বক্সিং-ডে কে মনে করাল আতঙ্কের ভূমিকম্প

বুধবার দুপুরে ইন্দোনেশিয়ার উত্তর সুমাত্রার পশ্চিম উপকূলে ভূমিকম্পের জেরে সুনামি আতঙ্ক ছড়ায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। এরপর একের পর এক আফটার শক সেই আতঙ্ককে আরও বাড়িয়ে তোলে। রাতে সুনামি সতর্কতা প্রত্যাহার হয়ে যাওয়ায় স্বস্তি ফেরে। এখনও পর্যন্ত ভূমিকম্পের জেরে ক্ষয়ক্ষতি বা প্রাণহানির কোনও খবর মেলেনি।

Updated: Apr 12, 2012, 08:37 AM IST

বুধবার দুপুরে ইন্দোনেশিয়ার উত্তর সুমাত্রার পশ্চিম উপকূলে ভূমিকম্পের জেরে সুনামি আতঙ্ক ছড়ায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। এরপর একের পর এক আফটার শক সেই আতঙ্ককে আরও বাড়িয়ে তোলে। রাতে সুনামি সতর্কতা প্রত্যাহার হয়ে যাওয়ায় স্বস্তি ফেরে। এখনও পর্যন্ত ভূমিকম্পের জেরে ক্ষয়ক্ষতি বা প্রাণহানির কোনও খবর মেলেনি।
মুহূর্তে চোখের সামনে ভেসে উঠেছিল ২০০৪-এর স্মৃতি। সে বার আকাশছোঁয়া একের পর এক ঢেউ ভাসিয়ে নিয়ে গিয়েছিল ভারত মহাসাগরের ১৩টি দেশের আড়াই লক্ষেরও বেশি মানুষের প্রাণ। যার মধ্যে শুধু ইন্দোনেশিয়ার আচে প্রদেশেই মৃত্যু হয়েছিল ১ লক্ষ ৭০ হাজার মানুষের। সেই বিপর্যয়ের স্মৃতি উস্কে বুধবার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল ভারত মহাসাগর সংলগ্ন ২১টি দেশ। ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, তাইল্যান্ড, মালদ্বীপ, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ওমান, ইরান, ইয়েমেন, কেনিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, মোজাম্বিক, তানজানিয়া এবং লন্ডন-সহ আরও কয়েকটি দেশে ভূমিকম্প অনুভূত হয়। বুধবারের কম্পনের উত্‍সস্থল ছিল সেই ইন্দোনেশিয়ারই উত্তর সুমাত্রার পশ্চিম উপকূল। ভূপৃষ্ঠ থেকে ৩৩ কিলোমিটার গভীরে। রিখটার স্কেল বলছে, ২০০৪ সালের ৯.১-এর তুলনায় এবার কম্পনের মাত্রা কিছুটা কম, ৮.৭। আশপাশ দুলে উঠতেই এবার আর দেরি করেননি ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দারা। বাড়ি থেকে বেরিয়ে কেউ খুঁজেছেন উঁচু জায়গা, কেউ আবার আপনজনদের নিয়ে জড়ো হয়েছেন বান্দা আচের একটি মসজিদের বাইরে।

অযথা আতঙ্কিত না-হওয়ার প্রশাসনিক সতর্কতা ফেরাতে পারেনি স্বস্তি। সুনামির আতঙ্কে বন্ধ হয়ে গেছে একের পর এক দোকানের ঝাঁপি। আচে প্রদেশের সবচেয়ে কাছের দ্বীপপুঞ্জে মাত্র এক মিটার উচ্চতায় ওঠা ঢেউ দেখেও আতঙ্ক কাটাতে পারেননি মানুষ। সেই আতঙ্ক কয়েকগুণ বাড়িয়ে  দেয় কম্পনের ২ ঘণ্টা পরের আফটারশক। রিখটার স্কেলে যার মাত্রা ছিল ৮.২। আফটার শকের জেরে কয়েকটি দেশে নতুন করে সতর্কতা জারি করা হয়। শ্রীলঙ্কার উপকূল এলাকা থেকে উঁচু জায়গায় সরে যাওয়ার জন্য বাসিন্দাদের নির্দেশ দেয় শ্রীলঙ্কা প্রশাসন। মালদ্বীপও সমুদ্র উপকূলবর্তী বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়। সমুদ্রতট থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয় পর্যটকদেরও। তবে সব জল্পনা ও আতঙ্কের অবসান ঘটিয়ে রাতে সুনামি সতর্কতা প্রত্যাহার করে নেয় প্যাসিফিক সুনামি ওয়ার্নিং সেন্টার। স্বস্তির শ্বাস নেয় ইন্দোনেশিয়াসহ ২১টি দেশ।