বিজেপিকে রুখতে নীতিশই মুখ আসন্ন বিহার ভোটে, আশির্বাদের 'হাত' রইল কংগ্রেসের

বিজেপিকে রুখতে নীতিশই মুখ আসন্ন বিহার ভোটে, আশির্বাদের 'হাত' রইল কংগ্রেসের

নীতিশ কুমারকে সামনে রেখে বিহারে ভোট লড়বে জেডিইউ ও আরজেডি জোট, ঘোষণা জনতা পরিবারের। অনেক জল্পনার শেষে লালুর পূর্ণ সমর্থনে সমাজবাদী পার্টির সুপ্রিমো মুলায়ম সিং যাদব ঘোষণা করেন।

শেষ সব নাটক, আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি বিহারের মুখ্যমন্ত্রীপদে শপথ নেবেন নীতিশ কুমার শেষ সব নাটক, আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি বিহারের মুখ্যমন্ত্রীপদে শপথ নেবেন নীতিশ কুমার

ফের একবার বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন নীতিশ কুমার। এই জেডি(ইউ) নেতা আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি বিহারের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণ করবেন। আজ আস্থা ভোটের আগেই মুখ্যমন্ত্রীপদ থেকে পদত্যাগ করেন জিতন রাম মাঝি। এর পরেই চতুর্থবারের জন্য নীতিশের মুখ্যমন্ত্রীপদ পুনর্দখল এক প্রকার নিশ্চিত হয়ে যায়।

জিতনকে তাড়িয়েই দিল জেডি (ইউ), লালুকে নিয়ে রাজ্যপালের কাছে নীতীশ জিতনকে তাড়িয়েই দিল জেডি (ইউ), লালুকে নিয়ে রাজ্যপালের কাছে নীতীশ

সুর নরম করেও কাটল না ফাঁড়া। ছ বছরের জন্য জিতনরাম মাজিকে বহিষ্কার করল জেডিইউ। এর আগে নিজের অনড় অবস্থান থেকে সরে এসে জীতন রাম জানিয়েছিলেন , নীতীশ মন্ত্রিসভায় তাঁকে উপ-মুখ্যমন্ত্রী পদ দিতে হবে। তবেই মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সি ছাড়বেন তিনি। তবে জিতনের দরাদরিতে মজেনি জেডিইউ।  

রাজনৈতিক সংকটে বিহার: বিধানসভা ভেঙে দেওয়ার ডাক দেবেন মুখ্যমন্ত্রী? রাজনৈতিক সংকটে বিহার: বিধানসভা ভেঙে দেওয়ার ডাক দেবেন মুখ্যমন্ত্রী?

শাসক দল জেডিইউ-এর মধ্যে ভাঙনের জেরে বিহারের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ এখন বড়সর প্রশ্নের সম্মুখীন। আজ বেলা দুটোয় মন্ত্রী সভার বিশেষ বৈঠকের ডাক দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী জিতান রাম মাঝি। সূত্রে খবর এই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী সম্ভবত বিধানসভা ভেঙে দেওয়ার প্রস্তাব দেবেন।

কালো টাকা নিয়ে সংসদের উভয় কক্ষে আলোচনা আজ, হইচই করবে তৃণমূল  কালো টাকা নিয়ে সংসদের উভয় কক্ষে আলোচনা আজ, হইচই করবে তৃণমূল

বুধবার কালো টাকা নিয়ে আলোচনা হতে চলেছে সংসদের উভয়কক্ষে। এই অবস্থায় বিরোধীদের একতা ভেঙে দেওয়াটাই সরকারপক্ষের একমাত্র লক্ষ্য। মঙ্গলবার বিরোধীদের দফায় দফায় আক্রমনের পর সন্ধেয় আলোচনায় রাজি হয় সরকার পক্ষ। তবে কালো টাকা নিয়ে কোনও ভোটাভুটিতে যেতে রাজি নয় তারা।

'পদ্ম কাঁটা' থেকে বাঁচতে তেল-জল-ঘি মিশল বিহারে 'পদ্ম কাঁটা' থেকে বাঁচতে তেল-জল-ঘি মিশল বিহারে

পাটনা: কথায় বলে রাজনীতিতে সবই সম্ভব।

বিহারের নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে জিতেন রাম মাঝির নাম ঘোষনা করলেন নীতিশ কুমার

নিজের ইস্তফা পেশের পরই বিহারের নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে জিতেন রাম মাঝির নাম ঘোষনা করলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। এ দিন সাংবাদিক বৈঠকে জিতেন রাম প্রসঙ্গে নীতিশ বলেন, "জিতেন খুবই অক্ষিজ্ঞ নেতা। দলের জন্য ওর অবদান অনেক।" নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে জিতেন মাঝির নাম ঘোষনার আগে তাঁকে নিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করেন নীতিশ কুমার।

লালু প্রসাদের দুঃসময় অব্যাহত, আরজেডি ছেড়ে বেড়িয়ে এলেন ১৩ বিধায়ক

লালু প্রসাদ যাদবের দুঃসময় অব্যাহত। বড়সড় ঝটকার মুখে তিনি ও তাঁর রাষ্ট্রীয় জনতা দল। লোকসভা নির্বাচনের আগেই তাঁর দলের ১৩জন বিধায়ক দল ছেড়ে বেড়িয়ে গেলে। শুধু তাই নয় এই ১৩ জন সম্ভবত যোগ দিচ্ছেন শরদ যাদবে জেডিইউ-এ।

নীতিশ কুমার, ফারুক আবদুল্লার পথে হেঁটে বাজপেয়ীকে ভারতরত্ন দেওয়ার দাবি তুললেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী পাল্লাম রাজু

নীতিশ কুমার, ফারুক আবদুল্লার পথে হেঁটে এবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীকে ভারতরত্ন দেওয়ার দাবি জানালেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী পাল্লাম রাজু। পাল্লাম রাজুর বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী শশী থারুরও।

মোদী বিদ্রোহী নীতীশকে ঘরে তুলতে মরিয়া কংগ্রেস

এনডিএ ছাড়ার স্পষ্ট ইঙ্গিত দেওয়ার পরই নীতীশ কুমারকে পাশে পেতে মাঠে নামল কংগ্রেস। বিভিন্নভাবে নীতীশকে বোঝানোর চেষ্টা তো চলছেই, সঙ্গে থাকছে বাক্য বাউন্সার। কংগ্রেসের বক্তব্য, নরেন্দ্র মোদী সাম্প্রদায়িক, আর আডবাণী ধর্মনিরপেক্ষ এই যুক্তি খাটবে না। আডবাণী যে সাম্প্রদায়িকতার বীজ পুঁতেছিলেন, মোদী সেই গাছেরই ফল। সুতরাং মোদীর পরিবর্তে আডবাণীকে সমর্থন জানিয়ে ধর্মনিরপেক্ষতার ধ্বজা তোলা যায় না।

নীতীশ কাঁটা লাগল মোদীর, এনডিএ ছাড়ছে জেডিইউ

আডবাণী জট ছাড়ানোর পরেই বিজেপির কাছে নতুন সমস্যা। নরেন্দ্র মোদী ইস্যুতে এবার এনডিএ থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে নীতীশ কুমারের দল জেডিইউ। লালকৃষ্ণ আডবাণীকে নেতৃত্বে রাখা হলে তবেই তাঁরা এনডিএ-তে থাকবেন বলে নীতীশ জানিয়েছেন৷ অসমর্থিত সূত্রের খবর নীতিশ কুমার নাকি ইতিমধ্যেই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন দল আর এনডিএ-এর সঙ্গে থাকবে না। বিজেপি যেহেতু ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদীকে দলের মুখ করছে , সেই গোঁসা থেকেই নীতীশ এনডিএ থেকে সরে আসতে চলেছেন।

বিজেপির গৃহ বিবাদে ঘৃতাহুতি সংঘের

বৈদ্য-বিজেপি বিতর্ক জমে গেল। রবিবার গুজরাত মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে আরএসএস-এর প্রবীণ নেতা তাঁর ব্লগে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করেছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন বিজেপি সভাপতি গড়করির বিরুদ্ধে দলের মধ্যে ওঠা সব বিতর্কের পিছনেই আসলে গুজরাত মুখ্যমন্ত্রী রয়েছেন। সোমবার বিজেপির তরফ থেকে বৈদ্যের সমস্ত অভিযোগকেই খারিজ করে দিয়েছেন।

মোদীর সমর্থনে মুখর সঙ্ঘ

ক্রমশ বেড়েই চলেছে নীতীশ কুমার-নরেন্দ্র মোদির বৈরিতা। মঙ্গলবারের পর বুধবারও ধর্মনিরপেক্ষ প্রধানমন্ত্রীর দাবিতে অনড় থাকলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। বুধবার ২০০৪ সালে লোকসভা ভোটে বিজেপির হারের পিছনে গুজরাট দাঙ্গাকে দায়ী করে নীতিশ কুমার বলেন, ২০০২ সালে গুজরাট দাঙ্গার সময় রাজধর্ম পালনে ব্যর্থ হয়েছিলেন মোদী। যার ফলস্বরূপ ২০০৪ সালে ক্ষমতাচ্যুত হতে হয় বিজেপিকে।

নীতীশ কুমারের কনভয়ে হামলা ক্রুদ্ধ জনতার

নীতীশ কুমারের কাছে নিজের অভাব-অভিযোগের কথা জানাতে সাত সকালেই জড়ো হয়েছিল স্থানীয় জনতা। কিন্তু বিহারের মুখ্যমন্ত্রী সেই দাবি অগ্রাহ্য করায় তাঁর `সেবা যাত্রা`য় কনভয়ে হামলা চালালেন সাধারণ মানুষ। আজ সকালে ঘটনাটি ঘটেছে বক্সার এলাকায়।