দিঘায় সামুদ্রিক ঢেউয়ের উচ্চতা, জলস্তরের তাপমাত্রার পূর্বাভাস সহ নানা তথ্য এবার হাতের মুঠোয়! দিঘায় সামুদ্রিক ঢেউয়ের উচ্চতা, জলস্তরের তাপমাত্রার পূর্বাভাস সহ নানা তথ্য এবার হাতের মুঠোয়!

সমুদ্র রহস্যময়। কখন কোন ঝড়ঝঞ্ঝা আছড়ে পড়ে, সাইক্লোন-সুনামি ধেয়ে আসে, কে বলতে পারে! তবে পূর্বাভাস থাকলে অবশ্যই এড়ানো যায় বড় ক্ষয়ক্ষতি। বিশেষ করে মত্‍স্যজীবীদের ক্ষেত্রে এই পূর্বাভাসই হয়ে উঠতে পারে জীবন-দান। তেমনই ব্যবস্থা এবার চালু হল দিঘায়। দিঘায় সামুদ্রিক ঢেউয়ের উচ্চতা, দিক নির্দেশ, জলস্তরের তাপমাত্রার পূর্বাভাস সহ নানা তথ্য এবার থেকে হাতের মুঠোয়। এজন্য গভীর সমুদ্রে বসানো হল অত্যাধুনিক একটি বয়া। খরচ হয়েছে প্রায় এক কোটি টাকা। বয়াটি বসিয়েছে কেন্দ্রীয় আর্থ-সায়েন্স মন্ত্রক। সহযোগিতায় দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদ এবং কলকাতার বাসন্তীদেবী কলেজের সমুদ্র গবেষণা বিভাগ।

 তেলে নয় এবার জলে চলবে গাড়ি! ভারতীয় আবিষ্কার! তেলে নয় এবার জলে চলবে গাড়ি! ভারতীয় আবিষ্কার!

গাড়ি তো কিনে ফেলেছেন। কিন্তু তেলের টাকা গুনতে গুনতেই যে পকেট ফাঁকা। রোজই যে দাম বেড়ে যাচ্ছে, তেলের। এবার মুশকিল আসান। কারণ, তেল নয়। একেবারে জলেই চলবে গাড়ি। এমনই গাড়ি আবিষ্কার করে সোশাল মিডিয়ার সাড়া ফেলে দিয়েছেন মধ্যপ্রদেশের রাইজ মহম্মদ মাকরানি। গাড়িটি চলবে জল ও ক্যালসিয়াম কার্বাইডের মিশ্রণে। বহু কারখানায় ক্যালসিয়াম কার্বাইড ব্যবহৃত হয় অ্যাসিটিলিন ও ক্যালসিয়াম সায়ানামাইড উৎপাদনে। সুতরাং ক্যালসিয়াম কার্বাইড ও জল একসঙ্গে মেশানো হলে, অ্যাসিটিলিন গ্যাস উৎপন্ন হবে। যা দিয়েই চলবে ওয়ান্ডার কার। এতে জ্বালানির খরচ কমবে লিটার প্রতি ১০ থেকে ২০ টাকা। যা একইসঙ্গে পরিবেশবান্ধবও বটে। মাত্র ৬ মাস সময়ে এই গাড়িটি তৈরি করেছেন মাকরানি। ইতিমধ্যেই তাঁর আবিষ্কারের পেটেন্টের জন্য আবেদন জানিয়েছেন তিনি। তাঁর এই গাড়ি আবিষ্কারের খবর পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছেও। রাইজ মাত্র টুয়েলভ পাশ। কিন্তু যে অসাধ্য সাধন করেছেন, তাতে অনেক মানুষ যে উপকৃত হবে, তা বলাই বাহুল্য।