নিউইয়র্কে ২৭ সেপ্টেম্বর মোদী-হাসিনা বৈঠক নিউইয়র্কে ২৭ সেপ্টেম্বর মোদী-হাসিনা বৈঠক

ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আগামী সাতাশে সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে বসবে মোদী-হাসিনা বৈঠক।  বিদেশমন্ত্রক সূত্রে এখবর জানানো হয়েছে। এদিকে আজই ভারত সফর সেরে দেশে ফিরে গেলেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী। তাঁর উপস্থিতিতে কয়েকটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি সই হয়েছে। তবে  তিস্তার জল বন্টন ও স্থলসীমান্ত  চুক্তি নিয়ে জটিলতা কাটেনি।ভারত সফরে এসে শুক্রবার  প্রধানমন্ত্রী র সঙ্গে দেখা করেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী আবুল হাসান মহম্মদ আলি। মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান তিনি। তখনই শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করেন মোদী।  রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে যোগ দিতে এ মাসেই নিউইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই বৈঠকের মাঝেই আলোচনায় বসবেন দুই প্রধানমন্ত্রী।

ভারতের সঙ্গে পরমাণু জ্বালানি সরবরাহের চুক্তি সাক্ষর অস্ট্রেলিয়ার ভারতের সঙ্গে পরমাণু জ্বালানি সরবরাহের চুক্তি সাক্ষর অস্ট্রেলিয়ার

ভারতের পরমাণু বিদ্যুত্‍ কেন্দ্রগুলির জ্বালানি সমস্যা মেটাতে বড়সড় সাফল্য পেল মোদী সরকার। ভারতের সঙ্গে চুক্তি করল বিশ্বের তৃতীয় পরমাণু জ্বালানি সরবরাহকারী দেশ অস্ট্রেলিয়া। পরমাণু অস্ত্রপ্রসার রোধ চুক্তিতে সই না করায় এতদিন ভারতকে ইউরেনিয়াম সরবরাহে রাজি ছিল না অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু  দীর্ঘদিনের কূটনৈতিক দৌত্যে অবশেষে বরফ গলল।  ভারতের সঙ্গে অসামরিক পরমাণু চুক্তি করল বিশ্বের তৃতীয় পরমাণু জ্বালানি সরবরাহকারী দেশ অস্ট্রেলিয়া। শুক্রবার নয়াদিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টোনি অ্যাবটের উপস্থিতিতে দুদেশের মধ্যে চুক্তি সই হয়। এরফলে ভারতের পরমাণু বিদ্যুত্‍ কেন্দ্রগুলির জ্বালানি সমস্যা মিটবে বলে দাবি  নয়াদিল্লির। শুধুমাত্র অসামরিক কাজে ইউরেনিয়াম ব্যবহারের যে আশ্বাস মোদী সরকার দিয়েছে, তাতে সন্তুষ্ট ক্যানবেরা। কয়েক দিন আগেই নরেন্দ্র মোদীর জাপান সফরে বাণিজ্যিক সাফল্য মিললেও ভারত-জাপান পরমাণু চুক্তি হয়নি। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে সেই চুক্তি হওয়ায় খুশি নয়াদিল্লি।