শ্রীলঙ্কা গণহত্যার অভিযোগ অস্বীকার সেনাপ্রধানের

এলটিটিই নির্মূল অপারেশনের সময় শ্রীলঙ্কা সেনার বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ অস্বীকার করলেন তত্কালীন সেনাপ্রধান শরথ ফনসেকা। বিষয়টি নিয়ে তদন্তের মুখোমুখি হতেও প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন তিনি। এ দিকে, আজই রাষ্ট্রসংঘে পেশ হচ্ছে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রস্তাব।

Updated: Mar 21, 2013, 10:34 AM IST

এলটিটিই নির্মূল অপারেশনের সময় শ্রীলঙ্কা সেনার বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ অস্বীকার করলেন তত্কালীন সেনাপ্রধান শরথ ফনসেকা। বিষয়টি নিয়ে তদন্তের মুখোমুখি হতেও প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন তিনি। এ দিকে, আজই রাষ্ট্রসংঘে পেশ হচ্ছে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রস্তাব।
একটি পশ্চিমী টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত এক তথ্যচিত্রে শ্রীলঙ্কায় তামিলদের ওপর বর্বরোচিত নির্যাতনের অভিযোগ করা হয়েছিল। যার নিন্দায় আলোড়ন পড়ে যায় বিশ্বজুড়ে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই বৃহস্পতিবার প্রস্তাব পেশ হবে রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার পরিষদে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তদারকিতে তৈরি হয়েছে এই প্রস্তাব। প্রস্তাবে শ্রীলঙ্কা সেনার বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে তদন্তের সুপারিশ করা হয়েছে।
তাত্পর্যপূর্ণ ভাবে এই প্রস্তাবে তদন্তের জন্য শ্রীলঙ্কা সরকারের কাছেই সুপারিশ করা হয়েছে। দেশের তামিল অধ্যুষিত উত্তরাঞ্চলে নির্বাচন করানোর যে সিদ্ধান্ত শ্রীলঙ্কা সরকার নিয়েছে রাষ্ট্রসংঘে পেশ হতে চলা প্রস্তাবে তাকেও স্বাগত জানানো হয়েছে। এমনকী যুদ্ধপীড়িতদের পুনর্বাসনে শ্রীলঙ্কা সরকারের ভূমিকারও প্রশংসা করা হয়েছে। এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করে ডিএমকে দাবি, শ্রীলঙ্কা সেনা ও সরকারের বিরুদ্ধে আনা হোক গণহত্যার অভিযোগ। যদিও, সেই অভিযোগ মানতে নারাজ, তামিল অপারেশনের সময় শ্রীলঙ্কার সেনাপ্রধান শরথ ফনসেকা।
ফনসেকা জানিয়েছেন তিনি নিরপেক্ষ তদন্তের মুখোমুখি হতেও প্রস্তুত।
বর্তমান পরিস্থিতির জন্য শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি মাহিন্দা রাজাপক্ষের ভুল পররাষ্ট্রনীতিকেই দায়ী করেছেন ফনসেকা। এ দিকে, শ্রীলঙ্কা সরকার ও সেনার শাস্তির দাবিতে বুধবারও তামিলনাড়ুর বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।