প্রতিবাদের আগুন জোড়াল হচ্ছে বাংলাদেশে, হিংসায় মৃত ৩

জামাত-ই-ইসলামির ডাকা হরতালে হিংসার জেরে বাংলাদেশে সোমবার তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। হরতাল সমর্থকদের আক্রমণ থেকে বাদ যায়নি অ্যাম্বুলেন্সও। শাহবাগের সমাবেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে আন্দোলনকারীদের সংখ্যা।

Updated: Feb 19, 2013, 01:43 PM IST

জামাত-ই-ইসলামির ডাকা হরতালে হিংসার জেরে বাংলাদেশে সোমবার তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। হরতাল সমর্থকদের আক্রমণ থেকে বাদ যায়নি অ্যাম্বুলেন্সও। শাহবাগের সমাবেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে আন্দোলনকারীদের সংখ্যা।
জামাত-এ-ইসলামির ডাকা হরতালের বিরুদ্ধে এভাবেই ক্রমশ তীব্রতর হচ্ছে প্রতিবাদের কণ্ঠ। একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে এ ভাবেই ঢাকায় শাহবাগে চলছে লাগাতার ধরণা।
 
আর এই আন্দোলন এখন ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বাংলাদেশে। চুপ করে বসে নেই জাম-এ-ইসলামি সমর্থকরাও। হরতালের সমর্থনে পথে নেমেছে তারাও। আর তার জেরেই হচ্ছে সংঘর্ষ। বিভিন্ন জায়গায় জামাত সমর্থকদের হামলার শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। রাস্তায় আগুন ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে যানবাহনে। কক্সবাজারে একটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়ফ নামতে গিয়ে মৃত্যু হয় এক ব্যক্তির। হরতাল সমর্থনকারীদের রোষ থেকে বাদ যায়নি অ্যাম্বুলেন্সও। সংঘর্ষ রুখতে পথে নেমেছে পুলিস ও আরএবি লাঠিচার্জ ছাড়াও কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটাতে হয়েছে পুলিসকে। 
 
বাংলাদেশের বিভিন্নপ্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে হিংসার আগুন। কিন্তু, এই হিংসা কোনওভাবেই দমাতে পারেনি আন্দোলনকারীদের। প্রতিনিয়ত বাড়ছে আন্দোলনকারীদের সংখ্যা। জামাতের ডাকা হরতালকে কার্যত তোয়াক্কা না করেই ঢাকা শহরে খোলা ছিল স্কুল, কলেজ এবং সরকারি দফতরগুলি। হরতালকে বানচাল করতে পথে নেমে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। ব্লগার রাজীব হায়দরের খুনের প্রতিবাদেও সরব হয়েছেন আন্দোলনকারীরা। একাত্তরের যুদ্ধপরাধী আজাদের মৃত্যুদণ্ড রদের দাবিতে লাগাতার হরতালের ডাক দিয়েছে জামাত-ই-ইসলামি। অপর অভিযুক্ত আবদুল কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন সাজারও প্রতিবাদে সোচ্চার তাঁরা। এ নিয়ে তাঁরা পাশে পেয়েছে বিএনপি-কে। কিন্তু, সেই দাবিকে কার্যত উড়িয়ে দিয়ে শাহবাগের আন্দোলনকারাদের পাশে দাঁড়িয়েছে আওয়ামি লিগ।