কোচবিহারকে পথ দেখাচ্ছে কামদুনি

কোচবিহারকে পথ দেখাচ্ছে কামদুনি

কামদুনি পেরেছে। দীর্ঘ আন্দোলনের পর তাদের প্রতিবাদ, সফল। কিন্তু কোচবিহারের সিতাইয়ে এক ছাত্রীর ধর্ষণ-খুনের প্রতিবাদের মাশুল গুনতে হচ্ছে স্থানীয় এক শিক্ষককে। হামলা-হুমকির মুখে পড়ে, এখন গ্রামছাড়া ওই শিক্ষক। অভিযোগ, স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে। যদিও তাদের তরফে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।     

আড়াই বছরের লড়াই কাটিয়ে কামদুনিতে নতুন ভোর, ভয় কী কেটেছে? আড়াই বছরের লড়াই কাটিয়ে কামদুনিতে নতুন ভোর, ভয় কী কেটেছে?

কামদুনিতে আজ নতুন সকাল। ছয় দোষীকে সর্বোচ্চ সাজা শুনিয়েছে আদালত।  তবে ছাড়া পেয়ে গিয়েছে দুই অভিযুক্ত। এবার তাদের শাস্তির দাবিতে উচ্চ আদালতে যাওয়ার লড়াইয়ে সামিল হতে চাইছেন কামদু

বিরলের মধ্যে বিরলতম ঘটনা কামদুনি, অপরাধের প্রবণতাকে অঙ্কুরেই বিনাশের বার্তা বিচারপতির বিরলের মধ্যে বিরলতম ঘটনা কামদুনি, অপরাধের প্রবণতাকে অঙ্কুরেই বিনাশের বার্তা বিচারপতির

বিরলের মধ্যে বিরলতম ঘটনারই মান্যতা পেল কামদুনির নির্যাতিতার ওপর অত্যাচার। তাঁর রায়ে , অপরাধীদের কড়া বার্তা দিলেন বিচারক সঞ্চিতা সরকার। তিনি বলেন, মেয়েদের উপর  ক্রমবর্ধমান অপরাধে

কামদুনির রায়, নতুন করে লড়াইয়ের অক্সিজেন দিয়েছে বাকিদেরও, অপেক্ষা সুবিচারের কামদুনির রায়, নতুন করে লড়াইয়ের অক্সিজেন দিয়েছে বাকিদেরও, অপেক্ষা সুবিচারের

ফাঁসি চেয়েছিল কামদুনি। আড়াই বছর পর, তা পেল।  কিন্তু শুধুই তো কামদুনি না, বিচার পাওয়ার আশায় দিন গুনছে গাইঘাটা, খরজুনা, কাটোয়া, জলপাইগুড়িও। দাবি সেই একই। ফাঁসি দেওয়া হোক অভিযুক্তদের।সব অভিযুক্তেরই ফাঁসির দাবি তুলেছিল কামদুনি। সবার না হলেও, তিন জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। বাকিদের আমৃত্যু কারাদণ্ড। দুহাজার চোদ্দর দোসরা সেপ্টেম্বর রাতে, ধূপগুড়ির কাছে রেললাইনের ধারে  উদ্ধার হয় স্কুল ছাত্রীর ক্ষতবিক্ষত-বিবস্ত্র দেহ। ধর্ষণ করে খুনের অভিযোগ তোলেন কিশোরীর বাবা-মা। অভিযোগে উঠে আসে তৃণমূলের ওয়ার্ড কমিটির নেতা সহ শাসকদল ঘনিষ্ঠ বেশ কয়েকজনের নাম। এই মামলায় বিচার আজও অধরা। এদিন কামদুনির রায়ে, নতুন করে আশার আলো দেখছে নির্যাতিতার পরিবার।

নৃশংশ অপরাধীরা আর ফিরবে না গ্রামে, স্বস্তির হাসি কামদুনির মানুষের মুখে নৃশংশ অপরাধীরা আর ফিরবে না গ্রামে, স্বস্তির হাসি কামদুনির মানুষের মুখে

বিচার পেল কামদুনি। নৃশংশ অপরাধীরা আর ফিরবে না গ্রামে।  স্বস্তির হাসি কামদুনির মানুষের মুখে।  বিশ্বাস, এবার নির্ভয়ে পথে বের হতে পারবে  গ্রামের মেয়েরা। বর্ষার সেই দুপুরে পরীক্ষা দিয়ে আর ঘরে ফেরা হয়নি মেয়েটির। ভেড়ি আর ধানজনির মাঝের  শুনশান পথ  দিয়ে ফেরার সময়ই আক্রমণ। আট বিঘা জমিতে টেনে নিয়ে গিয়ে মেয়েটিকে ছিন্ন ভিন্ন করে দিয়েছিল আনসার-সইফুলরা। ঝরা পাতার মতো ছিঁড়ে দু টুকরো করে দেওয়া হয়েছিল দেহ।

 কামদুনি গণধর্ষণ কাণ্ডে ৩ জনের ফাঁসি এবং ৩ জনের আমৃত্যু যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করলেন বিচারক কামদুনি গণধর্ষণ কাণ্ডে ৩ জনের ফাঁসি এবং ৩ জনের আমৃত্যু যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করলেন বিচারক

কামদুনির ঘটনা কী বিরলের মধ্যে বিরলতম অপরাধ? শনিবার এ প্রশ্ন নিয়েই সরগরম রইল এজলাস। তবে অভিযুক্তপক্ষের সব যুক্তি খারিজ করে বিচারক রায় দিলেন- দুহাজার তেরোর সাতই জুন  বিরলের মধ্যে বিরলতম অপরাধই হয়েছিল কামদুনির আটবিঘা জমিতে। অভিযুক্তদের ছজনকে বৃহস্পতিবারই দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। বিচারক জানান,  এ মামলায় আর বেশি সওয়াল জবাবের প্রশ্ন নেই।  বিচার্য বিষয় একটাই,কামদুনিতে গণধর্ষণ করে খুনের ঘটনা কী বিরলের মধ্যে বিরলতম অপরাধ?

কামদুনি গণধর্ষণ কাণ্ডে ৩ জনের ফাঁসি এবং ৩ জনের আমৃত্যু যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করলেন বিচারক কামদুনি গণধর্ষণ কাণ্ডে ৩ জনের ফাঁসি এবং ৩ জনের আমৃত্যু যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করলেন বিচারক

৬ জনেরই সর্বোচ্চ সাজা। কামদুনি গণধর্ষণ কাণ্ডে ৩ জনের ফাঁসি এবং ৩ জনের আমৃত্যু যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করলেন বিচারক সঞ্চিতা সরকার। আনসার আলি, সইফুল আলি এবং আমিন আলিকে ফাঁসির সাজা দেওয়া হল।

আড়াই বছর আগের আন্দোলন আর নেই কামদুনিতে আড়াই বছর আগের আন্দোলন আর নেই কামদুনিতে

দোষীদের শাস্তির দাবিতে প্রতিবাদী মঞ্চ। তার পাল্টা শান্তিরক্ষা কমিটি। গত আড়াই বছরে বারবার রাজনীতির বেড়াজালে আটকে পড়েছে কামদুনি। কামদুনি সহজে শান্ত হবে না। বোঝা যায় শুরুতেই। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকরা ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসার পর কামদুনিতে মুখ্যমন্ত্রীও বিক্ষোভের মুখে পড়েন। ছাইচাপা আগুন এবার আগ্নেয়গিরি। প্রতিবাদী মঞ্চের সামনে টুম্পা-মৌসুমীরা। পিছনে গোটা গ্রাম।

বিপদের আশঙ্কায় সিঁটিয়ে কামদুনি বিপদের আশঙ্কায় সিঁটিয়ে কামদুনি

কামদুনিকাণ্ডে ৬ জনকে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। পর্যাপ্ত তথ্য প্রমাণের অভাবে বেকসুর খালাস পেয়ে গেছে দুই অভিযুক্ত নূর ও রফিক গাজি। তবে এরপরও স্বস্তিতে নেই কামদুনি। আতঙ্ক ক্রমশ গ্রাস করছে কামদুনির বাসিন্দাদের। একদিকে দুই অভিযুক্তের বেকসুর ছাড়া পেয়ে যাওয়া, অন্যদিকে বৃহস্পতিবারও আদালত চত্বরে নির্যাতিতার ভাইকে খুল্লামখুল্লা হুমকি দোষীর। নির্যাতিতার ভাইয়ের দাবি, বিনা প্ররোচনাতেই তাদের হুমকি দেয় দোষীরা। এদিকে কামদুনিতে অস্থায়ী পুলিস ক্যাম্পের ব্যবস্থা ছিল। সাজা ঘোষণার পর সেই অস্থায়ী ক্যাম্প থাকবে কিনা, তা নিয়ে সংশয়ে কামদুনির বাসিন্দারা। তাঁদের আশঙ্কা ক্যাম্প উঠে গেলে কামদুনিতে নিরাপত্তা বলে আর কিছুই থাকবে না। গত বুধবার বিধাননগর কমিশনারেটে গিয়ে স্থীয় ক্যাম্পের দাবি জানান বাসিন্দারা।

কামদুনি কাণ্ডে দোষীদের সাজা ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা আজ কামদুনি কাণ্ডে দোষীদের সাজা ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা আজ

আজ কামদুনি মামলায় দোষীদের শাস্তি ঘোষণা হতে পারে। গতকাল আদালতে শাস্তির মেয়াদ নিয়ে শুনানি হয়। আসামী পক্ষের আইনজীবী কম শাস্তির আর্জি জানালেও দোষীদের ফাঁসিই চাইছে কামদুনি। পরশু ৬ জন অভিযুক্ত দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর শাস্তির মেয়াদ নিয়ে শুনানি চান তাদের আইনজীবীরা।

কামদুনি মামলার সাজা ঘোষণা হল না আজ কামদুনি মামলার সাজা ঘোষণা হল না আজ

আজ কামদুনি মামলার সাজা ঘোষণা হচ্ছে না। সাজা ঘোষণা হতে পারে আগামিকাল। আগামিকাল সকাল ১১.০০ ফের সাজা ঘোষণা নিয়ে শুনানি শুরু হবে। এদিন দুপুর থেকে কয়েক দফায় চলে সাজা ঘোষণা নিয়ে শুনানি। বেলা চারটেয় শুনানি শুরুর আগে রুদ্ধদ্বার কক্ষে তাঁর রায়ের কপি দুপক্ষের আইনজীবীকে পড়তে দেন বিচারক।

আতঙ্ক ক্রমশ গ্রাস করছে কামদুনির বাসিন্দাদের আতঙ্ক ক্রমশ গ্রাস করছে কামদুনির বাসিন্দাদের

কামদুনিকাণ্ডে আদালতের ছজনকে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। পর্যাপ্ত তথ্য প্রমাণের অভাবে বেকসুর খালাস পেয়ে গেছে দুই অভিযুক্ত নূর ও রফিক গাজি। তবে এরপরও স্বস্তিতে নেই কামদুনি। আতঙ্ক ক্রমশ গ্রাস করছে কামদুনির বাসিন্দাদের। একদিকে দুই অভিযুক্তের বেকসুর ছাড়া পেয়ে যাওয়া, অন্যদিকে গতকাল আদালত চত্বরে নির্যাতিতার ভাইকে খুল্লামখুল্লা হুমকি। কোর্ট চত্বরে দোষী সাব্যস্তদের হুমকির মুখে পড়ে কামদুনির নির্যাতিতার পরিবার। নির্যাতিতার ভাইয়ের দাবি, বিনা প্ররোচনাতেই তাদের হুমকি দেয় দোষীরা। এদিকে কামদুনিতে অস্থায়ী পুলিস ক্যাম্পের ব্যবস্থা ছিল। সাজা ঘোষণার পর সেই অস্থায়ী ক্যাম্প থাকবে কিনা, তা নিয়ে সংশয়ে কামদুনির বাসিন্দারা। তাঁদের আশঙ্কা ক্যাম্প উঠে গেলে কামদুনিতে নিরাপত্তা বলে আর কিছুই থাকবে না। গত পরশু বিধাননগর কমিশনারেটে গিয়ে স্থীয় ক্যাম্পের দাবি জানান বাসিন্দারা। 

কামদুনিকাণ্ডে সাজা ঘোষণা আজ কামদুনিকাণ্ডে সাজা ঘোষণা আজ

কামদুনিকাণ্ডে সাজা ঘোষণা আজ। গতকালই ছয় অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। তবে আজ সাজা ঘোষণা করার আগে দুপক্ষের আইনজীবীর মতামত শুনবেন বিচারক। এরপরই চূড়ান্ত সাজা ঘোষণা করবেন তিনি।

কামদুনি মামলার রায় হতে সময় লেগে গেল দুবছর আট মাস! কামদুনি মামলার রায় হতে সময় লেগে গেল দুবছর আট মাস!

কামদুনি মামলার রায় হতে সময় লেগে গেল দুবছর আট মাস।  অথচ  দিল্লির নির্ভয়া গণধর্ষণ মামলা, উবের ক্যাবে মহিলাকে ধর্ষণ , মুম্বইয়ে শক্তি মিলে মহিলাকে ধর্ষণ, তিনটি  মামলাতেই  রায় ঘোষণা হয়েছে এক বছরেরও কম সময়ে। আর এ রাজ্যে মালদার বামনগোলায় নাবালিকা ধর্ষণ মামলায় রায় ঘোষণা হয় মাত্র বাইশ দিনে। একমাসের মধ্যে দোষীদের শাস্তি হবে । কামদুনিতে দাঁড়িয়ে ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপরও বিচারের বাণী ঘোষণা হতে লেগে গেল প্রায় দুবছর আট মাস। দেশ জুড়ে আলোড়ন তোলা বেশকয়েকটি গণধর্ষণ মামলার রায় হয়েছে কয়েকমাসের মধ্যেই।

কামদুনি কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত ৬, বেকসুর খালাস ২ কামদুনি কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত ৬, বেকসুর খালাস ২

কামদুনি ধর্ষণ এবং খুন মামলায় মোট ৮ জন অভিযুক্ত ছিল। কিন্তু তার মধ্যে ৬ জনকে দোষী সাব্যস্ত করল নগর দায়রা আদালত। বাকি ২ জনকে বেকসুর খালাস করে দেওয়া হয়েছে। নূর আলি এবং রফিক ইসলাম গাজিকে বেকসুর খালাস করা হল।