অসহিষ্ণু সমাজকে জবাব দিয়ে ট্রান্সজেন্ডার পুত্রবধূকে কাছে টানার দৃষ্টান্ত মধ্যপ্রদেশে

অসহিষ্ণু সমাজকে জবাব দিয়ে ট্রান্সজেন্ডার পুত্রবধূকে কাছে টানার দৃষ্টান্ত মধ্যপ্রদেশে

কোন কোন গুণ থাকলে ভারতের আদর্শ বৌমা হওয়া যায়? বিবাহ বন্ধনীর বিজ্ঞাপনে চোখ বোলালেই মিলে যাবে উত্তর। ফর্সা, সুন্দরী, গৃহকর্মে নিপুণা, ভদ্র, নম্র, ঘরোয়া। তবে বৌমা যদি হয় একটু 'ইয়ে', মানে যাকে বলে একটু 'ছেলে ছেলে'? বা ঠিক যেন মেয়েই নয়, তবে? শুনেই জিভ কাটবেন উপযুক্ত পাত্রের বাবা, মায়েরা। "মাগো! ওদের তো দেখলেই গা, পিত্তি জ্বলে যায়, সাধ করে বৌমা করতে যাবো করতে দুঃখে? ওরা আবার মেয়ে নাকি??" এমনই উত্তর যেখানে প্রত্যাশিত সেখানে একেবারে বিপরীত পথে হাঁটলেন মধ্য প্রদেশের এক পরিবার। ভারতের প্রথম পরিবার হিসেবে কাছে টেনে নিলেন ট্রান্সজেন্ডার বৌমাকে।

 অনুতপ্ত নন সাক্ষী মহারাজ, বললেন 'রাত গয়ি, বাত গয়ি' অনুতপ্ত নন সাক্ষী মহারাজ, বললেন 'রাত গয়ি, বাত গয়ি'

ফের সাক্ষী মহারাজের মন্তব্যের জেরে নাজেহাল বিজেপি। মঙ্গলবার মীরাটের একটি ধর্মসভায় উত্তর প্রদেশের বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ দাবি করেছিলেন ধর্ম বাঁচাতে প্রত্যেক হিন্দু মহিলার উচিত অন্তত চারটি সন্তানের জন্ম দেওয়ার। সাক্ষী মহারাজের এই 'অমৃতবাণীর' পর দেশ জুড়ে বিতর্ক শুরু হয়। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে এই মন্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখায়  বিভিন্ন নারী ও মানবাধিকার সংগঠন গুলিও। যতই বিতর্ক হক না কেন সাক্ষী মহারাজ কিন্তু তাঁর মন্তব্যের জন্য বিন্দুমাত্র অনুতপ্ত নন। বরং কথা ঘুরিয়ে তিনি বলেছেন ''রাত গেয়ি, বাত গেয়ি (সময় সঙ্গে প্রসঙ্গও শেষ)। এর সঙ্গেই এই বিজেপি নেতার মতে তাঁর মন্তব্যের সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। এই মন্তব্য সম্পূর্ণ ধর্মীয়।