চিটফান্ড তদন্তে সিবিআইই বিকল্প, শাস্তির দাবি বুদ্ধদেবের

চিটফান্ড কেলেঙ্কারিকে রাজ্যের `বৃহত্তম বিপদ` মন্তব্য করে সিবিআই তদন্তের পক্ষেই জোরাল সওয়াল করলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। রবিবার উত্তর ২৪ পরগনার শ্যামনগরের জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বুদ্ধবাবু বলেন, "চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে সিবিআই ছাড়া কোনও বিকল্প নেই। তদন্ত করে দোষীদের শাস্তি দিতেই হবে।" গরীব মানুষের টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।

Updated: May 5, 2013, 07:29 PM IST

চিটফান্ড কেলেঙ্কারিকে রাজ্যের `বৃহত্তম বিপদ` মন্তব্য করে সিবিআই তদন্তের পক্ষেই জোরাল সওয়াল করলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। রবিবার উত্তর ২৪ পরগনার শ্যামনগরের জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বুদ্ধবাবু বলেন, "চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে সিবিআই ছাড়া কোনও বিকল্প নেই। তদন্ত করে দোষীদের শাস্তি দিতেই হবে।" গরীব মানুষের টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।
সারদার চিটফান্ড কেলেঙ্কারির কথা সবটাই জানতেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনটাই দাবি বুদ্ধদেব ভাট্টাচার্যের। ভোটের আগে তৃণমূল আর চিটফান্ড এক হয়ে গিয়ে বামেদের বিরুদ্ধে প্রচার চালায়। মুখ্যমন্ত্রীর `পয়লা বৈশাখ` তত্ত্বে সায় দিতে রাজি নন বুদ্ধবাবু। বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর নাম না করে প্রাক্তনের বক্তব্য, ``চিটফান্ডের সংবাদমাধ্যমকে লাখ লাখ টাকার বিজ্ঞাপন দিয়েছে সরকার।" বাম আমলে চিটফান্ড নিয়ন্ত্রণে আইন আনা হলেও তা কেন্দ্রের উদাসীনতায় কার্যকর করা সম্ভব হয়নি বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ দিনের চ্যালেঞ্জের জনসভায় তৃণমূল কংগ্রেসকে `দুর্নীতিগ্রস্ত` বলেও কটাক্ষ করেন বুদ্ধদেব। তিনি আরও বলেন, সমাজবিরোধীদের ভাষাই জানেন মুখ্যমন্ত্রী।
রাজ্যের কর্মসংস্থান পরিস্থিতি, আইন শৃঙ্খলা একে একে সবই এসেছে আজকের ভাষণে। এড়িয়ে যায়নি এসএফআই নেতা সুদীপ্ত গুপ্তের নিরপেক্ষ তদন্তের দাবিও। বুদ্ধবাবুর কথায়, ``নতুন সরকার আসায় কর্মসংস্থান শুধু হয়েছে চিটফান্ডে।" প্রেসিডেন্সি কলেজে হামলা থেকে শিলিগুড়ির দলীয় কার্যালয় থেকে অশোক ভট্টাচার্যের মতো নেতাদের গ্রেফতার। সাম্প্রতিক ঘটানার নিরিখে বুদ্ধদেব ভাট্টাচার্যের জবাব, ``সময় আসছে সবকিছুর হিসাব নিকাশ করে নিতে হবে।"
এদিনের জনসভায় মুখ খোলেন গৌতম দেবও। তাঁর দাবি, তিন মাস আগে মুখ্যমন্ত্রীর পাহাড় সফরে সঙ্গী হয়েছিলেন সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেনও। রাত ১২টায় সুদীপ্ত সেন ও রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুণ্ডুর সঙ্গে আলোচনা হয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এমনটাই অভিযোগ গৌতম বাবুর। এমনকী মুকুল রায় ও তৃণমূল সাংসদ কুণাল ঘোষ সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।