পাথর দিয়ে মাথা থেতলে ছুরি দিয়ে খুনের চেষ্টা চারবছরের শিশুকন্যাকে, ফেরার অভিযুক্ত  পাথর দিয়ে মাথা থেতলে ছুরি দিয়ে খুনের চেষ্টা চারবছরের শিশুকন্যাকে, ফেরার অভিযুক্ত

দিল্লিতে ফের নারকীয় অত্যাচারের শিকার শিশু। এবার ঘটনা ঔখোলা এলাকায়। প্রতিবেশীর লালসার শিকার হল চারবছরের শিশুকন্যা। শুধু তাই নয় নির্মম যৌন নির্যাতনের পর  খুনেরও চেষ্টা করা হয় শিশুটিকে। জানা গেছে, সকালে স্কুলে গিয়েছিল শিশুটি। দুপুর একটা নাগাদ নিজেকে আত্মীয় পরিচয় দিয়ে শিশুটিকে নিয়ে যায় তার প্রতিবেশী। স্কুলের পিছনে ঝোপে নিয়ে গিয়ে নির্মম অত্যাচার চালানো হয় শিশুটির ওপর। পরে খুনের চেষ্টা করা হয় শিশুটিকে। প্রথমে মাথায় পাথরের আঘতা পরে ছুরিও মারা হয়। মৃত ভেবেই শশুটিকে জঙ্গলে ফেলে রেখে পালায় বছর পঁয়তাল্লিশের প্রতিবেশী।  ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করে শিশুটিকে ভর্তি করা হয়েছে  এইমস  হাসপাতালে। ঘটনার পর থেকেই ফেরার অভিযুক্ত প্রতিবেশী।  ঘটনার জেরে ফের একবার প্রশ্নের মুখে দিল্লির পুলিস প্রশাসন। প্রশ্ন উঠেছে রাজধানীতে মেয়েদের নিরাপত্তা ইস্যুতেও।

রাহুলের মাস্টারস্ট্রোকে রাজধানীর 'জঞ্জাল রাজনীতি'-তে ব্যাকফুটে আপ-বিজেপি রাহুলের মাস্টারস্ট্রোকে রাজধানীর 'জঞ্জাল রাজনীতি'-তে ব্যাকফুটে আপ-বিজেপি

জঞ্জাল রাজনীতিতে রাজধানী  জমজমাট । রাহুল  গান্ধী শুক্রবার পুরসভার বেতনহীন সাফাইকর্মীদের পাশে দাঁড়ানোর পরই টনক নড়ে বিরোধীদের। শনিবার সাতসকালেই ঝাড়ু হাতে সাফাইয়ে নেমে পড়েন আপ ও বিজেপির নেতারা। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। রাহুলকে ঘিরেই দানা বাঁধল সাফাইকর্মীদের জোট। আর রাহুলের সেই মাস্টারস্ট্রোকেই আপাতত বিরোধীরা নকআউট।দু-মাস ধরে বেতন না পেয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলেন দিল্লির বারো হাজার সাফাই কর্মী। দশ দিন জঞ্জাল সাফ না হওয়ায় সমস্যায় পড়েন সাধারণ মানুষ। সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ যখন তুঙ্গে, তখনই শুক্রবার পূর্ব দিল্লিতে সাফাই কর্মচারিদের ধর্নায় যোগ দেন রাহুল গান্ধী।

কেজরিওয়াল-নাজিব জঙ্গ সংঘাত, দিল্লি বিধানসভায় লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে ইমপিচ করার প্রস্তাব কেজরিওয়াল-নাজিব জঙ্গ সংঘাত, দিল্লি বিধানসভায় লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে ইমপিচ করার প্রস্তাব

দিল্লিতে আপের সরকার ও লেফটেন্যান্ট গভর্নর নাজিব জঙ্গের সংঘাতে নয়া মোড়। দিল্লির সাংবিধানিক প্রধান লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে ইমপিচ করার ক্ষমতা দাবি করে বিধানসভায় প্রস্তাব পেশ করল কেজরীওয়ালের সরকার। গতকাল দিল্লি বিধানসভার জরুরি অধিবেশনের সূচনায় পেশ করা প্রস্তাবে বলা হয়েছে, সংবিধানে সংসদ মারফত রাষ্ট্রপতিকে অপসারণের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। একইভাবে লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে ইমপিচ করার ক্ষমতা রাজ্য বিধানসভার হাতে তুলে দিতে সংবিধান সংশোধনের দাবি তুলেছে আপ সরকার। দিল্লির মুখ্যসচিব হিসাবে শকুন্তলা গ্যামলিনের নিয়োগ নিয়ে নাজিব জঙ্গের সঙ্গে কেজরীওয়াল  সরকারের  বিরোধ ইতিমধ্যেই চরমে উঠেছে। তারই জেরে আপ সরকারের ওই প্রস্তাব তাত্‍পর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।