"লস্কর, হক্কানিদের দিয়ে ছায়াযুদ্ধ চালাচ্ছে পাকিস্তান"

Last Updated: Friday, September 30, 2011 - 21:53

লস্কর এ তৈবা এবং হক্কানি গোষ্ঠীর সন্ত্রাসবাদীদের ব্যবহার করছে পাক গোয়েন্দা সংস্থা। আর, সেনা প্রধান আশফাক পরভেজ কিয়ানি পিছন থেকে কলকাঠি নাড়ছেন। পাক সেনাবাহিনী ও আইএসআই-এর বিরুদ্ধে ফের তোপ দাগলেন মার্কিন সেনাকর্তা মাইক মুলেন। তাঁর অভিযোগ, অর্থ ও আশ্রয় দিয়ে হক্কানি গোষ্ঠীকে অবাধ কাজকর্মের সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। কিয়ানি-কে পাকিস্তানের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ব্যক্তি বলেও চিহ্নিত করেছেন মুলেন। ওয়াশিংটন-ইসলামাবাদের সম্পর্ক ক্রমশ তিক্ত হচ্ছে। হক্কানি গোষ্ঠীর সঙ্গে পাক গোয়েন্দা সংস্থার যোগাযোগের কথা তুলে আগেই বিতর্ক বাড়িয়েছিলেন মাইক মুলেন। পাকিস্তানের তরফ থেকে তীব্র প্রতিক্রিয়া আসায় উত্তেজনা প্রশমনে উদ্যোগী হয় মার্কিন বিদেশ দফতর। এসবের মধ্যেই ফের তোপ দাগলেন আমেরিকার জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফের চেয়ারম্যান। গত আড়াই বছরে প্রায় তিরিশ বার পাক সেনা প্রধান কিয়ানির সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি। আমেরিকার ন্যাশনাল পাবলিক রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে মুলেন বলেছেন, কিয়ানিই পাকিস্তানে সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ব্যক্তি। সেনাপ্রধানকে সবচেয়ে ক্ষমতাশালী বলে মন্তব্য করে একদিকে তিনি পাকিস্তানের ব্যর্থ গণতন্ত্রের দিকে ইঙ্গিত করেছেন। অন্যদিকে, অভিযোগ করেছেন, নিজের স্বার্থে লস্কর ও হক্কানি গোষ্ঠীর সন্ত্রাসবাদীদের ব্যবহার করে চলেছে পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই। সরকারি বাহিনীর পক্ষে যা সবসময় করা যায় না, সন্ত্রাসবাদীদের সাহায্যে তাই-ই করতে চাইছে পাকিস্তান। আর সেকথা দুহাজার আটেই তিনি পাকিস্তানের সেনা আধিকারিক ও রাজনৈতিক নেতাদের বলেছিলেন বলে জানান মুলেন। কাশ্মীর সমস্যার দিকে নজর ঘোরাতেই লস্করের জন্ম হয়েছে বলেও জানান তিনি। পাক সেনা প্রধান কি ভারতের সঙ্গে শান্তি চান। প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গেয়ে বিদায়ী মার্কিন সেনাকর্তার মন্তব্য, কিয়ানি তাঁর দেশের পূর্ব ও পশ্চিম দুই সীমান্তকেই সুরক্ষিত রাখতে চান। ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের ক্ষেত্রে কাশ্মীর একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু বলেও রেডিও সাক্ষাত্কারে মন্তব্য
করেছেন তিনি।



First Published: Friday, September 30, 2011 - 21:53


comments powered by Disqus