পৃথিবীর উচ্চতম বিল্ডিংয়ের বাজ পড়ার ছবি দেখে বিষ্মিত দুনিয়া

মানব সভ্যতার গগণচুম্বি সাফল্যে প্রকৃতির `গগণভেদি` চিত্‍কার। সঙ্গে আলোর মায়াবি খেলা। যেটা ফ্রেমবন্দী হওয়ার পর নৈস্বর্গিক সৌন্দর্য্যলাভ করল বিশ্ববাসী।

Updated: Feb 19, 2014, 02:58 PM IST

মানব সভ্যতার গগণচুম্বি সাফল্যে প্রকৃতির `গগণভেদি` চিত্‍কার। সঙ্গে আলোর মায়াবি খেলা। পারফেক্টড টাইমিংয়ে যেটা ফ্রেমবন্দী হওয়ার পর নৈস্বর্গিক সৌন্দর্য্যলাভ করল বিশ্ববাসী।

দুবাইয়ের বুর্জ খালিফা পৃথিবীর সবথেকে উচ্চতম বিল্ডিং নামে পরিচিত। সেই আকাশ ছোঁয়া বিল্ডিংয়ের চূড়ায় আলোর ঝলকানি দেখে চমকে উঠেছে বিশ্ববাসী।

গত সপ্তাহে প্রবল ঝড়-জল রাতে চিত্রগ্রাহক মাইকেল শেনব্লাম (Michael Shainblum), ব্রায়ান হকিন্সের ক্যামেরা নিয়ে অপেক্ষায় ছিলেন এমন একটা দৃশ্যের। কিন্তু কিছুতেই সেটা হচ্ছিল না। দেড় ঘণ্টা অপেক্ষার পর অসম্ভব ধৈর্য্যের পর দুনিয়া পেল অন্যতম সেরা ছবি।

গত ১২ ফেব্রুয়ারির রাতে দুবাইয়ের বে এরিয়াতে কালো মেঘে ছেয়ে যায়। তত্ক্ষনাত্ প্রবল ঝড় বৃষ্টি ধেয়ে আসে। চারিদিকে আলোর শিরা উপশিরা জড়িয়ে ধরে খালিফা বিল্ডিংয়ের চূড়াকে। তিনি নিজেও স্তম্ভিত হয়ে পডেন তাঁর ক্যামারায় এমন ছবি দেখে। তিনি জানিয়েছেন, অঝোর ঝড়ে বৃষ্টি হওয়ার জন্য ৪ ঘণ্টা ধরে অপেক্ষা করছিলেন। হাতে ক্যাননের 5D Mark III DSLR ক্যামেরা। সময় কাটানোর জন্য আশপাশের বৃষ্টি ভেজা শহরের ছবি তুলছেন। কিন্তু আচমকা এমন বজ্র বিদ্যুতের ঝলকানি সাড়া আকাশকে ছেয়ে ফেলবে আর খালিখার শিখরে বিদ্যুত ছটা ঠিকরে বেরবে, স্বপনেও ভাবতে পারেন নি। আজ তার এই স্বপনের ছবি, স্বপ্নের ক্লিক বিশ্বে সাড়া ফেলে দিয়েছে। তিনি জানিয়েছেন এই ছবিটি ১০০ শতাংশ সত্যি। এই ছবিতে কোনও সফটওয়ারে কারুকার্য করা হয়নি।

গত ১২ ফেব্রুয়ারির রাতে দুবাইয়ের বে এরিয়াতে কালো মেঘে ছেয়ে যায়। তত্ক্ষনাত্ প্রবল ঝড় বৃষ্টি ধেয়ে আসে। চারিদিকে আলোর শিরা উপশিরা জড়িয়ে ধরে খালিফা বিল্ডিংয়ের চূড়াকে।