ইয়াকুবের জীবনের শেষের কয়েক ঘণ্টা ইয়াকুবের জীবনের শেষের কয়েক ঘণ্টা

সারারাতে কিছু খাননি। শুধু বলেছিলেন, আমি মরবই, শেষবার একবার মেয়েকে দেখতে চাই। রাত ৩টার সময় ঘুম থেকে তোলা হয় ইয়াকুবকে। ১৫ মিনিট বাদে স্নান করানো হয়। এরপরেই পাঁচ মিনিটের মধ্যে নতুন পোশাক পরিয়ে তৈরি করা হয়। এর মধ্যেই এসে পড়ে জলখাবার। জীবনের শেষ খাবার খেতে চাননি। সাড়ে ৩টা থেকে দু ঘণ্টা ধরে ধর্মগুরুর উপস্থিতিতে করেন বিশেষ প্রার্থনা। সাড়ে পাঁচটার কিছু পরে ইয়াকুবকে সাজা পড়ে শোনানো হয়।  এরপর অপরাধের পর ক্ষমাপ্রার্থনা করেন ইয়াকুব। ৫.৩৫-এ স্বাস্থ্যপরীক্ষা করে ফিট ঘোষণা করেন ডাক্তররা। ৫.৪৫-এ সেলের মধ্যে ঘুরিয়ে সহ -বন্দিদের সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হয়। সহ-বন্দিদের মধ্যে কেউ কেউ আবেগে ভেঙে পড়েন। ৬টা থেকে ৬টা ২৫-ধর্মগ্রন্থ পাঠ ও বিশ্রাম করেন। ৬টা ২৫-এ তাঁর সেল থেকে ২৫ পা দূরে ফাঁসির মঞ্চে নিয়ে যাওয়া হয়। ৬.৩৫-এ ফাঁসি কাঠে ঝোলানো হয়। নিয়ম মেনে ৩০ মিনিট ঝুলিয়ে রাখার পর ৭টায় ডাক্তাররা মৃত বলে ঘোষণা করেন। ২১ বছর জেলে থাকার পর মুম্বই বিস্ফোরণের মূল অভিযুক্তর জীবনকাহিনিতে দাঁড়ি পড়ে।

ফাঁসির পর মেমনের দেহ নাগপুর জেলেই কবর দেওয়া হবে, দেহ পাবে না পরিবার ফাঁসির পর মেমনের দেহ নাগপুর জেলেই কবর দেওয়া হবে, দেহ পাবে না পরিবার

ফাঁসির দিন যত এগিয়ে আসছে ততই বাড়ছে উত্তেজনা-বিতর্ক। ইয়াকুব মেমনের ফাঁসির ঘটনায় সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার কথা মাথায় রেখে নতুন সিদ্ধান্ত নিল জেল কর্তৃপক্ষ। ফাঁসি দেওয়ার পর ইয়াকুব মেমনের দেহ জেল চত্ত্বরেই কবর দেওয়া হবে। আগে ঠিক ছিল ফাঁসি দেওয়ার মেমনের দেহ তার পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে..কিন্তু সেক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা থাকছে। তাই মেমনের মৃতদেহ বাইরে বের না করে জেলের ভিতরই এক স্থানে কবর দেওয়া হবে। তবে শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারবেন মেমনের স্ত্রী ও মেয়ে। শোনা যাচ্ছে জেল কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে আদালতে যেতে পারেন মেমনের আইনজীবী।

সুইডিশ সংবাদপত্রে বফর্স নিয়ে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সাক্ষাত্‍কার নিয়ে বিতর্ক বাড়ছে সুইডিশ সংবাদপত্রে বফর্স নিয়ে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সাক্ষাত্‍কার নিয়ে বিতর্ক বাড়ছে

সুইডিশ সংবাদপত্র ড্যাগেন্স নাইহেটারে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সাক্ষাত্‍কার নিয়ে বিতর্ক বাড়ছে। সুইডেন সফরের আগে রাষ্ট্রপতি ওই সংবাদপত্রের সঙ্গে কথা বলেন। সেখানেই উঠে আসে বফর্স প্রসঙ্গ। ই-এডিশনে সাক্ষাত্‍কারের ভিডিওটিও প্রকাশ করেছে ড্যাগেন্স নাইহেটার। ২৪ ডিসেম্বর সুইডিশ সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয় প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সাক্ষাত্‍কার। রাষ্ট্রপতিকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, বফর্স দুর্নীতি আদালতে প্রমাণিত হয়নি। গোটা ঘটনাটাই ছিল সংবাদমাধ্যমের নিজস্ব বিচার প্রক্রিয়া। রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মুখে এই মন্তব্যে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

আলোচনার মাধ্যমে জঙ্গের সঙ্গে কেজরিকে 'জঙ্গ' মেটানোর অনুরোধ কেন্দ্রের আলোচনার মাধ্যমে জঙ্গের সঙ্গে কেজরিকে 'জঙ্গ' মেটানোর অনুরোধ কেন্দ্রের

আলোচনার মাধ্যমে কেজরিওয়াল ও নাজিব জঙ্গকে  বিবাদ মিটিয়ে নিতে  বলল কেন্দ্র।  দিল্লির কার্যনির্বাহী  চিফ সেক্রেটারি পদে শকুন্তলা গ্যামলিনের নিয়োগ নিয়ে তুঙ্গে দুপক্ষের বিরোধ। লেফট্যানান্ট গভর্নর নাজিব জং ও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালের বিরোধ গড়িয়েছে রাষ্ট্রপতির দরবারেও। গতকাল দুজনেই দেখা করেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। এর পরেই আজ দুজনকে একসঙ্গে বসে আলোচনা করে বিরোধ মেটানোর পরামর্শ দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। তবে রাজনাথের দাবি, দিল্লি সরকার প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তাঁর কোনও আলোচনা হয়নি।