএমের প্লেনাম। প্রকাশ কারাটের সামনেই বাংলার পলিটব্যুরো সদস্যরা বললেন, তৃণমূলকে হঠাতে বৃহত্তর মঞ্চের কথা। এমনকী একসময় জোট-বিরোধী সূর্যকান্তের বক্তব্যেও শোনা গেল সমঝোতার সুর। সিপিএমের ব্রিগেড সমাবেশ। বুদ্ধবাবু আওয়াজ তুললেন সামনে বড় লড়াই। বিধানসভা নির্বাচন। কর্মীদের বললনে, শুধু লড়লেই হবে না জিততে হবে। কিন্তু জয় আসবে কীভাবে? দলের মধ্যে বুদ্ধ-লাইন বলে পরিচিত ফর্মুলাকে ব্রিগেডে কর্মী সমর্থকদের সামনে হাজির করলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। যে ফর্মুলা নিয়ে এখনও বিতর্ক চলছে সিপিএমে। এরাজ্যে তৃণমূলকে হটাতে সেই বৃহত্তর জোটের কথাই শোনালেন সূর্যকান্ত মিশ্র। রবিবারের ব্রিগেডে শুরু থেকেই সুর চড়িয়ে রেখেছিলেন মহম্মদ সেলিম। প্রকাশ কারাট শিবিরের সামনেই উদাত্তকণ্ঠে দাবি তুললেন তৃণমূল-বিরোধী নয়া মঞ্চের। সিপিএমের বাংলার নেতাদের বক্তব্য, যেখানে যেমন, সেখানে তেমন রাজনৈতিক কৌশলই নিতে হবে দলকে। প্রয়োজনে দুহাজার ষোলোয় কেরালায় বামেরা লড়বে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। আর পশ্চিমবঙ্গে প্রয়োজনে সমঝোতা হবে।

আক্রমণের ধারেভারে দিনের শেষে মহম্মদ সেলিমই ম্যান অফ দ্য ম্যাচ আক্রমণের ধারেভারে দিনের শেষে মহম্মদ সেলিমই ম্যান অফ দ্য ম্যাচ

ডিসেম্বরের লাল ব্রিগেডে ঘটে গেল ভাষা বিপ্লব। মান্ধাতার আমলের স্লোগান, তত্ত্বের কচকচানি ছেড়ে চটকদারি ঢঙে শাসককে আক্রমণ সিপিএমের। সিনেমা, শায়েরি টেনে তীব্র কটাক্ষ। মমতাকে লাগাতার নিশানা করে ম্যান অফ দ্য ব্রিগেড মহম্মদ সেলিম। ফিল্মের নাম ম্যায় আজাদ হুঁ। ছবিতে এভাবেই কলেজ পড়ুয়াদের মাতিয়ে দিয়েছিলেন আজাদ অমিতাভ। তাঁর ঢঙেই রবিবার ব্রিগেড মাতালেন মহম্মদ সেলিম। এরপর আরও বড় হিট। রবিবারের ব্রিগেডে এটা নিঃসন্দেহে বড় চমক। কারণ মান্ধাতার আমলের স্লোগান আর রাজনীতির বইয়ের ভারী ভারী কথা জনসমাবেশে আওড়ানোর জন্য কম সমালোচনা শুনতে হয়নি সিপিএমকে। এবার কিন্তু সতর্ক করে দিয়েছিলেন ব্রিগেড সমাবেশের সভাপতি। নির্দেশ মতোই এদিন টি টোয়েন্টির ঝোড়ো ইনিংস খেলেছেন মহম্মদ সেলিম। চড়া সুরে আক্রমণ শানিয়েছেন একেবারে সাধারণ মানুষের ভাষায়। আক্রমণের ধারেভারে দিনের শেষে তিনিই ম্যান অফ দ্য ম্যাচ।

ব্রিগেডে কোন নেতা কী বললেন, এক নজরে ব্রিগেডে কোন নেতা কী বললেন, এক নজরে

সাম্প্রদায়িকতা ইস্যুতে মোদী-মমতাকে একসঙ্গে বিঁধলেন সিপিএম নেতা বিমান বসু। তাঁর মন্তব্য, দাদাভাই-দিদিভাই একসঙ্গে মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরির চেষ্টা করছেন। এবার আর ভোট লুঠ করে জেতা যাবে না। ব্রিগেডের ম়ঞ্চ থেকে কড়া বার্তা সিপিএম নেত্রী বৃন্দা কারাটের। তাঁর চ্যালেঞ্জ, এবার তৃণমূল পরাজিত হবেই। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে তৃণমূল সরকারকে বিঁধলেন সিপিএম নেত্রী বৃন্দা কারাট। তাঁর মন্তব্য, পালাবদলের পর নারী নির্যাতনে রাজ্যের স্থান এক নম্বরে। শুধু বাম মনস্করাই নন,তৃণমূলের বিবেকবানদেরও দলে টানতে হবে। ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে বার্তা ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের। চিটফান্ড থেকে সাম্প্রদায়িকতা সব ইস্যুতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করলেন সিপিএম নেতা মহঃ সেলিম। তাঁর মন্তব্য, চিটফান্ডের টাকা লুঠ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর দিল্লিতে মোদীভাইয়ের দ্বারস্থ হচ্ছে মমতা।আদতে তৃণমূল-বিজেপি জয়েন্ট ভেঞ্চার চলছে। শক্তি প্রদর্শন করতে নয়। তৃণমূলের জহ্লাদ বাহিনীকে চ্যালেঞ্জ জানাতেই আজকের ব্রিগেড সমাবেশ। ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন সিপিএম নেতা মহঃ সেলিম।