ঐশ্বর্য, অভিজ্ঞান হেফাজত, শিশুকল্যাণের দ্বারস্থ মা

Last Updated: Friday, November 9, 2012 - 12:09

নতুন বিতর্ক দেখা দিল ঐশ্বর্য, অভিজ্ঞানের হেফাজত নিয়ে। নরওয়ে থেকে ফেরার পর কুলটিতে পৈতৃক বাড়িতে থাকত তারা। মা সাগরিকা চক্রবর্তীর সঙ্গে থাকতে দেওয়া হয়নি তাঁদের। সাগরিকা এখন অভিযোগ এনেছেন, কুলটির বাড়িতে ঠিক মতো দেখাশোনা হচ্ছে না তার সন্তানদের। এই অভিযোগে শিশু কল্যান কমিটির দ্বারস্থ হয়েছেন সাগরিকা। শিশু কল্যান কমিটি নির্দেশ দিয়েছে মায়ের কাছেই থাকা উচিত ছোট্ট অভিজ্ঞান, ঐশ্বর্যর।
সাগরিকার বক্তব্য ছিল অভিজ্ঞান, ঐশ্বর্যকে এখনও কোনও স্কুলে ভর্তি করা হয়নি। যদিও ভট্টাচার্য পরিবারের তরফে বলা হয়েছে কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিত্সা চলছে অভিজ্ঞানের। হাসপাতালের নির্দেশ অনুযায়ী অভিজ্ঞানকে চিকিত্সা শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কোনও স্কুলে ভর্তি করাননি তাঁরা। এদিকে শিশুকল্যাণ কমিটি মনে করছে অভিজ্ঞানের স্বাভাবিক বিকাশের জন্য তার এই মুহূর্তে সমবয়সী শিশুদের সঙ্গে সময় কাটানো উচিত। এমনকী কুলটির বাড়ির পরিবেশের থেকে সাগরিকার বিরাটির ফ্ল্যাটের পরিবেশ শিশু দুটির থাকার পক্ষে বেশি উপযুক্ত বলেও মনে করছে শিশুকল্যাণ কমিটি। ফলে ব্যাপারটি সুরাহা করতে ঐশ্বর্য, অভিজ্ঞানকে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে শিশুকল্যাণ কমিটি। সেই নির্দেশ নিয়ে কুলটি থানায় যায় স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি। কিন্তু সংস্থার  অভিযোগ, থানা সহযোগিতা করেনি। যদিও কুলটি থানার পুলিস জানিয়েছে, বিষয়টি আদালতের বিচারাধীন। এছাড়া নরওয়ে এবং ভারতের মধ্যে চুক্তি রয়েছে। ফলে শিশুকল্যাণ কমিটির নির্দেশিকার ভিত্তিতে থানার পক্ষে কিছু করা সম্ভব নয়।
সন্তানদের সঠিক দেখভাল হচ্ছে না এই অভিযোগে ছোট্ট ঐশ্বর্য আর অভিজ্ঞানকে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছিল নরওয়ে সরকার। এরপর অনেক আইনি জটিলতা পেরিয়ে চলতি বছরের ২৮ এপ্রিল নরওয়ে সরকার তাদের কাকা অরুণাভাস ভট্টাচার্যের হাতে তুলে দেয় শিশু দুটিকে। শর্ত ছিল শিশু দুটিকে যেন কোনওভাবেই তাদের মায়ের হেফাজতে না রাখা হয়। সেই নির্দেশ মতোই দেশে ফিরে আসার পর কুলটিতে ঠাকুর্দা-ঠাকুমার কাছেই রয়েছে ঐশ্বর্য, অভিজ্ঞান। সেখানে ঠাঁই হয়নি তাঁদের মায়ের। সেই অভিযোগেই শিশু কল্যান কমিটির দ্বারস্থ হন সাগরিকা। ঐশ্বর্য-অভিজ্ঞানের হেফাজত নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন ওঠায় উদ্বিগ্ন তাদের পরিবার।



First Published: Friday, November 9, 2012 - 12:09


comments powered by Disqus