পথ চলতিদের বিনামূল্যে `জাদু কি ঝাপ্পি` দিতে গিয়ে জেলে গেলেন দুই সৌদি যুবা

রূপোলী পর্দার ``জাদু কি ঝাপ্পি``-তে আট থেকে আশি বিগলিত হলেও বাস্তবে তার প্রয়োগ করতে গিয়ে মহা বিপত্তিতে পড়লেন সৌদি আরবের দুই যুবক। পথ চলতি মানুষজনকে বিনামূল্যে আলিঙ্গন উপহার দিতে গিয়ে সৌদির ধর্মীয় পুলিসের চক্ষুশূল হতে হল তাঁদের। ফলাফল? আপাতত শ্রীঘরের হাওয়া খাচ্ছেন দু`জনে।

Updated: Nov 22, 2013, 09:29 PM IST

রূপোলী পর্দার ``জাদু কি ঝাপ্পি``-তে আট থেকে আশি বিগলিত হলেও বাস্তবে তার প্রয়োগ করতে গিয়ে মহা বিপত্তিতে পড়লেন সৌদি আরবের দুই যুবক। পথ চলতি মানুষজনকে বিনামূল্যে আলিঙ্গন উপহার দিতে গিয়ে সৌদির ধর্মীয় পুলিসের চক্ষুশূল হতে হল তাঁদের। ফলাফল? আপাতত শ্রীঘরের হাওয়া খাচ্ছেন দু`জনে।
সৌদি আরবের গোঁড়া মুসলিম সমাজে এক পা এদিক ওদিক হলেই তেড়ে আসেন ধর্মগুরুরা। সেখানে প্রকাশ্য রাস্তায় আলিঙ্গন বিতরণ যে `অপরাধের` চোখে দেখা হবে তা বলাই বাহুল্য। সৌদির তাহিলা স্ট্রিটে হাতে `ইংরাজিতে লেখা ফ্রি হাগ` ব্যানার নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন ওই দুই যুবক।
এই `ফ্রি হাগ` বস্তুত একটি আন্দোলনের প্রচার বিশেষ। কোনও বড় শহরের রাস্তায় দাঁড়িয়ে অপরিচিতদের আলিঙ্গন করা এই প্রচারের মূল লক্ষ্য। এই আন্দোলনের প্রচারকরা মনে করেন বিনামূল্যে আলিঙ্গনের মাধ্যমে সৌহার্দ্য বিনিময় করা। অপরিচিতদের জীবনে একটু হঠাৎ আনন্দের ছোঁয়া দিয়ে যাওয়া।
এই দুই যুবকের গ্রেফতারের পর সৌদি জুড়ে বিতর্কের ঝড় বয়ে যাচ্ছে। এক পক্ষ যখন দু`জনের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে অন্য পক্ষ তখন `ফ্রি হাগ` প্রচারের তীব্র বিরোধিতা করছে।
বিরোধীরা বলছেন ``এরপর রাস্তায় বিনামূল্যে চুমু দেওয়া হবে, দু`দিন পর ফ্রি সেক্সের আহ্বান জানানো হবে।``
সৌদির ঘটনা প্রমাণ করল, সবসময় `ঝাপ্পি` সমস্যার সমাধান করে না। ডেকে আনতে পারে অযাচিত বিপদও। অতএব সাবধান...