আসানসোলের গণধর্ষণ `সাজানো`, মন্তব্য শঙ্কুদেবের

Last Updated: Saturday, October 13, 2012 - 10:15

ফের গণধর্ষণের অভিযোগকে 'সাজানো ঘটনা' বলে মন্তব্য করলেন এক তৃণমূল নেতা। আসানসোলে কলেজের ইউনিয়ন রুমে ছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় এমনটাই দাবি করলেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদ নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডা। ঘটনায় মূল অভিযু্ক্ত কলেজের এক টিএমসিপি নেতা তথা ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক শাম্ব মণ্ডল। কিন্তু তাঁর সদস্যপদ ঘিরে তৃণমূলের তরফে পরস্পরবিরোধী মন্তব্যের জেরে প্রশ্ন উঠছে, অভিযুক্তকে আড়াল করতেই কি ঘটনাটিকে 'সাজানো' বলছে শাসক দল? সেইসঙ্গে, আসানসোলের কলেজের ওই ঘটনায় অভিযুক্ত হিসাবে নাম জড়াল আরও এক ছাত্রীর। তাঁর নাম শোভনা দাস। অন্যতম প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে মিথিলেশ ওঝা নামে বহিরাগত এক ব্যক্তির নামও উঠে এসেছে।
অভিযোগ সত্যি প্রমানিত হলে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ নেতা শাম্ব মণ্ডলের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়। তৃণমূল বিধায়ক শাস্তির কথা বললেও অভিযুক্ত ছাত্রের পক্ষেই সওয়াল করেছেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডা। ঘটনাটিকে 'সাজানো' বলে তাঁর মন্তব্যের কড়া নিন্দা করেছে বাম ছাত্র সংগঠন এসএফআই। দোষীদের অবিলম্বে উপযুক্ত শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন তাঁরা। একই ভাবে ঘটনার সমালোচনায় সরব হয়েছেন ছাত্র পরিষদের বর্ধমান জেলার সভাপতি সঞ্জয় সুকুল।
আসানসোলের এই পলিটেকনিক কলেজের ইউনিয়ন রুমে সেদিন মদের আসর বসে। পার্টির নাম করে ওই ছাত্রীকে ইউনিয়ন রুমে ডেকে নিয়ে যায় শাম্ব মণ্ডল ও তাঁর সঙ্গীরা। এরপর ঠাণ্ডা পানীয়ের সঙ্গে মাদক খাইয়ে ওই ছাত্রীকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। মোবাইলে অশ্লীল ছবি তুলে রাখা হয়। ঘটনার পর ছাত্রীকে বাড়ির কাছে জঙ্গলে ফেলে দিয়ে যায় অভিযুক্তরা। মোবাইলের ছবি ফাঁসের হুমকি দেখিয়ে ছাত্রীর মুখ বন্ধ রাখা হয়।
পার্ক স্ট্রিট গণধর্ষণ কাণ্ডের পর মুখ্যমন্ত্রী গোটা ঘটনাকেই সাজানো ঘটনা বলে মন্তব্য করেছিলেন। এবার সেই মন্তব্য শোনা গেল তৃণমূল ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতির মুখে। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তৃণমূল ছাত্র পরিষদের মদতে দীর্ঘদিন ধরেই আসানসোলের ওই পলিটেকনিক কলেজে  অসামাজিক কাজকর্ম চলছে বলে অভিযোগ জানিয়েছে এসএফআই। দোষীদের শাস্তি না হলে আগামী দিনে বড় আন্দোলনে নামারও হুঁশিয়ারি দিয়েছে তাঁরা।



First Published: Saturday, October 13, 2012 - 17:43
comments powered by Disqus