দাবদাহে পুড়ছে বর্ধমান, আকাশে হাত ছুড়ে সবার প্রার্থনা 'একটু বৃষ্টি'  দাবদাহে পুড়ছে বর্ধমান, আকাশে হাত ছুড়ে সবার প্রার্থনা 'একটু বৃষ্টি'

জুনের প্রথম সপ্তাহেও দাবদাহ অব্যাহত। খাতায়-কলমে বর্ষা শুরু হলেও এখনও বৃষ্টির দেখা নেই। গত সপ্তাহে বিভিন্ন জায়গায় বিচ্ছিন্ন ভাবে ছিঁটেফোঁটা বৃষ্টি হওয়ায় পারদ কিছুটা নেমেছিল। কিন্তু গত দুদিনে ফের পারদ উর্দ্ধমুখী। শুক্রবার বর্ধমান শহরে তাপমাত্রা ছিল ৩৯ ডিগ্রি। শনিবার তা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে যায়। ফলে প্রচণ্ড গরমে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যবহত হয়। এঅবস্থায় শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে আইসক্রিমের দোকান কিম্বা ঠাণ্ডা পানীয়ের দোকানে মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। বাড়ছে টুপি ও রোদচশমার বিক্রি। পথচারীরা গরম থেকে বাঁচতে কাপড়ে মুখ ঢেকে যাতায়াত করছেন।

তাপপ্রবাহে পুড়ছে রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল, দক্ষিণ-পশ্চিমা বায়ু খানিক স্বস্তির আশ্বাস নিয়ে এল তাপপ্রবাহে পুড়ছে রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল, দক্ষিণ-পশ্চিমা বায়ু খানিক স্বস্তির আশ্বাস নিয়ে এল

তাপপ্রবাহে পুড়ছে রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলি।  গরম হাওয়ার সঙ্গে জোট বেঁধে কলকাতার অস্বস্তি বাড়িয়ে চলেছে আর্দ্রতা। কিন্তু দক্ষিণ পশ্চিম দিক দিয়ে তুলনামূলক ঠান্ডা বাতাস রাজ্যে প্রবেশ করেছে। আর তাতেই কিছুটা হলেওআজ স্বস্তি মিলেছে কলকাতায়। অস্বস্তি সূচক বারো থেকে কমে হয়েছে আট। গোটা দক্ষিণবঙ্গে চলছে দাবদাহ। তবে তারই মাঝে কিছুটা হলেও স্বস্তি দিচ্ছে দক্ষিণ পশ্চিম দিক থেকে রাজ্যে ঢোকা তুলনামূলক ঠান্ডা বাতাস। এর প্রভাবে শনিবার তাপমাত্রার পারদ সেভাবে বাড়তে পারেনি। যদিও বীরভূম, পুরুলিয়া, মুর্শিদাবাদ, বাঁকুড়া, বর্ধমান, মেদিনীপুর, রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের এই জেলা গুলিতে  শনিবার সকাল থেকেই শুরু হয়েছে তাপপ্রবাহ।