দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ

দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ

দক্ষিণ দিনাজপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়িতে আটকে রেখে গণধর্ষণ। চক্রান্তের অভিযোগ নির্যাতিতার বান্ধবীর মায়ের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, সাতশ টাকা বিনিময়ে মদ্যপ চার যুবকের হাতে নির্যাতিতাকে তুলে দেয় বান্ধবীর মা। গ্রেফতার করা হয়েছে  ওই মহিলা ও চার যুবককে। মেয়ের বান্ধবী। খুবই পরিচিত। অভিযোগ, মাত্র সাতশ টাকার জন্য তাকেই চার মদ্যপ যুবকের ফুর্তির জন্য তুলে দেয় বান্ধবীর মা। বালুরঘাট থানায় এমনই অভিযোগ জানিয়েছে নির্যাতিতার পরিবার।  অভিযুক্ত  চার যুবক ও নির্যাতিতার বন্ধবীর মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। ঘটনা সাতই জানুযারির। বাড়িতে মেয়ে ফিরছে না। পাড়ায় খোঁজাখুঁজিতে না মেলায় থানায় খবর দেয় নির্যাতিতার পরিবার। আটই জানুয়ারি সকালে বালুরঘাটের শান্তিময় ঘোষ কলোনি থেকে বেহুঁশ অবস্থায় নবম শ্রেণির কিশোরীকে  উদ্ধার করে  পুলিস।

গণধর্ষণের অভিযোগ সালিশি সভায় মিটিয়ে নেওয়ার পরামর্শ, কাঠগড়ায় গাজোল থানা গণধর্ষণের অভিযোগ সালিশি সভায় মিটিয়ে নেওয়ার পরামর্শ, কাঠগড়ায় গাজোল থানা

গণধর্ষণের অভিযোগ না নিয়ে সালিশি সভায় বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার পরামর্শ। কাঠগড়ায় মালদহের গাজোল থানা। অভিযোগ, সাড়া মেলেনি জেলার পদস্থ কর্তাদের কাছ থেকেও। শেষ পর্যন্ত জেলা  বার অ্যাসোসিয়েশনের দ্বারস্থ হন  নির্যাতিতা।  ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পুলিস সুপার।স্বামী কর্মসূত্রে বাইরে থাকায় মাকে নিয়ে বাড়িতে একাই থাকতেন কৃষ্ণপুর গোয়ালপাড়ার বাসিন্দা ওই মহিলা। দশই মে ছয় দুষ্কৃতী  চড়াও হয়তাঁর বাড়িতে। অভিযোগ, এরপর মায়ের গলায় ধারাল অস্ত্র ঠেকিয়ে পাশের ধানক্ষেতে নিয়ে গিয়ে মহিলাকে ধর্ষণ করে চার দুষ্কৃতী।