প্রেসিডেন্ট বাছতে ফের ভোট মিশরে

Last Updated: Wednesday, May 23, 2012 - 11:50

যুযুধান ১৩ জন প্রার্থীর মধ্যে কেউ জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ৫০ শতাংশ ভোট না পাওয়ার দ্বিতীয়বার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হবে মিশরে। আগামী ১৬ এবং ১৭ জুন অনুষ্ঠিতব্য দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে মুখোমুখি লড়াই হবে মুসলিম ব্রাদারহুড নেতা মহম্মদ মুরসি এবং হোসনি মুবারক জমানার শেষ প্রধানমন্ত্রী আহমেদ শফিকের মধ্যে। কারণ, বুধবার হওয়া নির্বাচনে প্রথম ও দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন এই দুই প্রার্থী।
বুধবার মিশরের প্রেসিডেন্ট ভোটের উল্লেখযোগ্য প্রার্থীদের মধ্যে ছিলেন আরব লিগের প্রাক্তন সচিব তথা প্রাক্তন শীর্ষস্তানীয় কূটনীতিক আমর মুসা, ক্ষমতাচ্যূত প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারকের আমলের শেষ প্রধানমন্ত্রী আহমেদ শফিক, মুসলিম ব্রাদারহুডের নেতা মহম্মদ মুরসি এবং তাহরির স্কোয়্যার আন্দোলনের অগ্রণী সংগঠক তথা ইসলামিস্ট মুভমেন্ট-এর প্রাক্তন নেতা আবদেল মোনেম আবুল ফোতয়া। প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বিতা সীমাবদ্ধ ছিল ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিয়নিয়রিং বিভাগের প্রাক্তনী মহম্মদ মুরসি এবং মিশরের বিমানবাহিনীর প্রাক্তন প্রধান তথা মুবারক জমানার অন্তিম সময়ে সামান্য দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া আহমেদ শফিকের মধ্যে। প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হলে নীল নদের তীরে 'দ্বিতীয় আরব বসন্ত' আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন শফিক। দেশের আমজনতার কাছে সেই অঙ্গীকার যে যথেষ্ট গ্রহণযোগ্য হয়েছে, ভোটের ফলাফলেই তা পরিষ্কার।
প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মুবারকের পতনের পর মিশরে ক্ষমতার রাশ ছিল সেনা কর্তৃপক্ষের হাতে। দেশে গণতন্ত্র আনার প্রতিশ্রুতি দেন তাঁরা। কিন্তু, সে কাজে দেরি হওয়ায় শুরু হয় গণবিক্ষোভ। মুবারক জমানায় বিক্ষোভের প্রধান কেন্দ্র তাহরির স্কোয়্যার ফের ভরে উঠতে থাকে পরিবর্তনকামী জনতার ভিড়ে। বহু বাধা বিঘ্ন কাটিয়ে অবশেষে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে গণতন্ত্রের প্রথম ধাপের স্বাদ পায় মিশরের আম-জনতা। জাতীয় আইনসভার দুই কক্ষের নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জয়ী হয় মুবারক জমানার প্রধান বিরোধী শক্তি মুসলিম ব্রাদারহুড। জুন মাসের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও নিশ্চিতভাবেই পাল্লা ভারী দলের নেতা মুরসির।



First Published: Saturday, May 26, 2012 - 15:36


comments powered by Disqus