বাংলাদেশে নতুন করে অশান্তির আশঙ্কা, রবিবার থেকে তিনদিনের হরতালের হুমকি খালেদা জিয়ার

Last Updated: Saturday, October 26, 2013 - 21:51

বাংলাদেশে নতুন করে অস্থিরতার আশঙ্কা। রবিবার থেকে তিনদিনের হরতালের হুমকি দিয়েছেন প্রধান বিরোধী নেত্রী খালেদা জিয়া। তদারকি সরকারের অধীনে সাধারণ নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে তাঁর দল বিএনপি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাবে রাজি নন খালেদা জিয়া। বুদ্ধিজীবী মহলের মতে,দুই নেত্রীর সংঘাত কোনওদিনই মিটবে না। ভোটের আগে আরও তীব্র হবে বাংলাদেশের রাজনৈতিক বিভাজন।
ক্ষমতায় এসেই সংবিধান সংশোধন করেন আওয়ামি লিগ নেত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশে নির্বাচিত সরকারের মেয়াদ শেষে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করে নির্বাচন পরিচালনার রীতির অবসান ঘটান তিনি। তদারকি সরকারের বদলে নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে ভোট পরিচালনার নিয়ম চালু করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এই বদল একেবারেই মনঃপুত হয়নি বিরোধী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার। নির্বাচনের সময়ে তদারকি সরকার গঠনের দাবিতে সরব হয় বিএনপি সহ ১৮ দলের জোট। শুক্রবার ঢাকার সমাবেশে এই দাবি নিয়ে সরকারকে আলোচনায় বসার দাবি জানান বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া।
সরকার আলোচনায় বসতে রাজি না হলে রবিবার থেকে টানা তিনদিনের হরতালের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। এমনকী তাতে কাজ না হলে লাগাতার আন্দোলনের কথাও ঘোষণা করেছেন বিরোধী নেত্রী। এই ইস্যুকে ঘিরে বাংলাদেশের শাসক দল আওয়ামি লিগ ও বিরোধী বিএনপির মধ্যে সংঘাতের সম্ভাবনা ক্রমেই বাড়ছে। তবে বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশের মতে এই লড়াইয়ের কারণ আরও গভীর।
জানুয়ারি মাসে বাংলাদেশে সাধারণ নির্বাচনের সম্ভাবনা। ভোটের দিন যত এগোবে দেশের পরিস্থিতি আরও অস্থির হয়ে উঠবে বলেই মনে করছেন অনেকে। শুক্রবারের সমাবেশকে ঘিরে ঢাকায় রাজনৈতিক উত্তাপ না ছড়ালেও সারা দেশে ছজনের মৃত্যু হয়েছে। বিএনপির সঙ্গী জামাত সহ আরও কয়েকটি দল ধবংসাত্মক আন্দোলনে বিশ্বাসী।  ফলে নির্বাচনের আগে রক্তক্ষয়ের আশঙ্কাও বাড়ছে। বিরোধী দলের ক্ষোভ প্রশমনে জাতির উদ্দেশে ভাষণে শেখ হাসিনা সর্বদলীয় মন্ত্রিসভা গঠনের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সর্বদলীয় মন্ত্রিসভার অধীনে নির্বাচন পরিচালনার সেই প্রস্তাব উড়িয়ে দিয়েছে বিএনপি সহ আঠের দলের জোট। বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশ মনে করে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আমরা-ওরা বিভাজন বড়ই প্রকট। শেখ হাসিনা এবং বেগম খালেদা জিয়ার মধ্যে মতাদর্শগত ফারাক এতটাই বেশি যে দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রেও নূন্যতম সহমত গড়ে ওঠার আশা কম।
 



First Published: Saturday, October 26, 2013 - 21:51


comments powered by Disqus