প্রদীপ তা হত্যাকাণ্ডে ধৃতদের সিআইডি হেফাজত

প্রদীপ তা ও কমল গায়েন হত্যাকাণ্ডে ধৃত চারজনকে ৮ মার্চ পর্যন্ত পুলিস হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিল আদালত। সোমবার ধৃতদের বর্ধমান জেলা দায়রা আদালতে পেশ করা হলে বিচারক এই নির্দেশ দেন।

Updated: Mar 5, 2012, 05:32 PM IST

প্রদীপ তা ও কমল গায়েন হত্যাকাণ্ডে ধৃত চারজনকে ৮ মার্চ পর্যন্ত পুলিস হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিল আদালত। সোমবার ধৃতদের বর্ধমান জেলা দায়রা আদালতে পেশ করা হলে বিচারক এই নির্দেশ দেন।
গত ২২ ফেব্রুয়ারি বর্ধমানের দেওয়ানদিঘিতে খুন হয়েছিলেন সিপিএম নেতা কমল গায়েন ও এলাকার প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ তা। এর পর নিহত প্রদীপবাবুর ভাইয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে সেদিনই চার জনকে গ্রেফতার করেছিল পুলিস। যদিও তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্তদের নিজেদের হেফাজতে নিতে চেয়ে আদালতে আবেদন জানায়নি পুলিস। ফলে ধৃতদের ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারক। বর্ধমান জেলা পুলিসের তরফে জানানো হয়েছিল, অভিযুক্তরা সবাই ধরা পড়ায় তাদের আর জেরা করার প্রয়োজন নেই। এরকম একটি গুরুত্বপূর্ণ মামলায় পুলিস ধৃতদের হেফাজতে না-নেওয়ায় বিষ্মিত হয়েছিল আইনজীবীমহল। পুলিসি তদন্তের নিরপেক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছিল।
ইতিমধ্যে ২ মার্চ সিআইডিকে ঘটনার তদন্তভার দেয় হাইকোর্ট। তার পর থেকেই ধৃতদের সিআইডি নিজেদের হেফাজতে নেবে কি না, তা নিয়ে জল্পনা চলছিল। সোমবার ধৃতদের সিআইডি হেফাজত হওয়ার পর প্রশ্ন উঠছে, জেলা পুলিসের যুক্তি অনুযায়ী সত্যিই যদি ধৃতদের তদন্তকারী সংস্থার হেফাজতে নেওয়ার প্রয়োজন না-থাকত, তাহলে সিআইডি অভিযুক্তদের নিজেদের হেফাজতে নিল কেন? প্রশ্নের মুখে তৃণমূলের খাড়া করা সিপিএমের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ও জনরোষের তত্ত্বও।