নিহত জঙ্গিরা বিদেশি: সুশীল কুমার শিন্ডে

বুধবার শ্রীনগরে জঙ্গি হামলার ঘটনায় সিআরপিএফের গুলিতে নিহত দুই জঙ্গিই বিদেশি বলে দাবি করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুশীল কুমার শিন্ডে। আজ লোকসভায় দাঁড়িয়ে এই কথা বলার সঙ্গে সঙ্গেই তিনি জানান ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া নথিতে একাধিক পাকিস্তানের ফোন নম্বর পাওয়া গিয়েছে। ঘটনাস্থল থকে উদ্ধারীকৃত ওষুধ ও অনান্য বস্তু পাকিস্তানে তৈরি বলেও দাবি করেছেন তিনি। যদিও পাকিস্তানের তরফ থেকে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। 

কপ্টার দূর্নীতি তদন্তে ধাক্কা কেন্দ্রের

হেলিকপ্টার দুর্নীতির তদন্তে ধাক্কা খেল কেন্দ্র। তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহে সিবিআই ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের একটি দল সোমবার রোম যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ঠিক তার আগে গতকাল, ভারতের অনুরোধ খারিজ করে ইতালির আদালত জানিয়ে দিল, এখনই এই মামলার কোনও নথি দেওয়া যাবে না।

এফডিআই নিয়ে সরকারকে হলফনামা পেশের নির্দেশ শীর্ষ আদালতের

খুচরো ব্যবসায়ে বিদেশি বিনিয়োগের অনুমতি দেওয়ার পর ছোট ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় সরকার কী পদক্ষেপ করেছে? এ বিষয়ে কেন্দ্রকে তিন সপ্তাহের মধ্যে হলফনামা দেওয়ার নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট।

রাহুলকে সামনে রেখে লোকসভা ভোটের প্রচার শুরু কংগ্রেসের

জয়পুরের চিন্তন শিবির থেকেই কার্যত আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করে দিল কংগ্রেস। যে ইস্যুটি ইউপিএ দুই সরকারকে সবচেয়ে সমস্যায় ফেলেছিল সেই দুর্নীতি ইস্যুকেই অস্ত্র করে লড়াইয়ের বার্তা দিলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। আজ জয়পুরে কংগ্রেসের চিন্তন শিবিরের সমাপ্তি ভাষণে দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়তে ইতিমধ্যেই সরকার পাঁচদফা পরিকল্পনা নিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

গুজরাতে আজ ইভিএম বন্দি মোদীর ভাগ্য

আজ গুজরাতে দ্বিতীয় তথা শেষদফার ভোটগ্রহণ। পঁচানব্বইটি আসনের জন্য সকাল আটটা থেকে শুরু হয়ে গেছে

ভোটগ্রহণ। দ্বিতীয় দফায় ভোট ময়দানে রয়েছেন ৮২০ প্রার্থী। আর আজকের ভোটেই ইভিএম বন্দি হতে চলেছে

মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভাগ্য। নির্ধারিত হবে শঙ্করসিং বাঘেলার ভাগ্যও। নির্ধারিত হবে শঙ্করসিং বাঘেলার ভাগ্যও।

এই দফাতেও সবকটি আসনেই প্রার্থী দিয়েছে বিজেপি।

জমি অধিগ্রহণ বিলে সম্মতি কেন্দ্রের

জমি অধিগ্রহণ বিলে অনুমোদন দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। এই বিল অনুযায়ী, সংশ্লিষ্ট এলাকার ৮০ শতাংশ জমি

মালিকের সম্মতি থাকলে বেসরকারি প্রকল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণ করা যাবে। সরকারি-বেসরকারি যৌথ প্রকল্পে জমি

অধিগ্রহণের জন্য ৭০ শতাংশের সমর্থন থাকতে হবে।

শেষ প্রচারে মোদী-গড়ে রাহুল

গুজরাতে নির্বাচনী প্রচারের শেষ বেলায় ময়দানে নামলেন রাহুল গান্ধী। আজ জামনগরের একটি জনসভায় মোদীর

উন্নয়নের দাবিকে নস্যাৎ করে দিলেন তিনি। জানিয়ে দিলেন গুজরাত মুখ্যমন্ত্রীর `গুজরাত শাইনিং` স্লোগান এবারের

নির্বাচনে ধোপে টিকবে না।

সংরক্ষণ বিল: এসপি-বিএসপি দ্বৈরথের মাঝে কেন্দ্র

এফডিআই নিয়ে সংসদে যুদ্ধ জয়ের পর এ বার নতুন সমস্যায় কংগ্রেস। সরকারি চাকরিতে পদোন্নতির ক্ষেত্রে তফশিলি

জাতি-উপজাতিদের সংরক্ষণের জন্য আইন চালুর দাবিতে কেন্দ্রকে তিনদিনের সময়সীমা দিয়েছেন মায়াবতী।

উল্টোদিকে, এই পদক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা করছেন মুলায়ম সিং যাদব। গতকাল, সংরক্ষণ ইস্যুতে হৈ-হট্টগোলের

জেরে মুলতুবি হয়ে যায় রাজ্যসভার অধিবেশন। উত্তরপ্রদেশের যুযুধান দুই দলকে বাগে আনার চেষ্টায় এখন ব্যস্ত

কংগ্রসের রাজনৈতিক ম্যানেজাররা।     

নির্বাচনী প্রচারের শেষ লগ্নে ব্যস্ত গুজরাত

গুজরাত বিধানসভা নির্বাচনে প্রথম পর্যায়ের ভোটগ্রহণের জন্য প্রচার শেষ হচ্ছে আজ। বৃহস্পতিবার ১৫টি জেলার

৮৭টি আসনে ভোট গ্রহণ। মোট ৮৪৬ জন প্রার্থী। ভোট গ্রহণকে কেন্দ্র করে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গুজরাত বিধানসভার প্রথম পর্যায়ের ভোট গ্রহণ তেরোই ডিসেম্বর। তাঁর জন্য প্রচার শেষ হচ্ছে মঙ্গলবার। শেষ বেলার

প্রচারে ব্যস্ত দুই পক্ষই। প্রচারে এসেছিলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। সোমবারও দিনভর প্রচার চালিয়েছেন

মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

সংরক্ষণ সংক্রান্ত বিল নিয়ে রাজ্যসভায় সর্বদলের ডাক

তপশিলি জাতি-উপজাতি সংরক্ষণ সংক্রান্ত বিলটি নিয়ে রাজ্যসভায় চলা অচলাবস্থার জেরে সর্বদল বৈঠক ডাকলেন চেয়ারম্যান। সংরক্ষণ বিল নিয়ে বিএসপি সুপ্রিমো মায়াবতী ইউপিএ সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করার জেরেই আজ রাজ্যসভায় তুমুল হট্টগোল শুরু হয়। তার জেরে দিনের মতো মুলতুবি হয়ে যায় অধিবেশন। মায়াবতী এই ইস্যুতে বিজেপির অবস্থান পরিষ্কার করতে বলেন।

গুজরাত নির্বাচন: সংখ্যালঘু ফর্মুলায় প্রত্যাবর্তন প্রধানমন্ত্রীর

গুজরাতে শেষবেলার ভোট প্রচারে শেষপর্যন্ত সংখ্যালঘু তাসটাই খেললেন প্রধানমন্ত্রী। বিভাজনের রাজনীতি করেন

নরেন্দ্র মোদী। আর সেই কারণেই এখনও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন গুজরাতের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ। গতকাল

এই ভাষাতেই মোদী সরকারকে আক্রমণ করলেন মনমোহন সিং। অবশ্য পাল্টা তোপ দেগেছে বিজেপিও।

এফডিআই ইস্যুতে আজ রাজ্যসভায় ভাগ্য পরীক্ষা কেন্দ্রের

গতকাল লোকসভায় শীতকালীন অধিবেশনের সবচাইতে বড় পরীক্ষাটা উতরে গেছে কেন্দ্রের ইউপিএ-২ সরকার। বিরোধীদের প্রস্তাব খারিজ করে এফডিআই ইস্যুতে জয় পেয়েছে কেন্দ্র। সৌজন্যে অবশ্যই 'সপা' আর 'বসপা'-র 'বন্ধুত্ব পূর্ণ' ওয়াকআউট। আজ রাজ্যসভায় খুচরো ব্যবসায় বিদেশি বিনিয়োগ ইস্যুতে আবার যুদ্ধে নামল সরকার। ইতিমধ্যে থেকে রাজ্যসভার উচ্চকক্ষে এফডিআই নিয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে। ভোটাভুটি হবে শুক্রবার। সরকারের চিন্তা বাড়িয়ে দিল সমাজবাদী পার্টি। বাজ্যসভায় সপা সরকারকে ভোট দেবে না বলে জানিয়ে দিলেন সপা নেতা নরেশ অগ্রবাল। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করেছেন লোকসভার মত রাজ্যসভাতেও জয় পাবে সরকারই। 

সংখ্যা নিয়ে উদ্বেগে কেন্দ্র

এফডিআই ইস্যুতে বিরোধীদের দাবি মেনে ১৮৪ ধারায় আলোচনায় কী রাজি হতে পারে সরকার? এই নিয়ে শুরু

হয়েছে জল্পনা। সূত্রের খবর সংখ্যার সঙ্কট কাটাতে তোড়জোড় শুরু করেছে কংগ্রেস। শরিক ডিএমকে সরকারের

পাশেই রয়েছে বলেই খবর। কংগ্রেস যোগাযোগ রাখছে ছোট দলগুলির সঙ্গে। এক্ষেত্রে বিএসপি এবং এসপি-র ভূমিকা

খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

তৃণমূলের অনাস্থা প্রস্তাব খারিজ, দিনের মত মুলতুবি সংসদ

শীতকালিন অধিবেশনের প্রথম দিনই খারিজ হয়ে গেল তৃণমূলের আনা অনাস্থা প্রস্তাব। অনাস্থা আনতে চেয়ে লোকসভা অধ্যক্ষের দফতরে নোটিশ দিয়ে আসেন সুদীপ বন্দোপাধ্যায়। বিরোধীদের প্রবল চাপে বেলা ১২.৩০ টার পরেই মুলতুবি হয়ে যায় সংসদের উভয় কক্ষই। অধিবেশনের শুরুতেই  সংসদের দুই কক্ষেই তুমুল হট্টগোল শুরু হয়ে যায়। উওর প্রদেশের রাজনীতি নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে সপা-বিএসপি। ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে এই দু'দলের সাংসদরা। বেলা ১২.৩০টা অবধি মুলতুবি রাখা হয়েছিল লোকসভা। দিনের মত মুলতুবি হয়ে যায় রাজ্যসভা। প্রথম দফায় স্থগিত থাকার পর আবার ১২.৩০ টায় সংসদ শুরু হলে আবআর উত্তাল হয় সংসদ। আনাস্থা প্রস্তাব খারিজ করেই আজকের মত মুলতুবি করা হয় লোকসভাকে।

প্রশ্নের মুখে অনাস্থা প্রস্তাবে অনড় মমতা

কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে মরিয়া তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রয়োজনীয় সংখ্যা জোগাড়

করতে বিজেপি থেকে চরম প্রতিদ্বন্দ্বী সিপিআইএম, কারোর কাছে সাহায্য চাইতেই পিছপা হচ্ছেন না তিনি। কিন্তু, 

মনমোহন সিং সরকারকে ফেলতে কেন এত মরিয়া চেষ্টা তৃণমূল নেত্রীর। প্রশ্ন উঠছে রাজনৈতিক মহলে। সংসদের

শীতকালীন অধিবেশনেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে উঠে পড়ে লেগেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা

বন্দ্যোপাধ্যায়।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার রদবদল: পদত্যাগের ধুম মন্ত্রীদের

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় রদবদলের ঠিক আগের দিনই ইউপিএ-২ সরকারের মন্ত্রীদের মধ্যে পদত্যাগের ধুম পড়ে গেল। শুক্রবারে এস এম কৃষ্ণর পর আজ প্রধানমন্ত্রীর

বাসভবনেলাইন দিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা পদত্যাগপত্র জমা দেওয়া শুরু করে দিয়েছেন। এই পদত্যাগের সমারোহ আসলে ২০১৪-র লোকসভা নির্বাচনের আগেই প্রধানমন্ত্রীকে

ইচ্ছামত মন্ত্রিসভা গুছিয়ে নেওয়ার স্বাধীনতা দিল।