পাঁচ বছরের শিশুর মাথায় বন্দুক ধরে গল্ফগ্রিনে অবাধি ডাকাতি দুষ্কৃতীদের

পাঁচ বছরের শিশুর মাথায় বন্দুক ধরে গল্ফগ্রিনে অবাধি ডাকাতি দুষ্কৃতীদের

পাঁচ বছরের শিশুর মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে লুঠপাট চালাল দুষ্কৃতীরা। এঘটনা ঘটেছে বুধবার রাতে দক্ষিণ কলকাতার গল্ফ গ্রিনএলাকায়।  বুধবার মাঝরাতে  গল্ফগ্রিনের  অভিজাত এলাকা উদয়শঙ্কর সরণীর একটি বাড়িতে হানা দেয় ডাকাত দল।  বাড়ির মালিক পেশায় চাটার্ড ইঞ্জিনিয়ার। পিছনের গ্রিল কেটে বাড়িতে ঢোকে সাত-আটজন সশস্ত্র দুষ্কৃতী। এরপর অবাধে লুঠপাট চালায় তারা। লুঠ হয়েছে নগদ লক্ষাধিক টাকা ও সোনার গয়না। আজ যাদবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন গৃহকর্তা। এরপরই যাদবপুর থানা ও কলকাতা পুলিসের ডাকাতি দমন শাখার অফিসাররা ওই বাড়িতে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছেন। 

ভাঙের হোলি, হোলির ভাঙ

রঙের উত্‍সব আর উত্‍সবের পানীয়। পানীয়ের রঙ দুধ সাদা। লোক প্রচলিত এই পানীয়ের নাম ভাঙ। দোলের সঙ্গে যেমন জড়িয়ে আছে রঙ, তেমনই ভাঙ। ভাঙ ছাড়া কি হোলি হয়? নিন্দুকেরা অবশ্য মুখ বেঁকান। তা হোক। নিন্দুকদের মুখে ঝামা ঘষে দিয়ে গল্ফগ্রিন ফেস ওয়ানে দিনভর চলল ভাঙ উৎসব। কড়া সতর্কতা নিয়ে রীতিমতো `সেফ` রেখে তৈরি হয়েছে দুধসাদা এই পানীয়।

বিচারের আশায়...

একত্রিশে ডিসেম্বরের রাত। সময় নাচ-গান, হই-হুল্লোড়ের মধ্যে বর্ষবরণের। আলোর রোশনাইয়ে সেজে ওঠে

গোটা বিশ্ব। কিন্তু অনিমা দত্তের জীবন থেকে সব আলো কেড়ে নিয়েছে এই একটি তারিখ। ঠিক এক বছর আগে

এই দিনেই একমাত্র ছেলেকে হারিয়েছিলেন অনিমাদেবী। সাউথ সিটি আবাসন চত্বরে মিলেছিল কৌশিক দত্তের

দেহ। অনিমা দেবীর অভিযোগ, ছেলেকে খুন করা হয়। বিচারের আশায় থানা-পুলিস সবই করেছেন। কিন্তু নিট

ফল শূন্য। ষাটোর্ধ্ব এই বৃদ্ধা তাই ক্লান্ত। কিন্তু হতাশ নন। আজও তাঁর দাবি একটাই। ছেলের মৃত্যুর বিচার হোক।

বাসিন্দাদের উদোগ্যে বন্ধ হল ঝিল ভরাট

শহর কলকাতায় প্রোমোটারদের দৌরাত্ম্যে ভরাট হয়ে যাচ্ছে একের এক জলাভূমি। একই পরিণতির দিকে এগোচ্ছিল

বিক্রমগড় ঝিল। সাতাশি নম্বর প্রিন্স গোলাম হুসেন শাহ রোডে তিরিশ কাঠা জমি নিয়ে বিক্রমগড় ঝিল। এই অবস্থায়

পরিবেশ বাঁচাতে নজিরবিহীন ভাবে এগিয়ে এসেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

কলকাতায় ডেঙ্গিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩১

আরও এক ডেঙ্গি আক্রান্তের মৃত্যু হল কলকাতায়। মৃতের নাম ঋতুপর্ণা বিশ্বাস। তিনি গল্ফগ্রিনের বাসিন্দা। শুক্রবার সকালে যোধপুর পার্ক নার্সিংহোমে মৃত্যু হয়েছে ঋতুপর্মা বিশ্বাসের। বৃহস্পতিবারই নার্সিংহোমে ভর্তি হন তিনি। এই নিয়ে কলকাতায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৩১। রাজ্যে ৪৩।