আজমের শাস্তিতে হিংসাত্মক আন্দোলনে জামাত

Last Updated: Monday, July 15, 2013 - 22:59

যুদ্ধাপরাধের জন্য গোলাম আজমের ৯০ বছরের কারাদণ্ডের রায় দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যাল। এই রায় গোষণার পরেই আজ অশান্ত হয়ে হয়ে বাংলাদেশ। দেশজুড়ে হিংসাত্মক আন্দোলনে নেমে পড়ে জামাত সমর্থকেরা। বিভিন্ন এলাকায় ভাঙচুর, অবরোধ, অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। রায়ের প্রতিবাদে আজই দেশজুড়ে হরতালে সামিল হয় জামাত সমর্থকেরা।
হিংসাত্মক ঘটনায় এ পর্যন্ত ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ট্রাইবুন্যালের রায় প্রত্যাখ্যান করেছে ছাত্র ও যুব সংগঠনগুলি। আগামিকার দেশজুড়ে হরতালের ডাক দিয়েছে তারা। সোমবার সকাল থেকেই  ঢাকা সহ বাংলাদেশ জুড়ে হরতালের ডাক দিয়েছিল জামাত। চলে পথ অবরোধ, গাড়ি ভাঙচুর এবং অগ্নি সংযোগ। কুষ্টিয়ায়  গাছ কেটে পথ অবরোধের সময় মিরপুরে গণপিটুনতি দুই জামাত কর্মীর মৃত্যু হয়। চাঁপাই নবাবগঞ্জে পুলিসের সঙ্গে সংঘর্ষে মৃত্যু হয় আরও এক জামাত কর্মীর। সাতক্ষীরায় জামাত শিবিরের হামলায় মৃত্যু হয়েছে আওয়ামী লিগের এক নেতার। সাতক্ষীরায় বেশ কয়েকটি জায়াগায় পথ অবরোধ করে জামাত কর্মীরা। একটি গাড়ি ভাঙচুর করে এবং আগুন লাগিয়ে দেয় একটি মালবাহী ট্রাকে।  পুলিসেকে লক্ষ্য করে ছোড়া হয় হাতাবোমা। অবরোধ হয় চট্টগ্রাম, শিলেট, বরিশাল, ফেনি, সিরাজগঞ্জ সহ বিভিন্ন এলাকায়।
 
অন্যদিকে ট্রাইবুন্যালের রায় প্রত্যাখ্যান করে মঙ্গলবার দেশজুড়ে হরতালের ডাক দিয়েছে যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে আন্দোলনরত যুব-ছাত্র সংগঠনগুলি। গোলাম আজমের নব্বই বছরে কারাদণ্ডের রায় প্রত্যাখ্যান করেছে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। নতুন করে তারা অবস্থান শুরু করে শাহবাগ মোড়ে। মঞ্চের তরফে জানানো হয়েছে, যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত শাহবাগের প্রজন্ম চত্বরে অবস্থান চলবে। অবস্থানের মধ্যেই শাহবাগ চত্বরে একটি হাতবোমা ছোড়া হয়। ট্রাইবুন্যালের রায়ে খুশি নন মুক্তিযোদ্ধারাও। রায় ঘোযণার পর বিক্ষোভ দেখান তাঁরাও। গোলাম আজমের ফাঁসি না হওয়ায় তীব্র প্রতিবাদ করেছেন তাঁরা।
 
তবে আদালতের রায়ে তাঁরা সন্তুষ্ট বলে জানিয়েছেন আওয়ামি লিগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।
 



First Published: Monday, July 15, 2013 - 22:59


comments powered by Disqus