নাগপুরের নাগপাশে ৭৯ রানে গুঁটিয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা

নাগপুরের নাগপাশে ৭৯ রানে গুঁটিয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা

নাগপুরের পিচের সৌজন্যে লজ্জার রেকর্ড দক্ষিণ আফ্রিকার। অল আউট মাত্র ৭৯ রানে। ভারতের বিরুদ্ধে টেস্টে দ.আফ্রিকার এটাই সবচেয়ে কম রানের ইনিংস।  মাত্র ৩৩ ওভারেই প্রথম ইনিংস শেষ হয়ে গেল হাসিম আমলার দলের। প্রথম ইনিংসে ভারত লিড নিল ১৩৬ রানের। ম্যাচ কত দিন গড়ায় সেটাই এখন বড় প্রশ্ন। নাগপুরেই যে ভারত সিরিজ জিতে নিচ্ছে তা নিয়ে কোনও সংশয় নিয়ে। দ্বিতীয় ইনিংসে অন্তত ১৫০ রান তুলতে পারলেও পিচ যা আচরণ করছে তাতে অশ্বিন-জাদেজা-মিশ্রদের ঘুর্ণিতে সিরিজ পকেটে নিশ্চিত। আজ ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে ২৩ ওভারের মধ্যেই শেষ হয়ে গেল প্রোটিয়াদের ইনিংস। অশ্বিন নিলেন পাঁচ উইকেট, জাদেজা ৪টি আর মিশ্র অমিত মিশ্র ১টি। এত কম ওভারের মধ্যে অল আউট হওয়ার রেকর্ড দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে আর নেই।

নাগপুরের নাগপাশে আটকে সিরিজ হারল ভারত

নাগপুরে অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটল না। সিরিজের শেষ টেস্টের শেষ দিনে প্রাণহীন ড্র হয়ে ভারতীয় ক্রিকেটে এল একটা লজ্জার একটা দিন। ভারতীয়রা ঘরের মাঠে বাঘ এই প্রবাদ বাক্যটাকে নদীতে ছুঁড়ে ফেলে ২৮ বছর পর ভারত থেকে সিরিজ জিতে নিয়ে ফিরছে ইংল্যান্ড। সেই সঙ্গে এই টেস্ট সিরিজ ১-২ ব্যবধানে হেরে একসঙ্গে অনেক লজ্জার ঘটনা ঘটে গেল। সেইগুলোকে সংখ্যার আকারে পরপর রাখলে দাঁড়ায়--১) ২০০৪ এরপর ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ হারতে হল ভারতকে,২) অধিনায়ক হওয়ার পর দেশের মাটিতে এই প্রথম সিরিজ খোয়ানোর বিস্বাদ পেলেন ধোনি, ৩) বদলার সিরিজ নামে যাকে ডাকা হচছিল সেই সিরিজ প্রমাণ করে দিল ভারতীয় ক্রিকেটে এখন বদল দরকার।

সিরিজে সমতার স্বপ্ন বিসর্জনের পথে

শেষ পর্যন্ত বোধহয় `ট্রট`-এ এসে ডুবে গেল ভারতের সিরিজে সমতা ফেরাবার তরী। কুক, কেপি, কমপটনকে দ্রুত প্যাভিলিয়নবাসী করেও ম্যাচ জেতার লড়াই থেকে

কয়েক যোজন দূরে ছিটকে গেলেন ধোনিবাহিনী। দলের প্রাথমিক বিপর্যয়কে সামলে নিয়ে জমাটি পার্টনারশিপ গড়ে তুলছেন ট্রট আর বেল। ইতিমধ্যে চতুর্থ উইকেটে দু`জনে

কার্যকরি ৬৭ রান যোগ করে ফেলেছেন। চতুর্থ দিনের শেষে ইংল্যান্ড ১৬৫ রানে এগিয়ে রয়েছে। ক্রিজে ব্যক্তিগত ৬৬ রানে অপরাজিত ট্রট। তাঁকে যোগ্য সঙ্গত দিচ্ছেন

বেল (২৪)। হাতে ৭ উইকেট আর একটা গোটা দিন নিয়ে কাল মাঠে নামবেন ব্রিটিশরা। একটা ড্র। তাহলেই কেল্লাফতে। কালকের দিনটা কাটিয়ে দিতে পারলেই ভারতের

মাটিতে দীর্ঘ ২৮ বছর পর সিরিজ জয়ের গৌরব লাভ করবেন কুকরা। তাই বিন্দুমাত্র তাড়াহুড়ো না করে নাগপুরের ২২গজ আঁকড়ে থাকাই এখন তাঁদের প্রধান লক্ষ্য।