টেবিলে টেবিলে ঘুরেও মিলছে না পেনশনের টাকা

টেবিলে টেবিলে ঘুরেও মিলছে না পেনশনের টাকা

ব্যয়বহুল চিকিত্সার খরচ পেতে বার বার কড়া নাড়ছেন সরকারি দফতরে। ঘুরছেন এক টেবিল থেকে আরেক টেবিল। জমা দিয়েছেন প্রয়োজনীয় নথি। কিন্তু কোনও হেলদোল নেই সরকারি দফতরের। ৬ বছর কেটে গেলেও এক পয়সাও পাননি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মী অবিনাশচন্দ্র দত্ত। বালুরঘাটের অগ্নিশিখা পাড়ার বাসিন্দা। অবসর নেন ১৯৯১ সালে। ২০০৯ সালে ধরা পড়ে হৃদযন্ত্রে গোলযোগ। কলকাতায় সরকারি হাসপাতালে হয় ওপেন হার্ট সার্জারি। খরচ হয় ১ লক্ষ ২৮ হাজার টাকা। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী তাঁর চিকিত্সা বাবদ খরচের টাকা সরকারের কাছ থেকেই পাওয়ার কথা। কিন্তু সরকারি দফতরে ঘুরে ঘুরেও মেলেনি টাকা।

স্কুল শিক্ষকদের পেনশন সমস্যা কাটাতে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী স্কুল শিক্ষকদের পেনশন সমস্যা কাটাতে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী

স্কুল শিক্ষক, পুরসভা বা পঞ্চায়েত কর্মীদের পেনশন সমস্যা কাটাতে এবারে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরবঙ্গের সাতজেলা নিয়ে পেনশন ডিরেক্টরেট তৈরি করছে সরকার। আগামী পয়লা অগাস্ট উত্তর কন্যায় এই ডিরেক্টরেট চালু করা হবে। উদ্বোধন করবেন উত্তরঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী গৌতম দেব। পরিকাঠামো তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ওয়েবেলকে। সময় মতো পেনশন পাওয়া স্কুল শিক্ষকদের দীর্ঘদিনের সমস্যা। শুধু শিক্ষকরাই নন অনেকেক্ষেত্রেই পঞ্চায়েত বা পুরসভা কর্মীদেরও এই সমস্যা ভোগ করতে হয়। সমস্যা মেটাতে এবারে তাই পেনশন ডিরেক্টরেটকে দুইভাগে ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। উত্তরবঙ্গের সাত জেলার জন্য উত্তরকন্যায় তৈরি হচ্ছে নতুন ডিরেক্টরেট।