শিবপুর লঞ্চঘাটের ঘটনায় অভিযুক্তদের কড়া শাস্তি দিল বেসু

শৃঙ্খলাভঙ্গ যে কোনও ভাবে বরদাস্ত করা হবে না, তা আরও একবার স্পষ্ট করে দিল শিবপুর বেঙ্গল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সায়েন্স ইউনিভার্সিটি (বেসু)। শিবপুর লঞ্চঘাটে পুলিসকর্মীদের মারধর ও মহিলাকে কটূক্তি করার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রদের মধ্যে একজনকে সারা জীবনের জন্য ও বাকি ২ জনকে দু`বছরের জন্য বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিল বেসু।

Updated: Apr 17, 2012, 06:53 PM IST

শৃঙ্খলাভঙ্গ যে কোনও ভাবে বরদাস্ত করা হবে না, তা আরও একবার স্পষ্ট করে দিল শিবপুর বেঙ্গল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সায়েন্স ইউনিভার্সিটি (বেসু)। শিবপুর লঞ্চঘাটে পুলিসকর্মীদের মারধর ও মহিলাকে কটূক্তি করার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রদের মধ্যে একজনকে সারা জীবনের জন্য ও বাকি ২ জনকে দু`বছরের জন্য বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিল বেসু। গত ১২ এপ্রিল রাতে শিবপুর লঞ্চঘাটে পুলিস কর্মীদের মারধর ও মহিলাকে কটূক্তি করার ঘটনায় অভিযুক্ত চতুর্থবর্ষের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং -এর ছাত্র মন্টু প্রসাদকে সারা জীবনের জন্য বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
একইসঙ্গে চতুর্থবর্ষের আরও ২ ছাত্র, রাহুল তিওয়ারি ও দীপক কুমারকে ২ বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এই দু‍`জনকে সারা জীবনের জন্য হস্টেল থেকেও বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়াও ওই দিনের ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে আরও ৬ জন চতুর্থ বর্ষের ছাত্রকে শেষ ৩টি পত্রের পরীক্ষায় বসতে পারবেন না। এই ৬ জন ছাত্র কোনও দিনই আর হস্টেলেও থাকতে পারবেন না বলে জানিয়েছে বেসু কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি এঁদের অভিভাবকদের দেখা করতে বলা হয়েছে।
পুলিসকর্মীদের মারধরের ঘটনায় আরও ৯ ছাত্রের অভিভাবকদের দেখা করে মুচলেকা দিতে বলা হয়েছে।  মন্টু প্রসাদ, রাহুল তিওয়ারি ও দীপক কুমার কিছুদিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে বেরিয়ে মাদক সেবন করতেন বলেও তদন্তে জানা গেছে। গোটা ঘটনার তদন্তের জন্য মোট ৫ সদস্যের কমিটি তৈরি করেছিল বিশ্ববিদিযালয় কর্তৃপক্ষ। সোমবার কমিটি রিপোর্ট জমা দেয়। কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, মোট ১৮ জন ছাত্রের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিল কর্তৃপক্ষ।