দু`বছর পর মায়ের কোলে ফিরল হারিয়ে যাওয়া শিশু

বাড়ি থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় চুরি গিয়েছিল নদিয়ার সরিফা বিবির তিনমাসের শিশুকন্যা। দুবছর পর হদিশ মিলল তার। কিন্তু ততদিনে সে পেয়ে গেছে অন্য এক মাকে। শান্তিপুর গ্রামেরই পাল দম্পতির বাড়িতে ধীরে ধীরে বড় হচ্ছিল ওই শিশুকন্যা। শেষপর্যন্ত ডিএনএ পরীক্ষার পর নিজের শিশুকন্যাকে ফিরে পেলেন নদিয়ার সরিফ বিবি। নয়ন পালকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।

Updated: May 20, 2013, 10:54 AM IST

বাড়ি থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় চুরি গিয়েছিল নদিয়ার সরিফা বিবির তিনমাসের শিশুকন্যা। দুবছর পর হদিশ মিলল তার। কিন্তু ততদিনে সে পেয়ে গেছে অন্য এক মাকে। শান্তিপুর গ্রামেরই পাল দম্পতির বাড়িতে ধীরে ধীরে বড় হচ্ছিল ওই শিশুকন্যা। শেষপর্যন্ত ডিএনএ পরীক্ষার পর নিজের শিশুকন্যাকে ফিরে পেলেন নদিয়ার সরিফ বিবি। নয়ন পালকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।
মায়ের পাশে ঘুমন্ত অবস্থায় দুবছর আগে চুরি হয়ে গিয়েছিল নদিয়ার শান্তিপুর থানার মালঞ্চ এলাকার বাসিন্দার সরিফা বিবির একমাত্র শিশুকন্যা। মাত্র তিনমাসের শিশুকন্যাকে হারিয়ে দিশেহারা সরিফা বিবি ছুটে গিয়েছিলেন পুলিসের কাছে। কিন্তু মেয়ের খোঁজ মেলেনি। মেয়েকে ফিরে পাওয়ার আশাই প্রায় ছেড়ে দিয়েছিলেন সরিফা। এরপর একদিন হঠাত্‍-ই আসে খবরটা। জানতে পারেন শান্তিপুর থানা এলাকার একটি গ্রামে দিলীপ পাল ও নয়ন পাল নামে এক দম্পতি সন্তান স্নেহে বড় করছে তাদের মেয়েকে। সেখানে ছুটে যান সরিফা। কিন্তু মেয়েকে দিতে রাজি হয়নি নয়ন পালও। এরপর অভিযোগ জানানো হয় শান্তিপুর থানায়। ফের শুরু হয় তদন্ত। ওই শিশুকন্যার আসল মা কে জানতে মামলা গড়ায় আদালত পর্যন্ত। অবশেষে ডিএনএ পরীক্ষায় প্রমাণ মেলে। দু বছর পর নিজের মেয়েকে ফিরে পেয়ে নিশ্চিন্তির হাসি সরিফার মুখে।
শিশুকন্যাকে দিতে রাজি হননি নয়ন পাল। জেরায় জানিয়েছেন এক পীরের কাছ থেকে তিনি ওই শিশুকন্যাকে পান। তারপর সন্তান স্নেহে বড় করছিলেন। পুলিস নয়ন পালকে গ্রেফতার করেছে।
একজন নাম রেখেছেন জেসমিন। অন্যজন কৌশিকি। ডিএনএ রিপোর্টের ভিত্তিতে পুলিস শিশকন্যাকে সরিফার হাতে তুলে দিয়েছে। এতদিন ধরে যাকে সন্তান স্নেহে বড় করছিলেন যাকে তাকে অন্যের হাতে তুলে দিতে কান্নায় ভেঙে পড়েন নয়ন পাল।