ফোন, SMS-এর মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট বাতিল করার আট উপায়

ফোন, SMS-এর মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট বাতিল করার আট উপায়

প্রযুক্তির যুগে এখন সবই হাতের মুঠোয়। একটা মাত্র ক্লিকেই দুনিয়াটা আপনার মুঠোর মধ্যে। শপিং থেকে শুরু করে টিকিট বুকিং, সে বিমানের হোক কিংবা ট্রেনের, সবই এখন বাড়িতে বসেই করতে পারেন। রেল বাজেট পেশ হওয়ার সময়ই কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভু ঘোষণা করেছিলেন যে, এবার থেকে ট্রেনের টিকিট বুকিং থেকে শুরু করে ক্যানসেল সবই হবে ফোন এবং SMS-এর মাধ্যমে। এই নিয়ম চালু হওয়ার পর থেকে অনেক সুবিধা হয়ে গিয়েছে আমাদের। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াতে হয় না। শুধু একটা ফোন কিংবা SMS, আর সঙ্গে সঙ্গে আপনার টিকিট বুকিং বা ক্যানসেল হয়ে যাবে সহজেই। তবে এখনও অনেকেই জানেন না কীভাবে ফোন SMS-এর মাধ্যমে টিকিট ক্যানসেল করবেন।

ফোনে হুমকি দেওয়ায় যুবকের কড়া শাস্তির দাবি সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের  ফোনে হুমকি দেওয়ায় যুবকের কড়া শাস্তির দাবি সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের

খুনের হুমকি দেওয়ায় যুবকের কড়া শাস্তির দাবি জানালেন সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। উন্মাদের মতোই হুমকি। প্রতিক্রিয়া সাংসদের। কয়েকদিন আগেই মোবাইলে এসএমএস মারফত্‍ খুনের হুমকি পান তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লিতে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন চলাকালীনই তিনি ফোনে এসএমএসটি পান। ঠিক সেই সময়ই বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীকে জানান। এরপরই দলের সাংসদকে দিল্লিতে এফআইআর করতে বলেন মমতা বন্দ্যোপধ্যায়। এছাড়া সংসদে ঘটনার কথা তুলতে বলেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর কথা মতো কাজও করেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর ঘটনার তদন্ত চালায় পুলিস। তদন্তের জেরে ঢাকুরিয়ার শরত্‍ ঘোষ গার্ডেন রোড এলাকা থেকে পেশায় ওয়েব ডিজাইনার দীপাঞ্জন মিত্রকে গ্রেফতার করে পুলিস।

সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার এক সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার এক

SMS-এ সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার এক। আজ সন্ধেয় ঢাকুরিয়ার শরত্‍ ঘোষ গার্ডেন রোড এলাকা থেকে পেশায় ওয়েব ডিজাইনার দীপাঞ্জন মিত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। বাবা অশোক মিত্রের সূত্রে সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ দীপাঞ্জনের। অবসর সময়ে  ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফিও করে সে। ২০১৩-য় সাংসদের সঙ্গে দেখা করে চাকরি চেয়েছিলেন দীপাঞ্জন। পর্যটন দফতরে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু, চাকরি হয়নি। সেই হতাশা থেকে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে খুনের হুমকি দেয় বলে পুলিসি জেরায় দাবি করে দীপাঞ্জন। তার বিরুদ্ধে হুমকি ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়েছে। দীপাঞ্জনের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে মোবাইল।  নিজের নামে থাকা সিম থেকেই সাংসদকে হুমকি দেয় দীপাঞ্জন।