কাল রাতে ফাইনালে ওঠার যুদ্ধে চোট হতাশার ব্রাজিল বনাম সেমি ফাঁড়ার জার্মান

Last Updated: Monday, July 7, 2014 - 10:14

----------------------------------
দেশের মাটিতে ফাইনালে খেলার সৌভাগ্য কী দেখাতে পারবে ব্রাজিল? নেইমারকে ছাড়াই কি স্কোলারির দল সেমিফাইনালে বাজিমাত করতে পারবে? নাকি, ২০০২ বিশ্বকাপের ফাইনালে হারের প্রতিশোধ নেবে জার্মানি! নাকি, গত দুটো বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে হারের ধাক্কা কাটিয়ে ১২ বছর পর ফাইনালে উঠতে পারবে ইউরোপের সুপার পাওয়ার এই দেশ।

মঙ্গলবার রাতে (ভারতীয় সময় রাত দেড়টা) ব্রাজিল বনাম জার্মানির সেমিফাইনাল ম্যাচের আগে এই প্রশ্নগুলোই ঘোরাফেরা করছে।

এই ম্যাচ ছাপিয়ে বারবার উঠে আসছে নেইমারের চোট পেয়ে ছিটকে যাওয়ার প্রসঙ্গ। ব্রাজিলের ফুটবলার- কোচ যেখানেই যান না কেন সেই এক প্রশ্ন-আপনার পারবেন নেইমারকে ছাড়া জিততে! এমনিতে চলতি বিশ্বকাপে নেইমারই যে প্রাণভোমরা সেটা সবারই জানা, তবে কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়ার বিরুদ্ধে নেইমারকে ছাড়া মন্দ খেলেনি স্কোলারির দল। সেটাই সবচেয়ে বড় ভরসা সাম্বার দেশের সমর্থকদের কাছে। আর একটা বড় ভরসা হল নেইমার ছিটকে যাওয়ার পর ব্রাজিলিয়ান শিবিরে এককাট্টা মনোভাব। দলের সেরা খেলোয়াড় ছিটকে গেলে অনেকসময়ই দেখা যায় সে দলের অন্য ফুটবলাররা ১০০ শতাংশেরও বেশি দিয়ে দলকে জেতানোর চেষ্টা করেন।

এদিকে, জার্মানির কোচ জোয়াকিম লো যেভাবেই হোক জিততে চান গত দুটো বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে অপ্রাত্যাশিতভাবে হারতে হয় জার্মানি। ২০০৬ নিজেদের দেশে বিশ্বকাপে দুরন্ত ফর্মে থাকা জার্মানি হারে ইতালির কাছে। ২০১০ বিশ্বকাপে স্পেনের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয় ক্লিন্সম্যানের কোচিংয়ে খেলা লাম-বালাকদের। মজার কথা, সেই দুটো বিশ্বকাপেই চ্যাম্পিয়ন হয় জার্মানদের হারানো দেশ।

জার্মানির বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে নেইমারের বিকল্প ফুটবলার খুঁজতেই সময় চলে যাচ্ছে লুই ফিলিপ স্কোলারির। নেইমারকে না পাওয়ার ধাক্কা সামলাতে শেষ চারের ম্যাচে ফর্মেশনে বদল করতে পারেন বিগ ফিল। প্রথম একাদশে সুযোগ পেতে পারেন উইলিয়াম।

ব্রাজিলের ফুটবল ইতিহাসে হয়তো এই প্রথমবার। একজন ফুটবলারের ওপর অতি নির্ভরশিল হয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে নেমেছিল পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। রক্ষণ শক্তিশালী হলেও এই ব্রাজিলের আক্রমণ শুরু ও শেষ নেইমরাকে দিয়েই। তাই ওয়ান্ডার বয়কে বিশ্বকাপের শেষ পর্যায় না পাওয়াটা বিশাল ক্ষতি। জার্মানির বিরুদ্ধে বিগ সেমিফাইনালে এই ক্ষতি সামলাতে কার্যত হিমশিম খাচ্ছেন বিগ ফিল। মুলার, সোয়াইনস্টাইগারদের দৌড় থামাতে শেষ পর্যন্ত স্ট্রাটেজি ও ফর্মেশনে বদল করতে পারেন মাস্টার ট্যাকটিশিয়ান স্কোলারি।

অন্যদিকে, নেইমারের বিকল্প হিসেবে জোড়ালোভাবে উঠে আসছে উইলিয়ামের নাম। প্রথম একাদশে উইলিয়মের সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। হাতে রয়েছে বার্নাডও। তবে এই দুই ফুটবলারের উচ্চতা বেশ কম। অভিজ্ঞতাও বেশি নয়। বড় ম্যাচের চাপ কতটা নিতে পারবেন সন্দেহ থাকছে।

মাঝমাঠের তুলনায় অনেক বেশি অ্যাটাকিং ভূমিকায় দেখা যেতে পারে অস্কারকে। গত বছর কনফেডারেশন কাপে নাম্বার টেন রোলে খেলেছিলেন এই নির্ভরযোগ্য ফুটবলারটি। নেইমার থাকাকালীন অবশ্য অনেকটা পিছন থেকে খেলছিলেন অস্কার।

কার্ড সমস্যা মিটিয়ে জার্মানির বিরুদ্ধে ফিরছেন লুইস গুস্তাভো। তাই বিশেষ কোনও বদল না করে নেইমারের পরিবর্তে শুরু করতে পারেন এই ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারটি। সেক্ষেত্রে প্রথম একাদশে থাকবেন ফার্নান্ডিনহো ও পাউলিনহো।

উইলিয়াম, বার্নাড, রামিরেজ, হার্নানেস। হাতে অনেক নাম থাকলেও এবারের ব্রাজিল দলে নেইমারের বিকল্প ফুটবলার নেই। তাই ফর্মে না থাকা ফ্রেড ও হাল্কের ওপরই বাড়তি ভরসা করতে হচ্ছে স্কোলারিকে।



First Published: Monday, July 7, 2014 - 10:10


comments powered by Disqus