অফিসে এই স্বভাব আপনারও আছে নাকি?

অফিসে এই স্বভাব আপনারও আছে নাকি?

রমেশ অফিসে কাজের ফাঁক একবার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টটা চেক করে নিলেন। প্রতীক্ষাও একই রকমভাবে কাজের ফাঁকেই নিজের টুইটার ও ফেসবুক অ্যাকাউন্টটা দেখে নেন মাঝেমধ্যেই। তবে তা অবশ্যই বসের চোখ এড়িয়ে।

 সরকারী কর্মচারীরা কী তবে বর্ধিত বেতনের ৫০ শতাংশই হাতে পাবেন?

সরকারী কর্মচারীরা কী তবে বর্ধিত বেতনের ৫০ শতাংশই হাতে পাবেন?

কেন্দ্রীয় সরকার তাঁর উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মাচারিদেরকে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কগুলোতে আরও বেশি পরিমান অর্থ সঞ্চয়ে উত্‍সাহিত করার উপর জোর দিচ্ছে। সেইজন্য সেকশন অফিসার থেকে আর উচ্চপদস্থ কর্মাচারীদের বেতন

অব্যাহত দুয়োরানি দশা, কেন্দ্রীয় সরাকারি কর্মীদের থেকে ৬১% কম ডিএ পাচ্ছেন রাজ্যের পরিবহণ কর্মীরা

অব্যাহত দুয়োরানি দশা, কেন্দ্রীয় সরাকারি কর্মীদের থেকে ৬১% কম ডিএ পাচ্ছেন রাজ্যের পরিবহণ কর্মীরা

কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের থেকে  রাজ্য সরকারি কর্মীরা চুয়ান্ন শতাংশ ডিএ কম পাচ্ছেন। সরকারি পরিবহণ কর্মীদের অবস্থা আরও খারাপ। তাঁদের ক্ষেত্রে ফারাকটা একষট্টি শতাংশ। জানুয়ারি মাসে রাজ্য সরকার সাত শতাংশ

ছয় শতাংশ ডিএ বাড়ছে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের, রাজ্য সরকারী কর্মচারীদের ক্ষোভ আরও বাড়ল

ছয় শতাংশ ডিএ বাড়ছে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের, রাজ্য সরকারী কর্মচারীদের ক্ষোভ আরও বাড়ল

ফের কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মচারীদের জন্য সুখবর। আরও একপ্রস্থ বাড়ল ডিএ। ৬ শতাংশ হারে ডিএ বা মহার্ঘ ভাতা বাড়ল। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেওয়ায় কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মচারীদের ডিএ ১১৩ থেকে বেড়ে হবে

সঙ্কট কাটাতে পরিষেবায় কোপ, বন্ধ ১৮ টি রুট

রাজ্যে নতুন সরকার ক্ষমতায় আসার পর শিল্প পুনর্গঠন মন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জির আশ্বাস ছিল-রুগ্ন রাষ্ট্রায়ত্ত্ব পরিবহণ সংস্থা থেকে কোনও কর্মী ছাঁটাই হবেনা। প্রতিশ্রুতি ছিল, সবকটি সংস্থাকে ঢেলে সাজিয়ে

পথে নামল সিএসটিসি কর্মী সংগঠন

ভুতল পরিবহন, সিটিসি সহ রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহণ সংস্থার কর্মীদের অক্টোবর মাস থেকে বেতন হয়নি। বন্ধ পেনশন। বকেয়া বেতন এবং পেনশনের দাবিতে এবার পথে নামল সিএসটিসি কর্মী সংগঠন এবং ক্যালকাটা ট্রামওয়েজ ওয়ার্কাস

সাত তারিখেও হল না বেতন

মাসের সাত তারিখেও বেতন পাননি রাজ্যের আঠেরো হাজার পরিবহণ কর্মী। বরাবরই তাদের বেতনের আশি শতাংশ দেয় রাজ্য সরকার। বাকি কুড়ি শতাংশ স্বশাসিত পরিবহণ সংস্থাগুলি দেয়।

বেতন না পেয়ে বিক্ষোভ

বেতন না পেয়ে প্রধান কার্যালয়ে বিক্ষোভ দেখান ট্রাম কোম্পানীর কর্মীরা। অক্টোবর মাসের বেতন এখনও পাননি তাঁরা। গত কয়েক মাস ধরেই বেতন অনিয়মিত হয়ে পড়েছে বলে অভিযোগ।