নতুন জটিলতায় নরওয়ে সন্তানকাণ্ড

Last Updated: Tuesday, January 8, 2013 - 17:06

নরওয়ে সন্তানকাণ্ডে ফের জটিলতা। মঙ্গলবার অভিজ্ঞান ও ঐশ্বর্যকে কাকা অরুনাভাস ভট্টাচার্যের কাছ থেকে নিয়ে যান বর্ধমান চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির সদস্যরা। সঙ্গে ছিলেন সাগরিকা এবং কুলটি থানার পুলিস। এদিকে এদিনই এনিয়ে সাগরিকার দায়ের করা মামলার শুনানি ছিল হাইকোর্টে। এঘটনা জানার পর আদালত দুই সন্তানকে ফের কাকার হেফাজতে বুধবারের মধ্যেই ফেরানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
দুই সন্তানকে তাঁর কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে ২০১২ সালের ২ জুন জুন বর্ধমান চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির দ্বারস্থ হন তাদের মা সাগরিকা ভট্টাচার্য। কিন্তু বাচ্চাদুটির সঠিক রক্ষণাবেক্ষনের জন্য গত বছর এপ্রিল মাসে কাকা অরুনাভাস ভট্টাচার্যকেই দায়িত্ব দেয় নরওয়ে সরকার। এরপরেই চাইল্ড ওয়েল ফেয়ার কমিটির দ্বারস্থ হন সাগরিকা। দুই পরিবারের মধ্যে চলা এই চাপানউতোরের মধ্যেই মঙ্গলবার ঘটনা অন্যদিকে মোড় নেয়। বর্ধমান চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির হস্তক্ষেপে কুলটি থানার পুলিস ওই দুই শিশুর বাবা অনুরুপ ভট্টাচার্যের বাড়িতে যান।  সঙ্গে ছিলেন সাগরিকাও। আসানসোলের বাড়ি থেকে দুই সন্তানকে নিয়ে যান চাইল্ড ওয়েলাফেয়ার কমিটির সদস্যরা।   হাইকোর্টে এই সংক্রান্ত বিষয়ে মামলা চলার মাঝখানে চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটি কীভাবে পুলিসের সাহায্যে এই কাজ করতে পারে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনুরূপ তবে সাগরিকার পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে আইন মেনেই তারা এই কাজ করেছেন।
দুই সন্তানের হেফাজত চেয়ে কলকাতা হাইকোর্টে গতবছরই দ্বারস্থ হয়েছিলেন সাগরিকা ভট্টাচার্য। তাঁর দাবি ছিল চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির নির্দেশ সত্বেও বাচ্চাদের নিজের হেফাজতে রেখে দিয়েছে তাদের কাকা। সন্তানদের তাঁর হেফাজতে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য আদালতের কাছে  দাবি জানান সাগরিকা।  মঙ্গলবার ছিল মামলার দ্বিতীয় দিনের শুনানি। আদালত চলাকালীনই আইনজীবী মারফত বিচারক জানতে পারেন চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির হস্তক্ষেপে কুলটি থানা দুই সন্তানকে অনুরুপ ভট্টাচার্যের বাড়ি থেকে নিয়ে গেছে। এই ঘটনা জানার পরেই আদালত অবিলম্বে দুই সন্তানকে বুধবারের মধ্যেই ফের তাদের কাকার দায়িত্বে্ই ফিরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয়। এবং এই নির্দেশ কার্যকর হয়েছে কিনা, সে বিষয়ে বুধবারই কুলটি থানার ওসিকে  রিপোর্ট পেশের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।



First Published: Tuesday, January 8, 2013 - 23:26


comments powered by Disqus